আমাদের জন্ম একই দিনে : শ্রাবন্তী

শনিবার, ৪ মে ২০১৯

রোশনের সঙ্গে আলাপ হলো কীভাবে?

শ্রাবন্তী : দুবছর আগে থেকেই চিনতাম কমন বন্ধুদের মাধ্যমে। জানতাম ও কিক ফিটনেস জিমের মালিক। এ ছাড়া একটি বিমান সংস্থার কেবিন ক্রু সুপারভাইজার। কিন্তু কথা হয়নি তখন। তারপর একবার বাংলাদেশ থেকে ফিরছিলাম। তখন প্লেনে দেখা। তারপর থেকেই বন্ধুত্ব।

বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিলেন কবে?

শ্রাবন্তী : ও আর আমার একই বছর, একই দিনে জন্ম। আমরা সেম বার্থ ডে শেয়ার করি। এ ছাড়াও অনেক মিল আমাদের। দেখলাম ও আমার মতোই। ওর ফ্যামিলি ভীষণ ভালো। ওর মা সিঙ্গেল মাদার। ছোটবেলায় বাবা-মারা গিয়েছিলেন। আমিও ছেলেকে একাই বড় করছি। স্ট্রাগল করছি। সেটা উনি দেখেছেন। ওর দিদি, জামাইবাবুরা আমাকে খুব ভালোবাসে। সম্মান দেয়। আমার বাবা-মাকেও খুব সম্মান দিয়েছে। ফলে দুই বাড়ি থেকেই আমাদের বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল।

কলকাতায় বিয়ে না করে, কাউকে না জানিয়ে চণ্ডীগড়ে বিয়ে করলেন কেন?

শ্রাবন্তী : এখানে তো আমার অনেক শুভাকাক্সক্ষী! আগে কী হয়েছে বা আমাকে নিয়ে এখানে এত আলোচনা! আসলে আমি জ্যোতিষে বিশ্বাস করি। আমার জ্যোতিষী, যেখানে জন্ম তার কাছাকাছি বিয়ের অনুষ্ঠান করতে বলেছিলেন। আমার অমৃতসরে জন্ম। তার কাছে বিয়ে করলাম।

বাঙালি আচার অনুযায়ী কোনো অনুষ্ঠান হয়েছে?

শ্রাবন্তী : না। বিয়ে পুরো পাঞ্জাবি মতে হয়েছে।

কলকাতায় কোনো অনুষ্ঠান করবেন না?

শ্রাবন্তী : আমরা ‘আরবানা’তে একটা ফ্ল্যাট নিয়েছি। তার ইন্টিরিয়রের কাজ চলছে। সেটা শেষ হলে ওখানেই বন্ধুদের ডেকে একটা ছোট্ট অনুষ্ঠান করব ভেবেছি।

আপনার ছেলে (ঝিনুক) এই বিয়ের সিদ্ধান্তে খুশি?

শ্রাবন্তী : আমি ওর মতামত ছাড়া কোনো কাজ করি না। ও খুশি। ও চায় আমি ভালো থাকি।

রোশনের সঙ্গে কেমন সম্পর্ক ঝিনুকের?

শ্রাবন্তী : ওরা তো বেস্ট বাডি। সারা দিন মজা করছে।

বিয়েতে কী উপহার দিলেন রোশন?

শ্রাবন্তী : ওই যেমন হয়। মঙ্গলসূত্র দিয়েছে। নোয়া, সোনার গয়না ওর মা দিয়েছে।

হানিমুনে যাবেন তো?

শ্রাবন্তী : এখনই ঠিক নেই কিছু। আমি রোশনকে বলছিলাম, অনেক ছুটি হয়ে গিয়েছে। এখন কাজ শুধু।

:: মেলা ডেস্ক

মেলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj