ডেঙ্গু-চিকুনগুনিয়া নিয়ন্ত্রণে সচেতন হওয়ার আহ্বান

বুধবার, ১৫ মে ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোবিনুর রহমান মামুম বলেছেন, নগরের মশা নিয়ন্ত্রণ ও বাসিন্দাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের। কিন্তু সেটা করতে আমরা পরিপূর্ণভাবে তখনই সফল হবো যখন ডেঙ্গু-চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে নিজেরা সচেতন থাকব এবং অন্যকে সচেতন করব।

গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর মিরপুরের পল্লবীতে ২নং ওয়ার্ড কমিউনিটি সেন্টারে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের যৌথ সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ডিএনসিসির আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম সফিউল আজমের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ড. মো. রাসিদুজ্জামান খান, ডিএনসিসি-২ জোনের সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ড. মাহমুদা আলী, ৬, ৭, ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাশিদা বেগম ঝর্ণা প্রমুখ। মোবিনুর রহমান মামুম আরো বলেন, আমাদের সচেতনতা আনতে হবে যাতে ডেঙ্গু-চিকুনগুনিয়াসহ মহামারী রোগ প্রতিরোধ যেন নিজেরাই করতে পারি। ডেঙ্গুর হাত থেকে বাঁচতে নিজের ঘরবাড়ি পরিষ্কার রাখতে হবে। এ সময় ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের যে কোনো বিপদে জনসাধারণের পাশে থাকার আহ্বান জানান তিনি। একই সঙ্গে তিনি ভেজাল খাদ্যপণ্য খাবার যাচাই-বাছাই করে খাওয়ার আহ্বান জানান।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ড. মো. রাসিদুজ্জামান খান বলেন, ডেঙ্গুজ্বরের আগের নাম ছিল ঢাকা ফিবার। এর পরে ২০০০ সালে এর নাম পরিবর্তিত হয়ে ডেঙ্গুজ্বর হয়। সে সময় এর ভয়াবহতা প্রকট ছিল, পরে তা আস্তে আস্তে কমতে শুরু করেছে। তিনি জানান, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত ১২৮ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত করা হয়েছে।

ড. মো. রাসিদুজ্জামান বলেন, আশার খবর হলো- এডিস পুরুষ মশা যাদের দ্বারা ডেঙ্গু বংশবিস্তার করে সেই মশার শরীরে ‘ওলবাসিয়া ব্যাকটেরিয়া’ ঢুকিয়ে দেয়া হচ্ছে যাতে সে বংশবিস্তার করতে না পারে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন এ প্রজেক্ট ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে বলেও জানান তিনি।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj