মেয়র আতিকুল : রিকশা চলবে বাইলেনে

বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মালিবাগ পর্যন্ত প্রগতি সরণিতে অবৈধ রিকশা শনাক্ত করতে বৈধ রিকশাগুলোতে কিউআর কোড বসানো হবে। সেই সঙ্গে মূল সড়কে রিকশা না চলে চলাচল করবে বাইলেনে। এ ছাড়া তারা (রিকশাচালকরা) নন-মেকানিক্যাল ট্রান্সপোর্ট (এনএমটি) বা বাইলেনে রিকশা চালাবে। গতকাল বুধবার দুপুরে গুলশানে নগর ভবনে রিকশা মালিক, চালক প্রতিনিধি এবং ওয়ার্ড প্রতিনিধিদের সঙ্গে এক বৈঠক শেষে তিনি এ তথ্য জানান।

বৈঠকে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল হাই, ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মফিজ উদ্দিন আহমেদ, গুলশান বিভাগের উপকমিশনার মোসতাক আহমেদ ও ট্রাফিক (উত্তর) বিভাগের উপকমিশনার প্রবীর কুমার রায় উপস্থিত ছিলেন।

উদাহরণ টেনে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, একটি রিকশা যদি কুড়িল থেকে রামপুরা যেতে চায় তাহলে বাইলেন দিয়ে যেতে হবে, যেখানে বাইলেন সেখানে নন-মেকানিক্যাল ট্রান্সপোর্ট (এনএমটি) বা ভেতরের রাস্তা দিয়ে যাবে। এ ছাড়া কুড়িল রোডের শেষ প্রান্তে রিকশা ইউটার্ন নিতে পারবে। পাশাপাশি রামপুরা ব্রিজ ব্যবহার করতে পারবে।

তিনি বলেন, অবৈধ রিকশা ও গ্যারেজ শনাক্ত করতে আমরা ওয়ার্ডভিত্তিক কমিটি গঠন করব। সিটি করপোরেশন এলাকায় বৈধ রিকশাগুলোকে কিউআর কোড করে দেয়া হবে। এটার যেন নকল না হতে পারে সেজন্য সর্বোচ্চ উন্নত প্রযুক্তি ও প্রযুক্তিবিদদের কাজে লাগানো হবে। চালকদের ডাটাবেস করা হবে। এতে বোঝা যাবে, কোনো রিকশা কে চালাচ্ছেন। পর্যায়ক্রমে রিকশাচালকদের জন্য ওয়ার্ডভিত্তিক ড্রেস করে দেয়া হবে।

এর আগে সভায় কুড়িল থেকে সায়েদাবাদ পর্যন্ত মূল সড়কে রিকশা চলাচলের অনুমতি দিতে মেয়রের কাছে অনুরোধ জানান রিকশা মালিক ও শ্রমিক কমিটির প্রতিনিধিরা। সভায় বাড্ডা থানা রিকশা মালিক সমিতির সভাপতি জয়নাল আবেদীন মামুন বলেন, বৈধ রিকশা চলাচল করলে ওই সড়কে যানজট হবে না। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী রিকশার জন্য আলাদা লেন তৈরি করার ঘোষণা দিয়েছেন। লেইন তৈরির আগ পর্যন্ত এই সড়কে রিকশা চলাচলের অনুমতি দিন। আমরা আশ্বস্ত করছি, সড়কে কোনো বিশৃঙ্খলা হবে না।

মোহাম্মদ টিপু মিয়া নামে একজন রিকশা মালিক বলেন, আমরা আশাবাদী ছিলাম যে মেয়র রিকশার জন্য আলাদা লেন করে দিবেন। কিন্তু তিনি তো আমাদের কোনো কথাই রাখেননি। সরকারের বিরুদ্ধে আমরা আন্দোলন করতে পারব না। যা বলেছেন তাই মেনে নিতে হবে।

ঢাকা মহানগরীর অবৈধ যানবাহন দূর/বন্ধ, ফুটপাত দখলমুক্ত ও অবৈধ পার্কিং বন্ধে গঠিত কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, গত রবিবার থেকে রাজধানীর কুড়িল-সায়েদাবাদ, গাবতলী-আজিমপুর ও সায়েন্সল্যাব-শাহবাগ রুটে রিকশা চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়।

এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রথম দিন রিকশাচালক ও মালিকদের তৎপরতা চোখে না পড়লেও গত সোমবার থেকে রাস্তায় বিক্ষোভ করছেন তারা। গত মঙ্গলবার সকালেই কুড়িল, বাড্ডা, রামপুরা ও মালিবাগ চৌধুরীপাড়ার বিভিন্ন স্থানে সড়কে নেমে আসেন কয়েক হাজার রিকশাচালক ও মালিক। সড়ক অবরোধ করে দিনভর বিক্ষোভ করেন তারা। তাদের অবরোধে প্রগতি সরণি, ডিআইটি রোড, ফারুক ইকবাল-তসলিম সড়ক, অতীশ দীপঙ্কর সড়ক দিয়ে চলাচলে বিপাকে পড়েন সাধারণ মানুষ।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj