অনার্স বোর্ডে মোস্তাফিজ : স্টার অব দ্য উইক

মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০১৯

এবার দ্বাদশ বিশ^কাপ আসরে বাংলাদেশের পক্ষে বল হাতে ক্রিকেটের তীর্থস্থান লর্ডসে ইতিহাস গড়েছেন বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। নিজেদের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডেতে পাঁচ উইকেট শিকার করে নিজের নাম তুলেছেন অনার্স বোর্ডে। এমনকি ক্যারিয়ারের প্রথম বিশ^কাপ খেলতে গিয়ে গড়েছেন বেশ কয়েকটি রেকর্ড। ১৯৯৫ সালে ৬ সেপ্টেম্বর খুলনা বিভাগের সাতক্ষীরা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। চার ভাই ও দুই বোনের মধ্যে সবার ছোট তিনি। ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেটের প্রতি আগ্রহ ছিল ফিজের। বড় ভাই মোখলেসুরের হাত ধরেই প্রথম খেলার মাঠে যায়। ১০-১২ বছর বয়সে গ্রামে টেনিস বলে ক্রিকেট খেলা শুরু হয়। স্কুল পালিয়ে চলে যেতেন ক্রিকেট মাঠে। পড়াশোনায় অতটা মন মোস্তাফিজের কখনোই ছিল না। তাই ক্রিকেটই তার ধ্যানজ্ঞান। ২০১৫ সালে ১৯ জুন সফরকারী ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেক হয় মোস্তাফিজুর রহমানের। অভিষেক ম্যাচেই বোলিং জাদুতে ৫ উইকেট শিকার করেন এবং ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন। তার পরে ২১ জুনেও ভারতের বিপক্ষে ৪৩ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন। জীবনের প্রথম দুই ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়ে তিনি বিশ^রেকর্ড গড়েন। এর পর আর পিছে ফিরে তাকাতে হয়নি টাইগার এ বোলারকে। এবার দ্বাদশ বিশ^কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে ক্রিকেটের তীর্থস্থান লর্ডসে খেলতে নেমে ৫ উইকেট শিকার করেছেন মোস্তাফিজুর রহমান। ওইদিন ঐতিহাসিক অনার্স বোর্ডে নাম তুলেছেন তিনি। কারণ সেঞ্চুরি কিংবা ৫ উইকেট পেলে লর্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ডের ড্রেসিংরুমে লিখে রাখা হয় খেলোয়াড়ের নাম। এ ছাড়াও পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে দ্রুততম একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন তিনি। ৫৪ ম্যাচের ৫৩ ইনিংসে বল করে এই মাইলফলক স্পর্শ করেছেন ফিজ। এর আগে বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে দ্রুততম বোলার হিসেবে ১০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করার রেকর্ড ছিল বাঁহাতি স্পিনার আব্দুর রাজ্জাকের দখলে। ১০০ উইকেট পেতে রাজ্জাকের লেগেছিল ৬৯টি ওয়ানডে। সব মিলিয়ে নিজের ক্যারিয়ারে প্রথম বিশ্বকাপে ২০ উইকেট নিয়ে এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির স্থান দখল করে আছেন মোস্তাফিজ।

:: কামরুজ্জামান ইমন

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj