বালিশ কাহিনী : নুরুল আমিন হৃদয়

শনিবার, ১ জুন ২০১৯

বালিশ একটি আরামদায়ক বস্তু। ইদানীং সর্বত্র এক আলোচনা বালিশ! বালিশ!! বালিশ!!!

কেউ বলেন, একটা বালিশের দাম ছয় হাজার টাকা হয় কী করে! আবার কেউ বলেছেন, অতীতে এর চেয়ে বেশি দামেও বালিশ কিনতে দেখা গেছে।

বিছানার সৌন্দর্য বাড়াতে বালিশের গুরুত্ব অপরিসীম। আবার সিনেমায় রোমান্টিক দৃশ্য ধারণেও বালিশের গুরুত্ব কম নয়। নায়ক-নায়িকাদের রোমান্টিক ঝগড়ায় এই বালিশ সুপার গøুর মতো কাজ করে। বালিশ থেকে যতক্ষণ তুলা বের না হবে ততক্ষণ এই রোমান্টিক ঝগড়া চলতেই থাকবে। পরিচালকও ‘কাট’ বলবেন না।

আবার রাতে কিংবা দিনে- বিছানায় প্রিয়জনের মাথাটা বালিশে আছে কিনা তা নিয়ে চিন্তায় চিন্তায় অনেকের নিজের বালিশটা যে মাথাচ্যুত হয়ে যায়, তারও খবর রাখেন না!

অনেক বালিশ আছে তা মাথায় দিয়েও শান্তি নেই। আবার অনেকেই আছেন বালিশ নিয়ে তার চিন্তার শেষ নেই। তার মনে হয় বালিশ শক্ত হয়ে গেছে। এত শক্ত বালিশে ঘুম হয় না। বালিশ থেকে মাথা গড়িয়ে পড়ে যাচ্ছে। এত রকমের সূ² চিন্তা ঘুমকে গভীরতায় ঢুকতে দেয় না।

অনেকে আছেন, কোন দিকে মাথা ফিরে শুতে পারলে আরামে ঘুম আসবে তা নিয়েই চিন্তায় পড়ে যান। ওই রকম চিন্তা করতে করতেও প্রায়ই ভোর হয়ে যায়। বিদেশি অনেক বালিশ কোম্পানি অনেক চ্যানেলে বালিশের বিজ্ঞাপন প্রচার করে। তাদের ¯েøাগান- আপনার ঘুম নিয়ে টেনশনের দিন শেষ। উন্নত মানের কোরিয়া, জাপান, আর চায়নার এক নম্বর পলি ফিলার দিয়ে তৈরি আরামদায়ক বালিশ আমরা আপনাকে পৌঁছে দেব। আপনি অর্ডার করলে লম্বা চ্যাপ্টা, চওড়া গোল যে কোনো ধরনের বালিশ মাত্র …. টাকার চার্জে আপনার ঘরে পৌঁছে যাবে।

বালিশ নিয়ে আপনি কোন ধরনের আরাম চান? কোরিয়ায় বিভিন্ন ধরনের আরামদায়ক বালিশ পাওয়া যায়।

১. হাত বালিশ : এ বালিশে দুটো হাতের মতো ডিজাইন করা হয়েছে। বাবা-মায়েরা তাদের শিশুটিকে এতে ঘুম পাড়াতে পারেন। শিশুরা মনে করবে, আপনার হাতের ওপরই শুয়ে রয়েছে তারা।

২. চুমু বালিশ : বালিশ ধরে ঘুমানোর আগে যদি একটা চুমু পাওয়ার আশায় থাকেন কেউ, তবে ‘মেক আউট’ বালিশ ছাড়া তার গতি নেই। এই বালিশে আছে পুরুষের ঠোঁট। আর এই বালিশের সঙ্গে খুনসুটি করতে করতে ঘুমানো উপভোগ্য হয়ে উঠবে।

৩. নারী কোলবালিশ : এটি নিঃসন্দেহে পুরুষদের জন্যেই বানানো হয়েছে। বালিশের ডিজাইন দেখলে মনে হবে একজন নারী তার দুই পা ভাঁজ করে বসে আছে। আর সেখানেই মাথা রেখে ঘুমিয়ে পড়তে হবে।

৪. বয়ফ্রেন্ড বালিশ : একজনকে একান্তে জড়িয়ে ধরতে আর প্রেমিকের দরকার হবে না একাকী নারীর। এই বালিশই তার বয়ফ্রেন্ড হিসেবে কাজ করবে। এটি এমনভাবে বানানো হয়েছে যেখানে আছে একজন পুরুষের হাত, গলা ও বুকের অংশ। একেবারে প্রেমিককে জড়িয়ে ধরার সাধ মিলবে এতে।

৫. টিস্যু ডিসপেন্সার বালিশ : যখন কারো বুক ফেটে কান্না আসবে, তখন সে এই বালিশ জড়িয়ে ধরলে চোখের পানি মুছতে টিস্যুর প্রয়োজন পড়বে না। এই বালিশের সঙ্গে টিস্যুর ব্যবস্থা আছে।

একটা আরামদায়ক বালিশ আপনার ঘুমকে আরামদায়ক করে তুলবে। আপনি নাক ডেকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অত্যন্ত আরাম করে ঘুমাতে পারবেন। আবার ঘুমের মধ্যে আপনি নাক নাও ডাকতে পারেন। ডাকা না ডাকা আপনার ওপর নির্ভর করবে। তবে নাক না ডাকলে ভালো হয়। আপনার সামান্য নাক ডাকার কারণে আপনার পাশে শুয়ে থাকা ব্যক্তিটির ঘুমের বারোটা বাজিয়ে দিতে পারেন।

অনেক ব্যাচেলর আছেন- যাদের রুমে একটি সিঙ্গেল খাট, একটি টেবিল ফ্যান, একটি বইয়ের তাকের সঙ্গে থাকে একটি শখের কোল বালিশ। অনেক সময়ই রুমে থাকা সব জিনিস থেকে কোল বালিশটাকেই ব্যাচেলর সাহেবের সবচেয়ে কাছের বন্ধু মনে হয়। রাতে একাকী জীবনে কোল বালিশ তার নিত্যসঙ্গী, তার নিত্যডঙ্গী, তার প্রেমিকা। সারাদিনের মনের শত কষ্টের মাঝেও কোনো বালিশকে বুকে জড়িয়ে তার আপন মনে হয়। বন্ধু আপনজন সবাই তার সঙ্গে বেইমানি করলেও কোল বালিশ তার সঙ্গে বেইমানি করে না।

আর তাই তো বলা হয়

মাছের রাজা ইলিশ

ঘুমের রাজা বালিশ…!

পাঠক ফোরাম'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj