কাভার্ডভ্যান-সিএনজি সংঘর্ষ : হাসপাতালে যাওয়ার পথে ৫ মাসের শিশু সিহাবের মৃত্যু

শনিবার, ১৮ মে ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : রাসেল মিয়া ও তার স্ত্রী শারমিন আক্তার নারায়ণগঞ্জ পাগলা বউবাজার এলাকায় থাকেন। রাসেল একটি রুলিং মিলে চাকরি করেন। শারমিন গৃহিণী। গত ৫ মাস আগে তাদের ঘর আলো করে জন্ম নেয় সিহাব নামে ফুটফুটে একটি ছেলে সন্তান। কয়েকদিন আগে পাতলা পায়খানা হয় সিহাবের। কিছুতে না কমায় চিন্তার ভাঁজ পড়ে বাবা-মায়ের। পরে সিহাবকে নিয়ে গতকাল শুক্রবার ভোরে নারায়ণগঞ্জ থেকে রাজধানীর মহাখালী কলেরা হাসপাতালে যাওয়ার সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়েন তারা। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানীর তেজগাঁও সাত রাস্তায় ফ্লাইওভারের উপরে কাভার্ডভ্যান ও সিএনজির মুখোমুখী সংঘর্ষে নিহত হয় ৫ মাসের শিশুটি।

এ ঘটনায় আহত হয়েছে শিশুটির মা, নানিসহ ৪ জন। তারা হলেন- মা শারমিন আক্তার (২০), নানি মলি বেগম (৫০), মামা আল আমিন (২৫) ও সিএনজিচালক শাহাদাত (৩০)। তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত শিশুর মামা মো. সুমন জানান, একমাত্র শিশু সন্তান সিহাবের পাতলা পায়খানা হওয়ায় চিকিৎসার জন্য গত বৃহস্পতিবার কেরানীগঞ্জে নানির বাসায় যায় শিশুটির পরিবার। পরে গতকাল ভোরে শিশুটিকে নিয়ে সিএনজি করে মহাখালী কলেরা হাসপাতালে যাচ্ছিল শিশুটির মা, নানি ও মামা। পথিমধ্যে এ দুর্ঘটনা ঘটলে সিহাব নিহত হয় এবং ৪ জন আহত হয়।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ইন্সপেক্টর) বাচ্চু মিয়া জানান, দুর্ঘটনায় আহত শারমিন, মলি বেগম ও শাহাদাত হাসপাতালে ভর্তি আছে। আর আল আমিনকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। সিএনজিচালক শাহাদাত ও মলি বেগমের অবস্থা গুরুতর।

তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার এ এস আই হান্নান মিয়া জানান, সিএনজিটি মগবাজার ফ্লাইওভার ব্রিজ থেকে সাত রাস্তায় নামার সময় একটি কাভার্ডভ্যানের সঙ্গে মুখোমুখী সংঘর্ষ হলে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে। তবে তার চালক পালিয়ে গেছে বলে জানান তিনি।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj