ব্যর্থ আইসিসি

শনিবার, ১৫ জুন ২০১৯

খেলা ডেস্ক : এবার ইংল্যান্ড-ওয়েলসে ক্রিকেট বিশ^কাপ আয়োজন করে বেশ বিপাকে পড়েছে আইসিসি। ক্রিকেটের জন্মভূমিতে বৃষ্টির মৌসুমে বিশ^কাপের মতো বড় আসর আয়োজন করায় আইসিসিকে সহ্য করতে হচ্ছে কড়া সমালোচনা। ক্রিকেট ভক্তরা অনেকে রসিকতা করে বলছেন, এবারের বিশ^কাপকে বৃষ্টিকাপ বললে ভুল হবে না। এমনকি প্রশ্ন উঠছে ইংল্যান্ডের মাঠগুলোর ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও বৃষ্টি থেকে আউটফিল্ড বাঁচানোর উপায় নিয়ে। তবে ভারতের ক্রিকেটার সৌরভ গাঙ্গুলি মনে করেন, আউটফিল্ড ঢেকে রাখার মতো কভার ব্যবহার করলে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচ সম্পন্ন করা অনেক সহজতর হয়ে উঠবে।

অন্যদিকে বৃষ্টির বিষয়টিকে ব্যঙ্গ করে ইংল্যান্ডেরই সাবেক অধিনায়ক কেভিন পিটারসেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে হাস্যকর একটি ছবি পোস্ট করেছেন। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ব্যাটসম্যান ব্যাটিং করছেন, তার পেছনে ক্যাচ ধরার অপেক্ষায় উইকেটরক্ষক। আর এই খেলাটি হচ্ছে পানির নিচে মুখে অক্সিজেন মাস্ক পরে। যার ক্যাপশন দেয়া হয়েছে, ক্রিকেট বিশ^কাপ ফাইনাল ২০১৯!

এবার বিশ^কাপে ১৪ দিনে পরিত্যক্ত হয়েছে ৪ ম্যাচ। তুমুল বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হওয়া ম্যাচগুলো শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা-বাংলাদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা-ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং ভারত-নিউজিল্যান্ড। এর মধ্যে তিনটি ম্যাচে একটি বলও মাঠে গড়ায়নি। তবে দক্ষিণ আফ্রিকা-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচে মাত্র ৭.২ ওভার খেলা হয়েছিল।

প্রকৃতির ওপর কারো হাত নেই এমন যুক্তিতে আইসিসির রেহাই পাওয়ার সুযোগ নেই। কারণ বৃষ্টি এলে বিশ^কাপের মাঠগুলোর উইকেট কভারে ঢেকে দেয়া হলেও আউটফিল্ড ভিজতেই থাকে। এ ব্যাপারে ক্রিকেটার সৌরভ গাঙ্গুলি বলেছেন, ইডেনে বৃষ্টি হলে মাঠে যে কভার ব্যবহার করা হয় সেটি ইংল্যান্ড থেকেই নেয়া হয়েছে। তারা নিজ দেশে এটা ব্যবহার করলে খরচ অর্ধেক হবে, ট্যাক্সও লাগবে না। তাদের উচিত যেভাবেই হোক এটা ব্যবহার করা।

কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে ব্যবহৃত কভার প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, ইডেনে এই কভার সব ম্যাচের জন্যই ব্যবহার করা হয়। তাই বৃষ্টি থামার ১০ মিনিটের মধ্যেই খেলা শুরু করা যায়। বিশ^কাপের মতো একটি আসরে, ইংল্যান্ডের মতো এমন বৃষ্টিঝরা দেশে-এ রকম কভার রাখা খুবই জরুরি। বিশেষ করে আউটফিল্ডে।

এমনকি ভারতের চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামের ড্রেনেজ ব্যবস্থাপনাও অত্যাধুনিক। সেখানকার সাব-এয়ার সিস্টেম মাধ্যাকর্ষণের বলের ৩৭ গুণ বেশি গতিতে মাঠ থেকে পানি টানতে পারে। এ জন্য বৃষ্টিতে পুরো মাঠ না ঢাকলেও চলে চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে। এমনকি শ্রীলঙ্কাতেও কিন্তু বৃষ্টি নামলে মাঠ পুরোপুরি ঢেকে ফেলা হয়। সে তুলনায় ইংল্যান্ডের অনেক মাঠেই ভালো ড্রেনেজ ব্যবস্থা কিংবা সাব-এয়ার সিস্টেম নেই।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj