আমার আব্বা আমার পৃথিবী

শনিবার, ২২ জুন ২০১৯

শেখ শামীমা নাসরীন পলি

আমার যত ভালো ভাবনা তা আমার আব্বার কাছ থেকে পাওয়া। খুব ছোটবেলা থেকে যেসব কথা শুনে বড় হয়েছি তাহলো-

১. সৎ সঙ্গে স্বর্গ বাস, অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ।

২. খলকে বিশ্বাস করিও না।

৩. ঊর্ধ্ব মুখে পথ চলিও না।

৪. কটু বাক্য ভালো না।

৫. কারো উপকার করতে না পারো কিন্তু কারো ক্ষতি করবে না কখনো।

৬. সৎ চিন্তা করবে।

৭. প্রতিটি মানুষকে ভালোবাসবে, কখনো কোনো মানষকে ছোট করে দেখবে না।

৮. তোমার দ্বার থেকে যেন কেউ খালি মুখে না যায়।

এমন অনেক কথা আব্বা শোনাতেন। আমি ছোটবেলা থেকেই আব্বার কাছে বেশি থাকতাম। কেন যেন আব্বার সঙ্গে মাঠে, ঘাটে থাকতে ভালো লাগত। আমার শৈশবটা কেটেছে গ্রামে। সেই সময়কার স্মৃতি আজো মনের মধ্যে লুটোপুটি খায়। আহ! কী মধুর সে দিনগুলো। আমি শৈশবের ভেলায় ভেসে বেড়াই …

গরু দিয়ে জমি চাষ করছে আব্বা। আমি আইলের ওপর বসে লাঙল চালনা দেখি। মাটি দুভাগ হয়ে যাচ্ছে। জমিতে বসে আব্বার মাখানো ভাত খাওয়া। মইয়ের ওপর বসে গরুর টান…

নৌকায় করে আব্বা নিয়ে যেতেন বিলে। আমার ছোট দুহাত দিয়ে শাপলা উঠাতাম। আব্বা সবুজ ধানের ভেতর দিয়ে নৌকা বেয়ে যেতেন। আমি অবাক হয়ে আকাশ মিশে যাওয়া গ্রাম দেখতাম। নৌকায় শুয়ে আকাশে সাদা, কালো, ধূসর মেঘের লুকোচুরি খেলা দেখতাম। মন চাইত খুব- আমিও তো ওই আকাশে গিয়ে মেঘের সঙ্গে খেলতে পারি!

জোছনা রাতে কত যে ঘুরেছি নৌকায় নৌকায় করে পুকুরে, বিলে। পাগল করা ধবল জোছনা। আব্বা গান গাইতেন। সে কী সুর! আব্বার থেকেই পেয়েছি হয়তো গানের নেশাটা। গান শুনতে শুনতে কাজ করা। আব্বা সকাল হলে পুকুরে জাল নিয়ে যেতেন। আমিও যেতাম খালোই নিয়ে। আব্বার পাশাপাশি থাকতাম। আব্বা কাজ করতে করতে অনেক কথা বলতেন। আব্বাই ছিলেন আমাদের শিক্ষাগুরু।

বড় হওয়ার পরও আব্বার সঙ্গে ঘুরে বেড়িয়েছি। বাজার করা, সংসার পরিচালনা, সততা, নীতিবোধ সব আব্বার কাছ থেকে গ্রহণ করেছি।

কুপি, হারিকেন ছিল যে গ্রামের ভরসা সেই গ্রামে এখন ইন্টারনেট চলে। আব্বা অনেক ঘোরাঘুরি-ধরাধরি করে আমাদের গ্রামে বিদ্যুৎ এনে দিয়েছিলেন।

আব্বা সবাইকে বলতেন, তোমরা ঘরে ঘরে আলো জ্বালাও। শিক্ষার আলো। তোমাদের ছেলেমেয়েদের পড়ালেখা করাও। শিক্ষার আলোয় গ্রামটা আলোকিত হোক। সবাই দেখবে…

আব্বার দেখানো পথে যারা হেঁটেছিল তারা আজ অনেক উপরে পৌঁছে গেছেন।

আমার আব্বা ছিলেন আধুনিক মনের একজন মানুষ। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে গিয়ে পড়তেন। নীতিতে ছিলেন অটল। অন্যায়কে কখনো প্রশ্রয় দেননি।

আমার পৃথিবী ছিল আমার আব্বাকে ঘিরে। আমার জীবনের সব রং নিয়ে আমার আব্বা চলে গেছেন ওপারে। আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি, তুমি আমার আব্বাকে ভালো রেখো।

:: পাফোস- ১৭৮৩, লালবাগ, ঢাকা

পাঠক ফোরাম'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj