আজ আমার কাঁদবারই দিন মেহের আফরোজ শাওন

বৃহস্পতিবার, ৯ মে ২০১৯

হৃদয়ের একটা অংশ ক্ষয় হয়ে গেল আজ। চলে গেলেন সুবীর নন্দী! যিনি আমার কাছে কিংবদন্তির চেয়েও বড়। সদালাপী, সদা হাস্যোজ্জ্বল, ভেতরে বাহিরে এক ভদ্র মানুষ। গানে টান দিলেই যার হাতের মুঠোয় পুরো পৃথিবী! তিনি মঞ্চে গাইছেন আর তার সবক’টা গানের প্রতিটা লাইন তার সঙ্গে সঙ্গে গাইছে দর্শক! আমার, এই আমি হয়ে ওঠার পেছনেও যে তার কণ্ঠের মায়া! ‘একটা ছিল সোনার কন্যা’ গানটা না থাকলে আমি যে কুসুম হতে পারতাম না! ‘ও আমার উড়াল পঙ্খী রে’ না থাকলে আমাকে কয়জন মনে রাখত! ‘আমার ভাঙা ঘরের ভাঙা চালা’- হুমায়ূন আহমেদ সবার আগে তাকে দিয়েই গাইয়েছেন। ‘মরিলে কান্দিস না আমার দায়’ তার কণ্ঠে প্রথম রেকর্ড করিয়েছেন। ‘যে থাকে আঁখিপল্লবে’- এ গানটিও প্রথম তিনিই গেয়েছিলেন। হুমায়ূনের নাটকে গান- তাও তো অনেক! সেই অয়োময় থেকে শুরু! ‘আমার মরণ চান্নিপসর রাইতে যেন হয়!’ কিংবা ‘আসমান ভাইঙ্গা জোছনা পড়ে’ তারপর আমার ছোট্টবেলার কাজ হুমায়ূন আহমেদের ডকুফিল্ম ‘জননী’- যেখানে তিনি গাইলেন ‘সোহাগ চাঁদবদনী ধ্বনি নাচো তো দেখি!’ ‘সবুজ সাথী’ নাটকের জন্য স্বাস্থ্যশিক্ষা বিষয়ের গান লাগবে- লিখে ফেললেন হুমায়ূন আহমেদ। গাইবে কে? সুবীর নন্দী আছেন না! ‘উড়ে যায় বকপক্ষী’ ধারাবাহিকের জন্য তার কণ্ঠে হুমায়ূনের গান- ‘হুড়মুড় করে মেঘা!’ তার আগে হুমায়ূন লিখলেন ‘হাবলঙ্গের বাজারে’। মকসুদ জামিল মিন্টুর সুরে এ গানও সুবীর নন্দীর। তিনজনের কি অসাধারণ জুটি! গান রেকর্ডিং এর সেই সুন্দর সময়গুলো! মাঝে মাঝে মনে হয় তখন যদি স্মার্টফোন নামক যন্ত্রটা থাকত কি সুন্দর মুহূর্তগুলো ক্যামেরাবন্দি করে রাখা যেত! পরক্ষণেই মনে পড়ে- ইদানীং আর গীতিকার সুরকার আর শিল্পী একসঙ্গে বসে গানের কাজ করেন না। গীতিকার গান লিখে মেইল কিংবা ভাইবার/হোয়াটসআপে পাঠিয়ে দেন সুরকারের কাছে! সুর হওয়ার পর ডেমো মিউজিক ফাইল ই-মেইলে চলে যায় শিল্পীর কাছে! মুহূর্তই তৈরি হয় না আর! হুমায়ূনের লেখা গানে মকসুদ জামিল মিন্টু হারমোনিয়ামে সুর দিচ্ছেন, পাশে বসে সুবীর নন্দী গুণগুণ করে গাইছেন আর সামনে বসে স্বয়ং হুমায়ূন আহমেদ চোখ বন্ধ করে শুনছেন! চোখের সামনে ভাসছে সেই দৃশ্য! মৃত্যুতে ইদানীং আর চোখ বেয়ে পানি পড়ে না! চোখের কোনো একটু ভিজে ওঠে শুধু! গুণী মানুষগুলোর একে একে চলে যাওয়ায় আমি অভ্যস্ত হয়ে পড়ছি হয়তো! কিন্তু চোখে জল আজ মানছেই না। মানতে হবে কেন সবসময়! আজ রমজানের প্রথম দিনে অচিন দেশে পাড়ি জমালেন প্রিয় সুবীর নন্দী! ৭ বছর আগে রমজানের প্রথম দিনেই চন্দ্রকারিগরের সেই দেশে পাড়ি জমিয়েছিলেন হুমায়ূন। আমার তো আজ কাঁদবারই দিন।

বিনোদন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj