কল্পনা চাকমা অপহরণ : ২৩ বছরেও শুরু হয়নি মামলার বিচার

বুধবার, ১২ জুন ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : আদিবাসী নেত্রী কল্পনা চাকমা অপহরণ হওয়ার পর হাজার রকমের প্রতিবন্ধকতা তৈরি ও ষড়যন্ত্র করা হয়েছে এবং হচ্ছে। তাই ২৩ বছরেও শুরু হয়নি তাকে অপহরণ মামলার বিচার। তাকে অপহরণকারী লেফটেন্যান্ট ফেরদৌস ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা এখনো বহাল তবিয়তে রয়ে গেছেন।

কল্পনা চাকমা অপহরণের ২৩ বছর শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে গতকাল মঙ্গলবার বক্তারা এসব কথা বলেন। সকালে হিল উইমেন্স ফেডারেশন জাতীয় প্রেসক্লাবে বৈঠকের আয়োজন করে।

বৈঠকে ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়–য়া, নারী মুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি সীমা দত্ত, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক শম্পা বসু, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সভাপতি নিরুপা চাকমা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, ১৯৯৭ সালে কল্পনাসহ যারা অপহৃত ছিল, তারা ফিরে আসবে বলে আমাদের একটা আশা ছিল। কিন্তু তা ২২ বছরেও হয়নি। শুধু নারী নেত্রী হিসেবে কল্পনা চাকমা অপহরণ হয়নি। তিনি অপহরণ হয়েছেন গণতন্ত্রকামী আন্দোলনকারী কর্মী হিসেবে। কল্পনা চাকমাকে স্তব্ধ করতে তাকে অপহরণ করা হয়েছে।

২০১৫-১৬ সালে এ মামলা প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। তিনি বলেন, কল্পনা চাকমা অপহরণ মামলার তদন্ত এখনো শেষ হয়নি। সমস্যা হলো যিনি মামলার তদন্ত করছেন, সময় শেষের পরে তিনি ফের সময় চেয়ে নিচ্ছেন।

বক্তারা বলেন, দেশে অপহরণের ঘটনা বাড়ছে, রাষ্ট্র পরিচালনাকারীদের এ বিষয়ে নজর নেই। পার্বত্য চট্টগ্রামে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারি করা ১১ দফা নির্দেশনা প্রত্যাহার এবং সভা-সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়ে নাগরিকের স্বাধীন মতপ্রকাশের পরিবেশ সৃষ্টি করার দাবি জানান বক্তারা।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj