তামিমদের জন্য দোয়া মাহফিল

মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : ক্রাইস্টচার্চে আল নূর মসজিদে গত শুক্রবার ভয়ঙ্কর হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় নিহত হয়েছেন অর্ধশত মানুষ। ঠিক ওই সময় জুমার নামাজ পড়ার জন্য এই মসজিদের সামনে উপস্থিত হয়েছিলেন তামিম-মুশফিকরা। ভাগ্য অনেক বেশি ভালো এবং আল্লাহর অশেষ রহমতের কারণে এ সন্ত্রাসী হামলার শিকার থেকে বেঁচে যান বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা।

এমন নৃশংস ও পৈশাচিক ঘটনার পর শনিবার রাতে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে ক্রিকেট দলকে। ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে নিহতদের রুহের মাগফিরাত এবং জাতীয় ক্রিকেট দল নিরাপদে ফিরে আসার শুকরিয়া স্বরূপ মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের বিসিবি অফিসে গতকাল দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

মিলাদ মাহফিলের পরই মিডিয়ার সামনে কথা বলেন বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন। সেখানে তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়- ভবিষ্যতে কোনো সফরে তামিমদের সঙ্গে বিসিবির নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে কিনা। জবাবে বিসিবি প্রধান জানিয়েছেন, প্রয়োজন হলে ক্রিকেটারদের সঙ্গে বিসিবির নিজস্ব নিরাপত্তা কর্মী পাঠানো হবে।

এ ছাড়া বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা যেহেতু মুসলিম। তাই মসজিদে যেতে হয়, নামাজ পড়তে হয় তখন তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে পাপন জানিয়েছেন, এটা আমাদের জন্য আরো একটি ইস্যু। বিদেশে সাধারণত সিকিউরিটি দেয়া হয় খেলার মাঠে এবং হোটেল থেকে মাঠে যাওয়া-আসার সময়। অন্য কোথাও ব্যবস্থা থাকে না। তবে দ্বিপক্ষীয় সিরিজের ক্ষেত্রে প্রতিপক্ষ স্বাগতিক দেশের সঙ্গে কিছু করা যায় কিনা তা আমরা দেখব। আমাদের এখান থেকে সিকিউরিটি যাবে কিনা তা নির্ভর করবে আমরা কি পাচ্ছি, তার ওপর। আগে তো বিষদ আলোচনা করতাম না। নিউজিল্যান্ডে তিন দিন ছিলাম, সেখানে কোনো পুলিশই দেখিনি। ওই দেশটাই হয়তো এমন। পুলিশ থাকলেও তারা মসজিদে পাহারা দেয়ার কথা চিন্তাই করেনি; কিন্তু নতুন ঘটনা চোখ খুলে দিয়েছে। এখন ব্যবস্থা নিতেই হবে। আমাদের যদি মনে হয় বিদেশ থেকে যা দিচ্ছে, তা যথেষ্ট নয়, তাহলে অবশ্যই আমরা ব্যবস্থা নেব। আমরা এখন যে কোনো দেশে যাওয়ার আগে নিরাপত্তা পরিকল্পনা চাইব। সেটা ঠিকমতো প্রয়োগ হচ্ছে কিনা, তা দেখতে কাউকে পাঠাব। সিকিউরিটির লোকই পাঠানো হবে, ব্যাপারটা তা নয়। কাউকে পাঠানো হবে। দেখা হবে ওরা যা বলছে, তা ঠিকমতো আছে কিনা। এরপর যদি মনে হয়, তাহলে আমরা প্রয়োজনমতো ব্যবস্থা নেব।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj