রেসিপি : ঈদ শেষ ধোঁয়া ওঠা ভাত-ভর্তা

রবিবার, ৯ জুন ২০১৯

রেসিপি দিয়েছেন: আলিয়া ওহাব

ঈদ শেষ হলেও এখনো কাটেনি পোলাও কোর্মার আমেজ। তবে মন যেন ছটফট করছে এক বেলা ডাল-ভাত-ভর্তার জন্য। গরম গরম ধোঁয়া ওঠা ভাত, রকমারি ভর্তা আর সাথে পেঁয়াজ-মরিচ উফফ! ভর্তার বৈচিত্র্যের জন্যে বাঙ্গালিদের তুলনা নেই। আর একেকটি ভর্তার রেসিপি কিন্তু একেকরকম। ফ্যাশনে আজকের আয়োজনে থাকছে বিভিন্ন রকম ভর্তার রেসিপি।

চিংড়ি মাছের বাটা ভর্তা

উপকরণ: ছোট চিংড়ি ১ কাপ, কিউব করে পেঁয়াজ কাটা আধা কাপ, রসুন টুকরো ২ টেবিল চামচ, শুকনা মরিচ ৮-১০টি, কাঁচামরিচ ৫-৬টি এবং লবণ স্বাদ অনুযায়ী, সামান্য সরিষার তেল।

প্রণালি: চিংড়ির খোসা ছাড়িয়ে পরিষ্কার করে ধুয়ে নিন। একটি পাত্রে তেল গরম করে তাতে চিংড়ি মাছের সঙ্গে অন্য সব উপকরণ দিয়ে ধীরে ধীরে ভাজতে থাকুন। চিংড়ি মাছ বেশ মচমচে করে ভাজা হলে সেটি গরম গরম চুলা থেকে নামিয়ে পাটায় মিহি এবং শুকনো করে বেটে নিন। তারপর সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

পোড়া বেগুন ভর্তা

উপকরণ: গোল বেগুন বড় ১টি (লম্বা বেগুন দিয়েও করা যায়), পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, রসুন মোটা করে কুচি ৪ টেবিল চামচ, কাঁচা মরিচ ফালি করা ৪-৫ টি, রসুন বাটা আধা চা চামচ, হলুদ গুঁড়ো আধা চামচ থেকে একটু কম, মরিচ গুঁড়ো ১ চা চামচ, ধনিয়া গুঁড়ো আধা চা চামচ, লবণ স্বাদমত, আস্ত জিরা ১ চিমটি, কালো জিরা ১ চিমটি, ধনেপাতা কুচি ২ টেবিল চামচ, সরিষার তেল ৪ টেবিল চামচ।

প্রণালি: প্রথমে বেগুন ধুয়ে নিয়ে, বেগুনের গায়ে একটু তেল মাখিয়ে, সরাসরি চুলাতে অথবা তাওয়াতে দিয়ে বেগুন পুড়ে নিতে হবে। এরপর ঠান্ডা করে বেগুনের পোড়া খোসা ফেলে দিয়ে হাত দিয়ে চটকে নিতে হবে। কড়াইতে তেল গরম করে আস্ত জিরা ও কালোজিরার ফোড়ন দিতে হবে।

তারপর পেঁয়াজ ও রসুন কুচি দিয়ে ভাজতে হবে। পেঁয়াজ-রসুন কুচি নরম হয়ে আসলে অর্ধেক কাঁচামরিচ ফালি দিয়ে আরো কিছুক্ষণ ভাজতে হবে। যখন পেঁয়াজ, রসুন ও কাঁচা মরিচ হালকা বাদামী হতে শুরু করবে, তখন এর মধ্যে রসুন বাটা, মরিচ, হলুদ, ধনিয়া লবন ও অল্প পানি দিয়ে মশলা খুব ভালো করে কষাতে হবে। মশলা ভালো করে কষানো হলে চটকে রাখা বেগুন ও বাকি কাঁচা মরিচ ফালি দিয়ে নেড়ে চেড়ে ২-৩ মিনিট রান্না করতে হবে। বেগুন ভর্তা ভাজা ভাজা হয়ে তেল উপরে উঠলে ধনেপাতা কুচি দিয়ে নেড়ে নামিয়ে ফেলতে হবে।

আলুভর্তা

উপকরণ: আলু ৫০০ গ্রাম, পেঁয়াজ কুঁচি ২ টেবিল চামচ, কাঁচামরিচ কুচি ১ চা চামচ, ধনেপাতা কুচি ১ চা চমচ, সরিষার তেল ১ টেবিল চামচ, শুকনা মরিচ ও লবণ স্বাদ অনুযায়ী।

প্রণালি: প্রথমে আলু পরিমাণ মতো পানি দিয়ে সিদ্ধ করে গরম অবস্থায় খোসা ছাড়িয়ে হাত দিয়ে চটকিয়ে নিন। এরপর ঠান্ডা হয়ে এলে তাতে একে একে পেঁয়াজ কুচি, ধনেপাতা, কাঁচামরিচ কুচি, শুকনা মরিচ ও স্বাদ অনুযায়ী লবণ এবং সরিষার তেল দিয়ে ভালো করে একসঙ্গে চটকিয়ে তৈরি করুন আলুভর্তা।

টাকি মাছের ভর্তা

উপকরণ: টাকি মাছ ৪টি বড়, পেঁয়াজকুচি ২ টেবিল চামচ, ২টি কাঁচা মরিচের কুচি, ধনেপাতা কুচি ১ টেবিল চামচ, আদা মিহি কুচি ১ চা-চামচ, রসুন বাটা ১ চা-চামচ, হলুদের গুঁড়া আধা চা-চামচ, মরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল ৪ টেবিল চামচ।

প্রণালি: টাকি মাছ কেটে ও ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখতে হবে। রসুন বাটা, হলুদ-মরিচের গুঁড়া ও লবণ মাখিয়ে রাখতে হবে পাঁচ মিনিট।

কড়াইয়ে তেল দিয়ে তাতে টাকি মাছগুলো লাল করে এবং একটু চেপে চেপে ভালো করে ভাজতে হবে, যেন কোনো পানি না থাকে মাছের মধ্যে। ভাজা হলে মাছের কাঁটা বেছে কাঁচা মরিচ, পেঁয়াজ কুচি, ধনেপাতা ও আদা কুচি দিয়ে মেখে পরিবেশন করা যায় মজাদার টাকি মাছের ভর্তা।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj