সবাই মিলে পড়ার চর্চা

বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯

পড়াশোনার সহপাঠীদের নিয়ে দলবেঁধে পড়াশোনা করা বা গ্রুপ স্টাডি একটি পরীক্ষিত ও সফল পদ্ধতি। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা একে অপরের সহায়তা নিয়ে ভালো ফলাফল করে আসছে। শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবনে আধুনিকতম রূপায়নের নাম গ্রুপ স্টাডি। গ্রুপ স্টাডির ফলে অনেক কঠিন বিষয়ও খুব সহজেই আয়ত্তে আসে। শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে বেশ সুবিধা হয় গ্রুপভিত্তিক পড়াশোনায়। এ পদ্ধতিতে অতি সহজেই নির্দিষ্ট বিষয়টি বুঝতে পারা যায়।

গ্রুপ স্টাডির মাধ্যমে অতি দুর্বল ছাত্রটিও অন্য একটি ভালো ছাত্রের সান্নিধ্যে এসে পরীক্ষায় অনেক ভালো ফল করতে পারবে। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে গ্রুপ স্টাডির গুরুত্ব অনেক বেশি। তাই ক্যাম্পাসে গ্রুপ স্টাডির চর্চাটাও বেশি এবং জনপ্রিয়। গ্রুপ স্টাডি নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘পরীক্ষার পূর্ব মুহূর্তে গ্রুপ স্টাডি খুবই কার্যকর এবং গুরুত্বপূর্ণ। একসঙ্গে বসে অনেক জটিল বিষয় নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারি। পড়াশোনাটাও বেশ সহজ হয়ে যায়।’ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতার এক শিক্ষার্থী জানান, গ্রুপ স্টাডির ফলে গোটা সেমিস্টারের নোট, শিট আর পুরো সিলেবাস নিয়ে খুব সহজেই আলোচনা করা যায়। সব শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণের সুযোগের ফলে সমস্যাগুলো সহজেই শেয়ার করতে পারি।

গ্রুপ স্টাডিতে একাধিক শিক্ষার্থী মিলে একটা নির্দিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করা হয়। ফলে একই বিষয় সম্পর্কে ভিন্ন ভিন্ন আইডিয়া পাওয়া যায়। তথ্য বা মত প্রদানের ফলে সমস্যার সৃষ্টি হলেও সবার প্রচেষ্টায় সঠিক তথ্যটি নির্ধারণ করা যায় এবং সঠিক সিদ্ধান্তটি গ্রহণ করা যায়। গ্রুপ স্টাডির ফলে অনেক শিক্ষার্থী একত্রিত হয় ফলে পারস্পারিক সম্পর্ক আরো ভালো হয় এবং নতুন নতুন বন্ধু তৈরি হয়। যাদের মুখস্থ বিদ্যা খুবই কম, তাদের ক্ষেত্রে গ্রুপ স্টাডি খুবই কার্যকর এবং গুরুত্বপূর্ণ।

দুর্বল শিক্ষার্থীরা গ্রুপ স্টাডির ফলে জটিল বিষয়গুলো ভালোভাবে বুঝতে পারে। কঠিন বিষয়টিও আলোচনার মাধ্যমে খুব সহজ হয়ে উঠে। গ্রুপ স্টাডি হয়ে উঠে ভালো যোগাযোগের মাধ্যম। সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেসবুকের নানাবিধ ব্যবহার বাড়ছে দিন দিন। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার দেয়াল টপকে কাক্সিক্ষত ফলাফল পেতে পর্যাপ্ত পড়াশোনার পাশাপাশি দরকার সার্বিক প্রস্তুতির। এ জন্য দলবেঁধে পড়াশোনা বা গ্রুপ স্টাডির প্রয়োজনীয়তা ও প্রবণতা নতুন নয় মোটেই। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে প্রযুক্তির ছোঁয়ায় গ্রুপ স্টাডির ধরণ ও ধারণায় এসেছে পরিবর্তন। গ্রুপ স্টাডির ফলে সবার মতামতের সুযোগ থাকে। তাই নানা জনের নানা মতকে গুরুত্ব দেয়ার চর্চাটাও এর মাধ্যমে হয়ে যায়। আর ভিন্ন ভিন্ন মতের আলোকে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে খুব একটা বেগ পেতে হয় না। পড়াশোনা সংক্রান্ত নানা তথ্য শেয়ার করতে পারেন ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে। এর ফলে সহজেই অনেক কিছুর খবর একসঙ্গে পেতে পারেন। প্রয়োজনে তা ডাউনলোড করেও পড়তে পারেন।

:: ক্যাম্পাস ডেস্ক

ক্যাম্পাস'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj