দুর্ভোগে কাউনিয়ার ৯ গ্রামের মানুষ : ঝড়ে লণ্ডভণ্ড বাঁশের সাঁকো

বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০১৯

কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি : মরা তিস্তা নদীতে অনেক কষ্টে পাওয়া বাঁশের সাঁকোটি কালবৈশাখী ঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ফলে ৯ গ্রামের মানুষের যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ ইউনিয়নের পূর্ব নাজিরদহ গ্রামে মরা তিস্তা নদীর ওপর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে প্রায় দেড় লাখ টাকা ব্যয়ে দেড়শ ফিট লম্বা একটি বাঁশের সাঁকো সদ্য নির্মাণ করে খুলে দেয়া হয়। বাঁশের সাঁকোটি নির্মাণের এক মাস না যেতেই সম্প্রতি কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায়।

এতে চর নাজিরদহ, চর প্রাণনাথ, গোপিডাঙ্গা, খলাইঘাট, ঠিকানা বাজার, পাগলারহাট, চরপল্লীমারী, চর সাব্দি, গেদ্দ বালাপাড়াসহ ৯টি গ্রামের সাধারণ মানুষের চলাচলে চরম দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। বাঁশের সাঁকোটি নির্মাণের আগে এলাকাবাসী কখনো হাঁটু পানি, কখনো কোমর পানি, আবার কখনো বাঁশের ভেলায় বা নৌকায় পারাপার হতো। বাঁশের সাঁকোটি নির্মাণে ৯ গ্রামের মানুষের মাঝে আনন্দের জোয়ার বয়েছিল। ঝড়ে বাঁশের সাঁকোটি লণ্ডভণ্ড হয়ে যাওয়ায় আগের কষ্ট আবারো পোহাতে হচ্ছে।

বাঁশের সাঁকো দিয়ে হাটবাজার, স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষ প্রতিনিয়ত যাতায়াত করতেন। এলাকাবাসী জরুরিভিত্তিতে বাঁশের সাঁকোটি পুনর্নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন।

হারাগাছ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মাহাবুবার রহমান জানান, নিয়তির পরিহাস কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডবে সাঁকোটি লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। হারাগাছ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রকিবুল হাসান পলাশ জানান, ঝড়ে এভাবে সাঁকো লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় তা আগে কখনো দেখিনি। অর্থের ব্যবস্থা করে সাঁকোটি পুনরায় নির্মাণ করে দেয়া হবে।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj