রিপনের স্বীকারোক্তি : রাগের মাথায় অমিতকে খুন করেছি

বুধবার, ১২ জুন ২০১৯

চট্টগ্রাম অফিস : চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী অমিত মুহুরী খুনের দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে এ মামলার একমাত্র আসামি রিপন নাথ। জবানবন্দিতে রিপন নাথ জানিয়েছে, কারাগারে একই সেলে অবস্থানকালে অমিতের পায়ের কাছে রিপনকে ঘুমাতে বাধ্য করায় রাগের মাথায় সে একাই ঘুমন্ত অবস্থায় অমিতকে ইট দিয়ে আঘাত করে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মো. মহিউদ্দিন মুরাদের আদালতে রিপনের জবানবন্দি নেয়া হয়। জবানবন্দি শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (প্রসিকিউশন) মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘রিপন নাথ হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। রিপন নাথ একাই অমিতকে খুন করেছে বলে আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। এরপর আদালতের নির্দেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। জবানবন্দিতে রিপন জানায়, ঘটনার রাতে অমিত মুহুরীর সঙ্গে ঘুমোনোর জায়গা নিয়ে তার কথা কাটাকাটি হয়। অমিত তাকে পায়ের কাছে ঘুমোতে বাধ্য করে। এতে রাগের মাথায় সে অমিতকে ইট দিয়ে আঘাত করে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক আজিজ আহমেদ বলেন, অমিত মুহুরী হত্যা মামলার আসামি রিপন নাথকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচদিনের পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গতকাল মঙ্গলবার রিপন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। জিজ্ঞাসাবাদে রিপন নাথ যেসব তথ্য দিয়েছিল আদালতে দেয়া জবানবন্দিতেও প্রায় একই তথ্য এসেছে। জিজ্ঞাসাবাদে রিপন জানিয়েছিল, সেলে নেয়ার পর রিপন ও অমিত একসঙ্গে ধূমপান করে। অমিত তাকে গালিগালাজ করত এবং বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখাত। এতে সে অমিতের ওপর ক্ষুব্ধ হয়। তিনি বলেন, এ ঘটনার তদন্ত এখনো শেষ হয়নি। রিপন ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে যা বলেছে তা আমরা খতিয়ে দেখব। অন্য বেশকিছু বিষয় নিয়েও আমরা কাজ করছি। সব কিছু সমন্বয় করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৯ মে রাতে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে খুন হন চট্টগ্রামের দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী অমিত মুহুরি। এ ঘটনায় পরদিন কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার নাশির আহমেদ। মামলায় আসামি করা হয়েছে রিপন নাথ নামে এক হাজতিকে। কারাগারের ৩২ নম্বর সেলের ছয় নম্বর কক্ষে ইটের টুকরো দিয়ে মাথার পেছনে আঘাত করে হত্যা করা হয় অমিতকে। রিপনকে ঘটনার দিন বিকেলে কারাগারের ওই কক্ষে নেয়া হয়।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj