শাহজাদপুরে নৌকার হাট

রবিবার, ১৪ জুলাই ২০১৯

আব্দুল কুদ্দুস, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরীতে জমে উঠেছে নৌকার হাট। আষাঢ় ও শ্রাবণ দুই মাস বর্ষাকাল হলেও শাহজাদপুরের নদী পাড়ের মানুষের বর্ষার পরও অনেক দিন নৌকায় চড়েই চলাফেরা করতে হয়।

যমুনা, করতোয়া, বড়াল, হুড়াসাগর আর গোহালা নদীর মতো বেশ কয়েকটি নদী শাহজাদপুর উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহমান থাকায় অনেক আগে থেকেই কৈজুরীতে নৌকার হাট বসছে। কালের বিবর্তনে কোশা, বজরা, গয়নার নৌকার বিলুপ্তি ঘটলেও ডিঙি নৌকার হাট এখনো টিকে আছে। শাহজাদপুর উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার পূর্ব দিকে যমুনা নদীর তীরে কৈজুরীতে নৌকার পসরা সাজিয়ে হাট বসছে এখনো। সপ্তাহের সোম ও শুক্রবার হাট বসলেও নৌকার হাট বসে শুক্রবার। শুক্রবার সরেজমিন হাট ঘুরে দেখা যায়, বিক্রির জন্য প্রায় কয়েক শতাধিক ডিঙি নৌকা হাটে আনা হয়েছে। এর ইজারাদার জানান, পাবনার বেড়া, প্যাচাকোলা, শৈলজানার চর এবং সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী, চরকৈজুরী, পাচিল, জামিরতা, গুদিবাড়ি রতনদিয়া ধীতপুর থেকে অনেক মহাজন ডিঙি নৌকা বিক্রির জন্য এ হাটে নিয়ে এসেছেন ।

নৌকা বিক্রেতা গুপিয়াখালী নতুনপাড়া গ্রামের কোরবান আলী জানান, নৌকা বিক্রি তাদের পৈতৃক ব্যবসা। বাড়িতেই তাদের কারখানা রয়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার আগ থেকেই কিশোর বয়সে বাবার সঙ্গে নৌকা বিক্রি করতে তিনি কৈজুরী হাটে আসতেন। তখন ১২ হাত লম্বা একটি ডিঙি নৌকা ৬শ থেকে সাড়ে ৬শ টাকায় বিক্রি হতো। এখন সেটি বিক্রি হচ্ছে প্রায় সাত হাজার টাকায়। বর্ষায় আগে ডিঙি নৌকার কদর বেশি ছিল। এখন সড়কপথে যাতায়াত বেড়ে যাওয়ায় নৌকার কদর কমে গেছে। আগে সারা বছর নৌকার চাহিদা থাকত। তাই বিক্রি ভালো হতো। বর্তমানে ব্যবসা খুবই মন্দা। মিস্ত্রির মজুরি অনেক বেশি। পৈতৃক ব্যবসা ছাড়তেও পারছি না। এখন বিক্রি ও লাভ কম হলেও তবু ব্যবসা ধরে রেখেছি। বড় চানতারা থেকে হাটে আসা একজন নৌকা ক্রেতা রাজ্জাক বেপারি জানান, যমুনা তীরবর্তী হওয়ায় আষাঢ়ের প্রথমেই বাড়ির চারপাশে বন্যার পানিতে থই থই করে এ বাড়ি ও বাড়ি যেতে নৌকাই একমাত্র বাহন। আরো আগেই নৌকা কেনা লাগত সময়ের অভাবে দেরি হয়ে গেল।

কৈজুরী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম নৌকার হাট নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, নদীর নাব্য সংকটের কারণে বর্ষার পরপরই নদীপথ হারিয়ে যাচ্ছে। তাই নদীগুলোর নাব্য ফিরিয়ে আনা দরকার।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj