বেল পরিবর্তন করবে না আইসিসি

বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০১৯

খেলা ডেস্ক : এবার দ্বাদশ বিশ^কাপে বিতর্ক যেন পিছু ছাড়ছে না আইসিসিকে। রিজার্ভ ডে না রাখা আর বেল বিতর্ক নিয়ে চার দিকে বেশ আলোচনা হচ্ছে। তবে সবচেয়ে বেশি কথা ওঠেছে বেল নিয়ে। কারণ স্টাম্পে বল লাগলেও পড়ছে না বেল। বারবার এ রকম জিনিস দেখে এক প্রকার হতবাকই হয়ে গেছেন বোলাররা। বিশ^কাপের মতো এত বড় আসরে এর আগে কখনোই এমনটি হয়নি। এই বিষয়ে কিছুদিন আগে সমালোচনা করেছেন ভারতের দলপতি বিরাট কোহলি ও অজি অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। এ ছাড়াও অনেকেই দাবি করেছেন এই স্টাম্প, বেল পরিবর্তন করার জন্য। তবে ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা (আইসিসি) এই বেল স্টাম্প পরিবর্তন করতে নারাজ।

গত রবিবার ভারত-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচের প্রথম ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে জাসপ্রিত বুমরাহর একটি ডেলিভারি অজি ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নার খেলতে না পারলে স্টাম্পে লাগে। কিন্তু পড়েনি বেল। এমন নয় যে বোলাররা কম গতিতে বল করছেন। যখন মিচেল স্টার্কের ১৪০ কি.মি. বল স্টাম্পে লেগেও বেল পড়ে না তখন এই বিষয় নিয়ে প্রশ্ন ওঠাই স্বাভাবিক।

অবশেষে নানা আলোচনা-সমালোচনর পর এই স্টাম্প বিতর্ক নিয়ে মুখ খুলল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। সংবাদমাধ্যমে দেয়া এক বিবৃতিতে আইসিসির গভর্নিং বডির পক্ষ থেকে জানানো হয়, টুর্নামেন্টের মাঝপথে আমরা কোনকিছু পরিবর্তন করতে রাজি নই। পুরো ৪৮টি ম্যাচে ১০ দলের জন্য একই সরঞ্জাম ব্যবহার করা হবে। প্রায় চার বছর ধরে স্টাম্পগুলোর কোনো পরিবর্তন করা হয়নি।

বর্তমানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কাঠের বেল ব্যবহারের প্রথা প্রায় উঠেই গিয়েছে। এখন ক্রিকেটে এলইডি বেল ব্যবহার করা হচ্ছে। সামান্য নড়াচড়া হলে অথবা বল লাগলে আলো জ্বলে ওঠে নতুন প্রযুক্তির এই বেলে। তবে নতুন প্রযুক্তির এই বেল সাধারণ কাঠের বেলের চেয়ে কিছুটা ভারী। ২০১৫ বিশ^কাপ থেকে এই স্টাম্পগুলো ব্যবহার করা হয়ে আসছে। আইসিসি মনে করছে, স্টাম্প পরিবর্তনের জন্য এখনো উপযুক্ত সময় আসেনি। তাই প্রতিটি দলকে স্টাম্প, বেল নিয়ে সমস্যাকে খেলার অংশ হিসেবে মেনে নিতে বলছে আইসিসি।

আইসিসির বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ‘স্টাম্পগুলো ২০১৫ বিশ^কাপ থেকেই বিভিন্ন ম্যাচে ব্যবহার হয়ে আসছে। এর মানে সেগুলো এক হাজারেরও বেশি ম্যাচে ব্যবহৃত হয়েছে। এসব সমস্যা সবসময়ই খেলার একটি অংশ হয়ে এসেছে। তাই ব্যাটসম্যানদের পরাস্ত করার জন্য বোলারদের একটু বেশি শক্তি প্রয়োগ করা দরকার।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj