তারুণ্যের সেরা কয়েকটি পেশা

রবিবার, ২৬ মে ২০১৯

এ সময়ের তরুণ-তরুণীদের পছন্দের পেশা, কাজের পরিবেশ ও বাস্তবতা নিয়ে এখন তরুণরা চায় নিজেদের মেধা খাটানোর জায়গার পাশাপাশি যে কাজটি করবে সেটি যেন নিজের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারে। সহজ কথায় প্রতিদিনের কাজটিকে সে উপভোগও করতে চায়। সবেমাত্র পড়াশোনা শেষ করে যারা কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করছে, তাদের প্রতিযোগিতাটা এখন অনেক বেশি। আর এই প্রতিযোগিতায় বেশি এগিয়ে থাকে যারা নতুন আইডিয়া তৈরি করতে পারে।

ব্যাংকিং : বর্তমানে চাকরির বাজারে ভালো অবস্থানে রয়েছে ব্যাংকিং সেক্টর। সদ্য শিক্ষাজীবন শেষ করা তরুণ-তরুণীদের পছন্দের প্রথম কাতারে রয়েছে এই পেশা। কারণ এই পেশাটিকে সবাই চিন্তামুক্ত একটি পেশা হিসেবেই মনে করেন। ব্যাংকিং সেক্টরে প্রাইভেট ব্যাংকগুলো প্রবেশ করায় এই পেশায় তরুণদের সুযোগ দিনে দিনে বাড়ছে। প্রাইভেট ব্যাংকগুলোর সেবার মান সরকারি ব্যাংকের তুলনায় ভালো বলে গ্রাহকসংখ্যাও দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই চাহিদার সঙ্গে তাল মেলাতে বাড়ছে বেসরকারি ব্যাংকের নতুন শাখা। সেসঙ্গে সেবার মান উন্নত করতে প্রয়োজন পড়ছে অধিক কর্মীর। আর ভালো জনশক্তি সংগ্রহের জন্য ব্যাংকিং সেক্টরে কাজের ভালো পরিবেশের সঙ্গে রয়েছে ভালো বেতন কাঠামো। তাই এই পেশার জন্য নিজেকে গড়ে তুলতে আগ্রহী হয়ে উঠছে তরুণরা।

টেলিকম : টেলিকমিউনিকেশনে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে গ্র্যাজুয়েটসহ নেটওয়ার্কিং, ইলেকট্রিক্যাল, মেকানিক্যাল, কম্পিউটার ও টেলিকমিউনিকেশন বিষয়ে ব্যাকগ্রাউন্ড থাকতে হবে। পাশাপাশি এ সেক্টরের জন্য নিজেকে গড়তে হবে স্মার্ট ও রুচিশীলভাবে। হতে হবে দক্ষ ও প্রগতিশীল। থাকতে হবে সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা। এখানে পুঁথিগত বিদ্যা আর নিজের ব্যক্তিগত দক্ষতার সমন্বয়ে যে কেউ গড়তে পারেন নিজের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ। বেতন ও কাজের পরিবেশও ভালো।

মার্কেটিং : চ্যালেঞ্জিং অথচ সম্ভাবনাময় একটি খাত হলো সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং। এ সেক্টরে চাকরি পাওয়ার জন্য সাধারণত বিবিএ, এমবিএ কিংবা মার্কেটিং, ফিন্যান্স ও হিসাববিজ্ঞানে স্নাতক হতে হয়। যারা নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে পছন্দ করেন তাদের জন্য সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং উপযুক্ত স্থান। পণ্য বাজারজাত করতে প্রচুর সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং কর্মীর প্রয়োজন। যদিও একসময় সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং একই ডিপার্টমেন্ট ছিল কিন্তু বর্তমানে সেলস ও মার্কেটিং আলাদা আলাদা ডিপার্টমেন্ট ধরা হয়। দেশীয় কোম্পানির পাশাপাশি বিদেশি অনেক কোম্পানিও বাংলাদেশে তাদের পণ্য বাজারজাত করছে। ফলে বাড়ছে এ ক্ষেত্রে কর্মসংস্থান। তাই এসব বিভাগে প্রচুর দক্ষ লোকবল প্রয়োজন হচ্ছে।

মিডিয়ায় ক্যারিয়ার : ক্যারিয়ার হিসেবে ইলেকট্রনিক মিডিয়া অনেকের কাছেই আকর্ষণীয় ও পছন্দের কাজ। বর্তমানে অনেক তরুণ-তরণীই ধাবিত হচ্ছে বিভিন্ন গø্যামারস পেশার দিকে। এ ধরনের পেশার তালিকায় বর্তমানে যে ক্ষেত্রটি উঠে আসছে তা হলো গণমাধ্যম বা মিডিয়া। আর ছোট পর্দার মোহনীয় আকর্ষণের কারণে ইলেকট্রনিক মিডিয়া রয়েছে পছন্দের প্রথমে। এখানকার ক্যারিয়ারে খ্যাতি, সুনাম, সুপরিচিতির পাশাপাশি রয়েছে উজ্জ্বল জীবনের হাতছানি। বিশ্বব্যাপী তো বটেই, বাংলাদেশেই রয়েছে এ পেশায় ক্যারিয়ার গড়ার বিশাল ক্ষেত্র।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj