আমার গ্রাম-আমার শহর বিনির্মাণ : আরডিএর গবেষণা প্রতিবেদন যাচাইকরণ কর্মশালা

শনিবার, ১৮ মে ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : ‘সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ-আমার গ্রাম-আমার শহর বিনির্মাণে আরডিএ কর্তৃক প্রণীত গবেষণা প্রতিবেদন যাচাইকরণ’ কর্মশালা বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমির আইটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গত বুধবার ২ দিনব্যাপী কর্মশালার উদ্বোধন করেন আরডিএ, বগুড়ার মহাপরিচালক ও সরকারের অতিরিক্ত সচিব মো. আমিনুল ইসলাম। এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রামে আধুনিক নগর সুবিধা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার ‘আমার গ্রাম, আমার শহর’-এর যে স্বপ্ন দেখছে সেই স্বপ্নের গ্রাম বিনির্মাণে এবং সরকারের ২০২১ ও ২০৪১-এর রূপকল্পে বাংলাদেশকে ডিজিটাল দেশে রূপান্তর করার যে প্রয়াস ব্যক্ত করা হয়েছে সেখানে গ্রামগুলোতে নগর সুবিধার প্রসার বাড়ানো সম্ভব হলে বদলে যেতে পারে গ্রামীণ জনগণের জীবনচিত্র, দূর হতে পারে দরিদ্রতা, জীবনমান উন্নয়নের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ পৌঁছে যেতে পারে কাক্সিক্ষত মধ্যম আয়ের দেশে। কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বগুড়ার জেলার জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ। কর্মশালাটির মূল প্রবন্ধ আমার গ্রাম-আমার শহর যৌথভাবে উপস্থাপন করেন আরডিএর মহাপরিচালক মো. আমিনুল ইসলাম ও পরিচালক (অব.) ড. এ কে এম জাকারিয়া। কর্মশালাটিতে কনভেনরের দায়িত্ব পালন করেন পরিচালক, আরডিএ, বগুড়া ড. মো. আব্দুর রশিদ। কর্মশালাটির প্রথম দিন গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা, গ্রামীণ নিরাপদ পানি ব্যবস্থা, গ্রামীণ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, গ্রামীণ তথ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থা, গ্রামীণ বাসস্থান, স্যানিটেশন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, গ্রামীণ শিক্ষা ব্যবস্থা, গ্রামীণ স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও পরিবার পরিকল্পনা, গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর আর্থিক সেবা খাতে অন্তর্ভুক্তি এবং দ্বিতীয় দিনে গ্রামীণ সামাজিক প্রতিষ্ঠান ও নাগরিক পরিষেবা, গ্রামীণ উদ্যোক্তা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান, গ্রামীণ বাজার ব্যবস্থা, গ্রামীণ নিরাপত্তা ও বিচার ব্যবস্থা, গ্রামীণ সামাজিক নিরাপত্তা, গ্রামীণ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলা, গ্রামীণ শিশু ও নারী উন্নয়ন, গ্রামীণ মানবসম্পদ উন্নয়ন, গ্রামীণ যুব ও ক্রীড়া উন্নয়ন বিষয়ে পর্যালোচনা প্রতিবেদন ও উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। গবেষণাটি গুণবাচক পদ্ধতিতে পরিচালনা করা হয়েছে।

এ গবেষণায় তথ্য সংগ্রহের জন্য বিশ্ব উন্নয়ন সূচক অনুসারে বাংলাদেশের গ্রামীণ সমাজকে বিশ্লেষণ করার জন্য উপরোক্ত ১৭টি সেক্টরে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। গবেষণা এলাকা হিসেবে বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার চকপাথালিয়া গ্রাম থেকে বিস্তারিত তথ্যউপাত্ত সংগ্রহের উদ্দেশ্যে এফজিডি, পিআরএ, নিবিড় সাক্ষাৎকার গ্রহণ করা হয়। মাঠ পর্যায়ের সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোতে কর্মরত কর্মকর্তা ও আরডিএর অনুষদ সদস্যদের অংশগ্রহণে কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj