এবার তাদের জ¦লে উঠার পালা

মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেলে নাকি জ¦লে উঠেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা- এমন একটি কথা ইতোমধ্যেই প্রচলিত হয়ে গেছে। কথাটা অবশ্য মিথ্যা নয়। অতীতে অসংখ্যবার এমন দৃষ্টান্ত মিলেছে। গত অক্টোবর-নভেম্বরের জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফরের কথাই ধরা যাক, সিলেটে অনুষ্ঠিত ২ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টটি ১৫১ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরে গিয়েছিল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বধীন বংলাদেশ দল। চারদিকে তখন টাইগারদের সে কি সমালোচনা! চাপের মুখে দ্বিতীয় টেস্টে ঠিকই ঘুরে দাঁড়িয়েছিল স্টিভ রোডসের শিষ্যরা। ঢাকার মিরপুর শেরেবংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট ম্যাচটি তারা জিতে নেয় ২১৮ রানে। জয় দিয়ে দ্বাদশ বিশ^কাপে নিজেদের অভিযান শুরু করা বাংলাদেশ দল হেরেছে পরের ২ ম্যাচে। শেষ চারে যাওয়ার স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখার মিশনে আজ শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হচ্ছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। স্বাভাবিকভাবেই কিছুটা চাপে আসেন টাইগার ক্রিকেটাররা। আর এই চাপটা কয়েকজন ক্রিকেটারের ওপর যেন একটু বেশিই। তারা হলেন- মাশরাফি বিন মুর্তজা, তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ ও মোসাদ্দেক হোসেন। এবারের বিশ^কাপে এখন পর্যন্ত আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি তারা।

তামিম ইকবালের সামর্থ্য নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। নিঃসন্দেহে দেশসেরা ওপেনার তিনি। এমনকি বর্তমানে বিশ^সেরা ওপেনারদেরও একজন চট্টগ্রামের এই ক্রিকেটার। তিনটি বিশ^কাপ খেলার অভিজ্ঞতা নিয়ে ইংল্যান্ডে খেলতে যাওয়া তামিমের কাছে এবার প্রত্যাশাটা অনেক বেশি।

টাইগারদের বড় স্কোর গড়ার বিষয়টা অনেকটাই নির্ভর করে তামিম ওপেনিংয়ে কেমন শুরু এনে দিতে পারেন সেটার ওপর। তবে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস বিশ^কাপে এখন পর্যন্ত খেলা ৩টি ম্যাচেই হতাশ করেছেন এই বাঁ-হাতি ওপেনার। বিশ^কাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। ওই ম্যাচে তামিমের ব্যাট থেকে আসে মাত্র ১৬ রান। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা দ্বিতীয় ম্যাচে ২৪ রান আসে তার ব্যাট থেকে। এরপর নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। ইংলিশদের বিপক্ষে তাদেরই মাঠে তামিমের অতীত রেকর্ড বেশ ভালো। তাই প্রত্যাশা ছিল তৃতীয় ম্যাচে হয়তো ছন্দে ফিরবেন তিনি। কিন্তু আবারো হতাশ করেন এই ওপেনার। স্বাগতিকদের বিপক্ষে তামিমের ব্যাট থেকে আসে মাত্র ১৯ রান।

৪২ রানের মারকুটে এক ইনিংস খেলে টাইগারদের প্রোটিয়া বধে অবদান রাখা সৌম্য সরকার ব্যর্থ হন পরের দুটি ম্যাচে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তার ব্যাট থেকে আসে ২৫ রান। আর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তো ক্রিজে বেশিক্ষণ দাঁড়াতেই পারেননি মারকুটে এই টাইগার ওপেনার। সাজঘরে ফেরেন মাত্র ২ রান করে।

মোসাদ্দেক হোসেনকে বিশ^কাপ স্কোয়াডে রাখা নিয়ে কম নাটক হয়নি। আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে উইন্ডিজের বিপক্ষে ২৪ বলে ৫২ রানের ম্যাচজয়ী এক ইনিংস খেলে মোসাদ্দেক বুঝিয়ে দেন যে কেন তাকে বিশ^কাপের দলে রাখা হলো। সে সঙ্গে একাদশে থাকার দাবিটাও জোরালো করেন এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। সুযোগও পেয়ে যান দ্বাদশ বিশ^কাপে টাইগারদের প্রথম ম্যাচেই। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে ২৬ রানের ইনিংস খেলা মোসাদ্দেক অবশ্য এখনো পর্যন্ত নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। কিউইদের বিপক্ষে তার ব্যাট থেকে আসে ২১ রান। আর ইংলিশদের বিপক্ষে আউট হন মাত্র ২৬ রান করে। ২০১৫ সালের বিশ^কাপে টানা দুটি সেঞ্চুরি হাঁকানো মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও এখন পর্যন্ত নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৪৬ রানের দায়িত্বশীল ইনিংস খেলা রিয়াদ পরের দুই ম্যাচে ২০ ও ২৮ রান করেছেন। আঙুলে চোট পাওয়ায় এবার বোলিং করতে পারছেন না তিনি। তাই ব্যাট হাতের রিয়াদের কাছে প্রত্যাশাটা অনেক বেশি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ব্যাট হাতে জ¦লে উঠবেন অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার এমনটিই সবার চাওয়া।

অন্যদিকে ৩ ম্যাচে এখন পর্যন্ত মাত্র ১টি উইকেটে পেয়েছেন মাশরাফি। যেটা তার নামের সঙ্গে একেবারেই যায় না। স্পিন বোলিং অলরাউন্ডার মিরাজ অবশ্য বল হাতে নিজের দায়িত্বটা ভালোই সামলাচ্ছেন। ৩ ম্যাচে নিয়েছেন ৫ উইকেট। তবে শেষদিকে ব্যাট হাতে তিনি কিছু রান করতে পারলে জয়টা সহজ হয়ে যায় টাইগারদের জন্য।

বাংলাদেশের স্বপ্ন সেমিতে খেলা। শেষ চারের দৌড়ে টিকে থাকতে হলে আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় পাওয়াটা খুব জরুরি। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মাশরাফি, মিরাজ, তামিম, সৌম্য, মোসাদ্দেক ও মাহমুদউল্লাহরা দ্যুতি ছড়াবেন এমনটিই প্রত্যাশা প্রতিটি টাইগার ভক্তের।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj