বিশ্বকাপে সবচেয়ে বড় অঘটন ঘটাল কিউইরা : ভারতের বিদায়ে এশিয়ার কেউ রইল না

বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : ১৯৮৩ সালের পর দীর্ঘ ২৭ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ২০১১ সালে বিশ^কাপ জেতে ধোনির নেতৃত্বাধীন ভারত। এরপর ২০১৫ সালে বিশ^কাপের সেমিফাইনালে গিয়েও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হেরে তৃতীয়বারের মতো বিশ^কাপ জেতার আশা শেষ হয়ে যায় ম্যান ইন ব্লুদের। ক্রিকেট পাগল জাতি ভারতীয়রা শিরোপা জয়ের লক্ষ্য নিয়ে এবার বিরাট কোহলির নেতৃত্বে ইংল্যান্ড বিশ^কাপে অংশ নেয়। কিন্তু সেই স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়ে গেছে। গতকাল নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেমিফাইনালে মাত্র ১৮ রানে হেরেছে টিম ইন্ডিয়া। ২০১৫ বিশ^কাপে এই নিউজিল্যান্ডই দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছিল। তারই পুনরাবৃত্তি করে এবার ভারতকে হতাশায় ডুবাল। এবারের বিশ^কাপে সবচেয়ে ছন্দে ছিল ভারত। লিগ পর্বের ৯টি ম্যাচের মধ্যে একটি বাদে সবগুলোতে জিতে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানে থেকে সেমিফাইনালে খেলতে নামা ভারত হয়তো স্বপ্নেও চিন্তা করেনি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হারবে। কিন্তু ক্রিকেট যে অনিশ্চয়তার খেলা! গতকালের সেমিফাইনাল ম্যাচই তার চাক্ষুষ প্রমাণ।

২০০৮ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ^কাপের সেমিফাইনালে খেলেছিল নিউজিল্যান্ড ও ভারত। ওই বিশ^কাপে ভারতকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন বিরাট কোহলি। আর নিউজিল্যান্ডকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন কেন উইলিয়ামসন। সেবার হেসেছিলেন কোহলি। ১০ বছর পর আবার সেমিফাইনালে তাদের নেতৃত্বে মুখোমুখি হয় দুই দেশ। কিন্তু এবার কেঁদেছেন কোহলি, হেসেছেন উইলিয়ামসন।

দ্বাদশ বিশ^কাপে ৫ সেঞ্চুরি করা রোহিত শর্মার সামনে ছিল তারই স্বদেশী শচিন টেন্ডুলকারের ১৬ বছর আগে করা এক বিশ^কাপে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড ভাঙার সুযোগ। ২০০৩ বিশ^কাপে ৬৭৩ রান করা টেন্ডুলকারের চেয়ে মাত্র ২৬ রান দূরে ছিলেন রোহিত। কিন্তু রেকর্ড গড়তে নেমে আউট হন মাত্র ১ রানে।

মহেন্দ্র সিং ধোনির জন্য এটি ছিল শেষ বিশ^কাপ। অন্তত তার জন্য হলেও কিছু একটা করতে চেয়েছিল টিম ইন্ডিয়া। কিন্তু তার জন্য কেউই কিছু করতে পারেননি। উল্টো সেমিতে দলের চরম বিপর্যয়ে রবীন্দ্র জাদেজাকে নিয়ে তাকে দলের হাল ধরতে হয়েছে। এ দুজনের ১১৬ রানের জুটির ওপর ভর করে একটা সময় জয়ের স্বপ্ন দেখা শুরু করেছিল ভারতীয় সমর্থকরা। কিন্তু গাপটিলের অসাধারণ থ্রোতে ধোনি রান আউট হলে ভেঙে যায় সে স্বপ্ন।

গত পরশু নিউজ্যিান্ডের ইনিংসের ৪৬.১ ওভারের মাথায় ওল্ড ট্রাফোর্ডের মাঠে হানা দেয় বৃষ্টি। তবে বৃষ্টি এসে নিউজিল্যান্ডের মাথার ওপর কালো ছায়া ফেললেও ভারতীয় খেলোয়াড়েরা দুটি কারণে ছিলেন নির্ভার। টানা দুইদিন বৃষ্টি হয়ে ম্যাচটি যদি ভেস্তে যেত তাহলে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকে সেমিতে উঠা ভারত ফাইনালে চলে যেত। আবার কোহলিরা কিউই ব্যাটসম্যানদের এমনভাবে চেপে ধরেছিল মনে হচ্ছিল ২৩০ রানের মধ্যেই থামবে নিউজিল্যান্ডের ইনিংস। আগের দিনের ৪৬.১ ওভারে ২১১ রান নিয়ে থামা কিউইদের ব্যাটিং গতকাল আবার শুরু হয়। তাদের রানের চাকা গিয়ে থামে ২৩৯ এ। কিউইদের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৪ রান আসে রস টেইলরের ব্যাট থেকে।

তবে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা ঠিক মতো জ¦লে উঠতে না পারলেও তাদের বোলাররা এমনভাবে দ্যুতি ছড়ান যে ভারতের ব্যাটসম্যানরা কিউই বোলিং তোপে ক্রিজে আর দাঁড়াতেই পারেননি। রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলির মতো বিশ^সেরা ব্যাটসম্যানরা পাত্তাই পাননি ট্রেন্ট বোল্ট-ম্যাট হেনরির সামনে। পাঁচ সেঞ্চুরি করা রোহিত শর্মা অসহায় আত্মসমর্পণ করেন হেনরির আগুনের গোলার কাছে। তার দেখানো পথেই হাঁটেন আরেক ওপেনার লোকেশ রাহুল ও অধিনায়ক বিরাট কোহলি। কোন কিছু বুঝার আগেই চরম বিপর্যয়ে পরে তারা। ঋসভ পন্ত, হার্দিক পান্ডিয়া, ধোনি ও জাদেজা শেষ চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। ৪৯.৩ ওভারে ২২১ রানে শেষ হয় তাদের ইনিংস। ভারতের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৭ রান আসে জাদেজার ব্যাট থেকে। ধোনি করেন ৫০ রান।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৩টি উইকেট শিকার করেন ম্যাট হেনরি। আর ২টি করে উইকেট শিকার করেন ট্রেন্ট বোল্ট ও মিচেল সান্টনার।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj