লড়াইটা দুই ওপেনারের

শনিবার, ১৫ জুন ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : দ্বাদশ বিশ^কাপে আজ ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হচ্ছে এশিয়ার দেশ শ্রীলঙ্কা। এবারের বিশ^কাপে অজিদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন অ্যারন ফিঞ্চ। অন্যদিকে লঙ্কানদের নেতৃত্বে আছেন দিমুথ করুনারতেœ। মজার ব্যাপার হলো, দুজনই দলের হয়ে ইনিংস ওপেন করেন। তাই অস্ট্রেলিয়া ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার আজকের ম্যাচটিকে দুই ওপেনারের লড়াই বলেও অ্যাখ্যা দেয়া যায়।

বিশ^কাপের কয়েকদিন আগেই শ্রীলঙ্কার ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পান দিমুথ করুনারতেœ। তা নিয়ে অবশ্য সমালোচনা কম হয়নি। তবে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস বিশ^কাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে দায়িত্বশীল এক ইনিংস খেলে করুনারতেœ বুঝিয়ে দেন যে কেনো তিনি দলকে নেতৃত্ব দেয়ার যোগ্য। ওই ম্যাচে শ্রীলঙ্কার প্রতিপক্ষ ছিল নিউজিল্যান্ড। আগে ব্যাটিং করতে নেমে কিউই পেসারদের তোপের মুখে পড়ে লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা। শুরু থেকেই একের পর এক উইকেট হারাতে থাকে শ্রীলঙ্কা। শেষ পর্যন্ত হাথুরুসিংহের শিষ্যদের ইনিংস গুটিয়ে যায় মাত্র ১৩৬ রানে। কিন্তু এমন বিপর্যের মুখেও অত্যন্ত ধৈর্য নিয়ে ব্যাট করেন করুনারতেœ। দলের ইনিংস ওপেন করতে নামা এই ব্যাটসম্যান অপরাজিত ছিলেন শেষ পর্যন্ত। খেলেন ৮৪ বলে ৫২ রানের এক ইনিংস। ক্রিকেট ইতিহাসে ইনিংসের আদ্যন্ত ব্যাটিং করার এমন নজির আছে মাত্র ৩টি।

নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে তুলনামূলক দুর্বল প্রতিপক্ষ আফগানিস্তানের মুখোমুখি হয় শ্রীলঙ্কা। ম্যাচটি লঙ্কানরা জেতে ৩৪ রানে। ওই ম্যাচে শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক করুনারতেœর ব্যাট থেকে আসে ৪৫ বলে ৩৪ রান। শ্রীলঙ্কার পরের দুটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়। যেখানে একটিতে প্রতিপক্ষ ছিল পাকিস্তান, আর অন্যটিতে বাংলাদেশ। বর্তমানে ৩১ বছর বয়সী দিমুথ করুনারতেœর ওয়ানডে অভিষেক হয় ২০১১ সালের ৯ জুলাই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। তবে প্রায় ৯ বছরের ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত মাত্র ২০টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন তিনি। এরমধ্যে ৩ হাফসেঞ্চুরিতে করেছেন ৩৪৯ রান। এটি তার ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় বিশ^কাপ। এর আগে ২০১৫ সালের বিশ^কাপে খেলেছেন করুনারতেœ। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ওই বিশ^কাপে ৪ ম্যাচে ৩৭ রান করেছিলেন এই বাঁ-হাতি ওপেনার।

অন্যদিকে দ্বাদশ বিশ^কাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই ব্যাট হাতে ঝলক দেখান অজি দলপতি অ্যারন ফিঞ্চ। ম্যাচটিতে অজিদের প্রতিপক্ষ ছিল আফগানিস্তান। ওই ম্যাচে মাত্র ৪৯ বলে ৬৬ রানের নজরকাড়া এক ইনিংস খেলেন তিনি। ম্যাচটি ক্যাঙ্গারুরা জেতে ৭ উইকেটে। পরের ম্যাচে অবশ্য হাসেনি অজি দলপতির ব্যাট। উইন্ডিজের বিপক্ষে মাত্র ৬ রান করেই সাজঘরে ফেরেন তিনি। এরপর নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ভারতের মুখোমুখি হয় অস্ট্রেলিয়া। ওই ম্যাচে ফিঞ্চের ব্যাট থেকে আসে ৩৬ রান। অজিদের পরের ম্যাচটি ছিল পাকিস্তানের বিপক্ষে। ম্যাচটিতে ফিঞ্চ খেলেন ৮২ রানের অসাধারণ এক ইনিংস।

২০১৩ সালের ১১ জানুয়ারি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ওয়ানডে অভিষেক হয় অ্যারন ফিঞ্চের। এখন পর্যন্ত ১১৩ ম্যাচে ১৩ সেঞ্চুরিতে ৪ হাজার ২৪২ রান করেছেন এই ডানহাতি ওপেনার। ফিঞ্চের ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় বিশ^কাপ এটি। ২০১৫ সালের বিশ^কাপে ৮ ম্যাচে ২৮০ রান করেছিলেন তিনি।

পরিসংখ্যানে অস্ট্রেলিয়া শ্রীলঙ্কা ওয়ানডে

ম্যাচ অস্ট্রেলিয়া শ্রীলঙ্কা পরি:

৯৭ ৬০ ৩৩ ৪

দলীয় সর্বোচ্চ

অস্ট্রেলিয়া

৩৭৬/৯, সিডনি, ২০১৫

শ্রীলঙ্কা

৩৪৩/৫, সিডনি, ২০০৩

দলীয় সর্বনিম্ন

অস্ট্রেলিয়া

৭৪ রানে অলআউট, ব্রিসবেন, ২০১৩

শ্রীলঙ্কা

৯১ রানে অলআউট, অ্যাডিলেড, ১৯৮৫

সবচেয়ে বেশি রান

অস্ট্রেলিয়া

রিকি পন্টিং- ৪৬ ম্যাচে ১৬৪৯ রান

শ্রীলঙ্কা

কুমার সাঙ্গাকারা- ৪৩ ম্যাচে ১৬৭৫ রান

সবচেয়ে বেশি উইকেট

অস্ট্রেলিয়া

ব্রেট লি- ২৯ ম্যাচে ৩৮ উইকেট

শ্রীলঙ্কা

মুত্তিয়া মুরালিধরন- ৩৭ ম্যাচে ৪৮ উইকেট

ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ

অস্ট্রেলিয়া

ডিন জোনস- ১১৭ (অপরাজিত)

শ্রীলঙ্কা

অরবিন্দ ডি সিলভা- ১০৭ (অপরাজিত)

সেরা বোলিং

অস্ট্রেলিয়া

মিচেল জনসন- ৩১ রানে ৬ উইকেট

শ্রীলঙ্কা

নুয়ান কুলাসেকারা- ২২ রানে ৫ উইকেট

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj