কাউকে এগিয়ে রাখার সুযোগ নেই

বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০১৯

শেষের দিকে চলে এসেছে দ্বাদশ বিশ^কাপ। প্রথম সেমিফাইনালে গতকাল ভারতকে হারিয়ে ফাইনালে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছে নিউজিল্যান্ড। দারুণ একটি ম্যাচ দেখলাম। ভারতের মতো শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপের বিপক্ষে মাত্র ২৩৯ রানের পুঁজি নিয়েও যে ম্যাচ জেতা সম্ভব সেটা দেখিয়ে দিয়েছে কিউই বোলাররা। তবে মাত্র ৫ রানের মধ্যে টপ-অর্ডারের ৩ ব্যাটসম্যানকে হারিয়েও ভারত যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল সেটা প্রশংসনীয়। বিশ^কাপের সেমিফাইনাল ম্যাচ তো এমনই হওয়া চাই! ভারতের ব্যাটসম্যানদের দায়ী করাটা ঠিক হবে না। আসলে উইকেট বোলারদের পক্ষে ছিল। আগের দিন বৃষ্টি হয়েছে। গতকালও ম্যাচ শুরুর আগে বৃষ্টি হয়েছে। ফলে উইকেট পেসারদের অনুক‚লে ছিল। উইকেটের গতি ও সুইং শুরুতেই কাজে লাগাতে পেরেছে নিউজিল্যান্ডের পেসাররা।

এদিকে আজ দ্বিতীয় সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। সত্যি বলতে এই ম্যাচে কোনো দলকে এগিয়ে রাখার সুযোগ নেই। শক্তিমত্তার বিচারে দুই দলই কাছাকাছি। তাই একটি দলকে ফেভারিট বলতে গিয়ে অপর দলটির শক্তিমত্তাকে খাটো করে দেখাটা অন্যায় হবে। প্রথম সেমিফাইনাল ম্যাচটি ছিল ভারতের ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের বোলারদের লড়াই। কিন্তু ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে এমনটি হবে না।

অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড দুটি দলেই আছে দুর্দান্ত সব পেসার। ইংলিশ পেসার জোফরা আরচার তো এবারের বিশ^কাপের অন্যতম বিস্ময়। মরগানের দলের সব পেসাররাই ছন্দে আছে। আরচারের সঙ্গে মার্ক উড, ক্রিস উকস ও লিয়াম প্লাঙ্কেটদের নিয়ে গড়া দলটির পেস আক্রমণ। ইংল্যান্ডের জন্য ইতিবাচক দিক হলো সবাই উইকেট পাচ্ছে। ফলে নির্দিষ্ট কারো ওপর বাড়তি চাপ পড়ছে না। অস্ট্রেলিয়ার পেস আক্রমণও বেশ শক্তিশালী। মিচেল স্টার্ক তার দায়িত্বটা দারুণভাবে সামলাচ্ছে। বোলিংয়ে তাকে সঙ্গ দিচ্ছে প্যাট কামিন্স, জেসন বেহেরনড্রপ ও নাথান কোল্টার নাইলরা। স্পিনে আছে অ্যাডাম জাম্পা ও নাথান লায়ন। অভিজ্ঞ নাথান লায়ন উইকেট না পেলেও প্রতিপক্ষের রানের গতি নিয়ন্ত্রণে রাখার কাজটা বেশ ভালোভাবেই করে যাচ্ছে। সে সঙ্গে গেøন ম্যাক্সওয়েলও রয়েছে। অপরদিকে মঈন আলি ও আদিল রশিদ এই দুই ইংলিশ স্পিনার অজিদের জন্য ভাবনার কারণ। দুই দলের ব্যাটসম্যানরাই ফর্মে আছে। আবার দুটি দলই পেস বল ভালো খেলে। সেক্ষেত্রে স্পিনাররা ম্যাচের ফলাফল নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

লিগ পর্বে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ইংল্যান্ড হেরেছে। কিন্তু আমার মনে হয় না আজকের ম্যাচে এর কোনো প্রভাব পড়বে। কেননা, ফাইনালে যাওয়ার লড়াইয়ে অন্যরকম উদ্দীপনা নিয়ে মাঠে নামবে দুই দল। মাঠে যে দল ভালো খেলবে তারাই জিতবে।

উইকেটের আচরণ বুঝে ব্যাটিং করাটা খুব জরুরি। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে শুরুর দিকে বেশ ধীরগতিতে রান তুলেছে নিউজিল্যান্ড। এ জন্য অনেকে কিউই ব্যাটসম্যানদের সমালোচনা করেছে। আসলে তারা উইকেটটা বুঝতে পেরেছিল। তারা জানত যে, ২৪০-২৬০ রানই ম্যাচ জেতার জন্য যথেষ্ট হবে। আমি বলব, অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড ম্যাচেও আগে ব্যাটিং করা দলকে উইকেটের আচরণ বুঝে ব্যাট করতে হবে। প্রথম সেমিফাইনাল খুব উপভোগ করেছি। আশা করি, আজ ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যেও শ^াসরুদ্ধকর একটি ম্যাচ দেখতে পাব।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj