প্রত্যাশা পূরণ করেনি ঈদের সিনেমা

সোমবার, ১০ জুন ২০১৯

বিনোদন প্রতিবেদক : মুক্তির আগে যতটা ঢাকঢোল পিটিয়ে মুক্তি পেয়েছিল ঈদের তিনটি সিনেমা, সেই তুলনায় ব্যর্থ হয়েছে সিনেমা হলে দর্শক টানতে। সিনেমা তিনটির মানের কারণেই ব্যবসায় সৃষ্টি হয়নি কোনো চমক। এর সঙ্গে জুড়েছে বিশ^কাপ ক্রিকেট আর বৃষ্টি। দর্শকরা এই ঈদে সিনেমা হলমুখী হয়েছেন কম। এই ঈদে লড়াই হয়েছে মূলত শাকিব খান অভিনীত দুই ছবি ‘পাসওয়ার্ড’ এবং ‘নোলক’র মধ্যে। ব্যবসায় এগিয়ে রয়েছে ‘পাসওয়ার্ড’। সিনেমা হলের সংখ্যায়ও এটি ঈদের এক নাম্বার সিনেমা। ‘নোলক’ এই ঈদের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ছবি। কিন্তু ব্যবসায় সুবিধা করে উঠতে পারেনি। ঈদের পাঁচ দিন পেরিয়ে ‘নোলক’র ব্যবসাকে প্রত্যাশাব্যঞ্জক বলা যাচ্ছে না। ঈদের সিনেমার মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ‘আবার বসন্ত’র।

দেশের বিভিন্ন জেলার সিনেমা হলগুলোতে খবর নিয়ে জানা যায়, কোথাও ঈদের সিনেমা বিপুল দর্শকের উপস্থিতিতে ধন্য হয়নি। ঈদ উপলক্ষে খুলনা নগরের পাঁচটি সিনেমা হলে চলছে তিনটি ছবি। শঙ্খ ও লিবার্টি সিনেমা হলে ঈদের দিন থেকে চলছে ‘পাসওয়ার্ড’। সোসাইটি সিনেমা হলে চলছে উত্তম আকাশ পরিচালিত ‘বয়ফ্রেন্ড’। সঙ্গীতা ও চিত্রালী সিনেমা হলে চলছে ‘নোলক’। সিনেমা হলগুলোতে দর্শক নেই বললেই চলে। শঙ্খ সিনেমা হলটিতে দর্শক ধারণক্ষমতা প্রায় এক হাজার। ঈদের দিন প্রথম শোতে দর্শকের চাপ ছিল কিছুটা বেশি, তবে আশানুরূপ নয়। সঙ্গীতা সিনেমা হলে দর্শক ধারণক্ষমতা প্রায় ৮০০। ঈদের দিন ওই হলে সাড়ে অর্ধেকেরও কম আসন পূর্ণ হয়েছে। খালিশপুর এলাকার লিবার্টি সিনেমা হলে ঈদের প্রথম দুদিন মোটামুটি দর্শক সমাগম হয়েছিল। পরদিন থেকে দর্শক কমে গেছে। দর্শক টানতে না পারায় হতাশ চট্টগ্রামের একটি মাল্টিমিডিয়া সিনেপ্লেক্সসহ চারটি সিনেমা হলের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা। চারটি প্রেক্ষাগৃহ হচ্ছে নগরীর কে সি দে রোডে ‘সিনেমা প্যালেস’, কাজীর দেউড়ি এলাকায় ‘আলমাস’ ও ‘দিনার’ এবং ষোলশহর দুই নাম্বার গেট এলাকায় ফিনলে স্কয়ারে ‘সিলভার স্ক্রিন’। গাজীপুরের টঙ্গীতে এখন একটি সিনেমা হল। এই হল চম্পাকলিতে চলছে ‘পাসওয়ার্ড’। গাজীপুরের বেশির ভাগ মানুষ অন্য জেলার। ঈদের ছুটিতে সবাই বাড়ি চলে গেছে। তারপরও দর্শক উপস্থিতি সন্তোষজনক। বগুড়ার সোনিয়া সিনেমা হলে চলছে ‘পাসওয়ার্ড’। ঈদের দিন ছবিটি দর্শকদের প্রশংসা কুড়ালেও ঈদের দিন থেকে তৃতীয় দিন পর্যন্ত দর্শক উপস্থিতি হতাশাব্যঞ্জক। শহরের নওয়াবাড়ি সড়কে অবস্থিত সোনিয়া সিনেমা হলে একসঙ্গে বসতে পারেন ৮০০ দর্শক। অথচ শুক্রবার ঈদের তৃতীয় দিন এক চতুর্থাংশ দর্শকও পাওয়া যায়নি। ঈদের দিন থেকে অধিকাংশ শোতে দর্শকখরার একই চিত্র। তবে বগুড়ার পাঁচ তারকা হোটেল মম ইন মুভি থিয়েটার কাম মিনি সিনেপ্লেক্সে ‘পাসওয়ার্ড’ ভালো চলছে। কুমিল্লা নগরের চকবাজার এলাকার একমাত্র সিনেমা হল রূপালীতে চলছে ‘পাসওয়ার্ড’। এই হলে অন্যবারের তুলনায় এবার দর্শক বেড়েছে। অন্যবারের চেয়ে এবার দর্শক বেশি আসছে। সারাদেশে ব্যবসার চিত্র মন্দা হলেও রাজধানীর অবস্থা কিছুটা ভালো। মধুমিতা প্রেক্ষাগৃহের কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, ব্যবসায়িকভাবে আমি সন্তুষ্ট। বছরের প্রথম কোনো সিনেমা এতটা ব্যবসা করছে। ঢাকার শ্যামলীতে প্রদর্শিত হচ্ছে ‘পাসওয়ার্ড’। শ্যামলী প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ বলেন, বছরের প্রথম ব্যবসাসফল ছবির দেখা পেলাম। স্টার সিনেপ্লেক্সে ঈদের তিনটি সিনেমাই মুক্তি পেয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক মেসবাহ উদ্দিন বলেন, দর্শক আগ্রহ ও ব্যবসায়িক দিক তুলনা করলে ‘পাসওয়ার্ড’ এগিয়ে আছে।

বিনোদন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj