আফগান শান্তি আলোচনায় অগ্রগতির দাবি তালেবানের

শনিবার, ১ জুন ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : রাশিয়ার মস্কোতে চলমান আফগানিস্তান শান্তি আলোচনায় বৃহস্পতিবার ‘অভূতপূর্ব অগ্রগতি’র দাবি করেছে তালেবান কর্মকর্তারা এবং দেশটির বিরোধীদলীয় নেতারা। তবে এখন পর্যন্ত এই আলোচনায় আফগান সরকারের প্রতিনিধি যুক্ত না হওয়ায় এবং যুদ্ধবিরতি ঘোষণা না হওয়ায় এই তালেবানের অগ্রগতির ঘোষণা খানিকটা ফাঁপা হয়ে উঠতে পারে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডন।

গত বছরের জুলাইতে শুরু হয় যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবান-এর শান্তি আলোচনা। এ বছরের মে মাস পর্যন্ত ছয় ধাপের আলোচনার কোনোটিতেই আফগান সরকারকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। আফগান সরকারকে যুক্তরাষ্ট্রের পুতুল সরকার বলে মনে করে তালেবান। যুক্তরাষ্ট্রের উদ্যোগে ওই আলোচনায় যথাযথ ফলাফল না আসায় মস্কোর উদ্যোগে নতুন করে মস্কোতে আফগান শান্তি আলোচনা শুরু হয়। মস্কোর একটি হোটেলে সাবেক আফগান প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই ও সাবেক সেনাপতি আত্তা মোহাম্মদ নুরসহ দেশটির বেশ কয়েকজন রাজনীতিবিদের সঙ্গে বৈঠক করেন উগ্র ইসলামপন্থি তালেবান বিদ্রোহীরা।

আলোচনার পর এক যৌথ বিবৃতিতে অংশ নেয়া পক্ষগুলো জানায়, তারা ‘গঠনমূলক ও ফলপ্রসু’ আলোচনা করেছেন। সম্ভাব্য যুদ্ধবিরতি, ইসলামিক ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণ ও নারী অধিকার ইস্যু তাদের আলোচনায় স্থান পেয়েছে বলে জানানো হয় বিবৃতিতে। বিবৃতিতে বলা হয়, দুই পক্ষই অভূতপূর্ব অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে তবে কয়েকটি ইস্যুতে আরও আলোচনার দরকার রয়েছে।

কাবুল প্রশাসনকে যুক্তরাষ্ট্রের পুতুল সরকার বলে মনে থাকে তালেবান। যুক্তরাষ্ট্রের উদ্যোগে কাতারে অনুষ্ঠিত তালেবানদের সঙ্গে শান্তি আলোচনার মতো মস্কোর আলোচনাতেও অনুপস্থিত থেকেছে কাবুল সরকারের প্রতিনিধিরা। সরকারি প্রতিনিধিদের অনুপস্থিতির কারণে এই আলোচনার ফলাফল বাস্তবায়ন নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। পবিত্র রমজান মাসের শুরু উপলক্ষে দেশজুড়ে যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দিয়েছিলেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি। তবে তালেবানরা ওই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj