ক্যাম্পাসে আড্ডা

বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০১৯

বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা আবাসিক হলে থাকে তাদের বিভাগ ও হলের বন্ধু হয়ে উঠে একমাত্র ভরসা। কারণ সবাই সাহায্যের হাত বাড়ানোর আশা শুধু বন্ধুদের কাছ থেকেই করে বন্ধু ছাড়া একটা জীবন যেন ভাবাই যায় না। বন্ধুত্বের নেই কোনো সীমারেখা। বন্ধুর তুলনা শুধু বন্ধুই।

একেবারেই হিসাব ছাড়া এক সম্পর্কের নাম বন্ধুত্ব। বন্ধুহীন জীবন কারোই কাম্য নয়। আর তা যদি হয় বিশ্ববিদ্যালয় লাইফ, তাহলে তো কথাই নেই। স্কুল ও কলেজের গন্ডি পেরিয়ে কেউ যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয় তখন পড়াশোনার পাশাপাশি বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা যেন সবার একটি দৈনন্দিন কাজে পরিণত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা আবাসিক হলে থাকে তাদের বিভাগ ও হলের বন্ধু হয়ে উঠে একমাত্র ভরসা। কারণ সবাই সাহায্যের হাত বাড়ানোর আশা শুধু বন্ধুদের কাছ থেকেই করে। দেশের একমাত্র আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ও ব্যতিক্রম নয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি আবাসিক হলের শিক্ষার্থীরা পড়াশোনার পাশাপাশি অবসর সময়ে বিভিন্ন চত্বরে আড্ডায় মেতে উঠে।

পড়াশোনার ক্লান্তি ও বন্ধুদের মাঝে জীবনের কিছু সময় শেয়ার করতেই যেন এই আড্ডা। কোনো কোনো সময় পড়াশোনার বিষয়ও বাদ পড়ে না তাদের আলোচনায়।

ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের কাছে এসব জনপ্রিয় স্থানগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল মুরাদ চত্বর, মহুয়া চত্বর, বটতলা, অমর একুশে, বিশ্ববিদ্যালয় খেলার মাঠ, টারজান্ট পয়েন্ট, মুক্ত মঞ্চসহ বিভিন্ন স্থান। বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডার সময় তাদের একেক জনের বিষয় থাকে একেক রকম। কেউ রাজনীতি, কেউ খেলাধুলা, কেউ বা আবার সমসাময়িক আলোচিত বিষয়। যদিও তাদের ভিন্ন বিষয় থাকে তারপরেও আড্ডায় থাকে অনেক শেখার বিষয়। কারণ সবাই সবার জানার উপর যুক্তি তুলে ধরে।

পড়াশোনার পাশাপাশি এমন আড্ডা প্রত্যেকের মধ্যে নিয়ে আসে সজীবতা। যা পড়াশোনার গতিকে আরো বাড়িয়ে দেয়। এমন একটি আড্ডায় প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী বলেন, পড়াশোনার খাতিরে আমরা সবাই বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এ ক্যাম্পাসে এসেছি। তারপরেও আমাদের বন্ধুদের মধ্যে রয়েছে সব বিষয়ে অনেক বেশি আন্তরিকতা, কারণ কারো বাবা মা এখানে নেই। বন্ধুরাই ক্যাম্পাস জীবনের সব ভরসা। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলে নতুন পুরনো অনেক শিক্ষার্থী।

:: ক্যাম্পাস ডেস্ক

ক্যাম্পাস'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj