নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল : ছাদের পলেস্তারা খসে ৫ শিশুসহ আহত ৯

বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০১৯

মোহাম্মদ সোহেল, নোয়াখালী থেকে : নোয়াখালী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে ৫ শিশুসহ ৯ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে ৫ জন ভর্তিকৃত শিশু রোগী ও বাকি ৪ জন শিশুর অভিভাবক।

গতকাল বুধবার সকাল ৭টার দিকে শিশু ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

আহতরা হলো- রাফি (২ বছর ৬ মাস), মো. ইসমাইল (৫), ইমাম উদ্দিন (৫), সুমাইয়া (১২), মো. রাসেল (১৬), মো. ইব্রাহিম (৫০), পারুল বেগম (৪৭), বাদশা (৩৫) ও রোজিনা বেগম (২০)।

রোগীর স্বজনরা জানান, সকাল ৭টার দিকে হঠাৎ করে শিশু ওয়ার্ডে পলেস্তারা খসে পড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ সময় রোগীর স্বজনদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় অনেকেই তাদের শিশুদের হাসপাতাল ছেড়ে অন্যত্র নিয়ে যান।

মাইজদী ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের সহকারী পরিচালক মো. হুমায়ুন কবির জানান, খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে অন্য রোগীদের বের করে আনেন।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম জানান, সকাল ৭টায় আকস্মিক শিশু ওয়ার্ডের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে ৫ শিশু ও ৪ শিশুর সহায়ক অভিভাবকসহ ৯ জন আহত হন। আহতদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এর আগে ২০১৮ সালের ১২ জুলাই নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের পুরনো ভবনের দোতলার একটি ওয়ার্ডের ছাদ ধসে পড়ে সিনিয়র স্টাফ নার্স স্বপ্না মজুমদার ও শিক্ষানবিশ নার্স রানী আক্তার আহত হয়েছিলেন।

হাসপাতালের একটি সূত্র জানায়, পুরনো ৩টি ভবনই ঝুঁকিপূর্ণ। তারপরও স্থান সংকুলানের অভাবে ওই ওয়ার্ডগুলোতে রোগীদের চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে একাধিকবার ভবনের বিভিন্ন ওয়ার্ডের ছাদের পলেস্তেরা খসে পড়েছে।

হাসপাতালের তত্ত্ব¡াবধায়ক ডা. মো. খলিল উল্লাহ জানান, তিন বছর আগে শিশু ওয়ার্ডসহ আরো তিনটি ভবনকে নোয়াখালী গণপূর্ত বিভাগ পরিত্যক্ত ঘোষণা করে। এখনো নতুন ভবন নির্মাণ না হওয়ায় ঝুঁকির মধ্যে রোগীদের চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে। এদিকে ঘটনার পরপরই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক তন্ময় দাস।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj