পাচারকালে ৬ রোহিঙ্গা উদ্ধার আটক ৫ দালাল

বুধবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

শাহীন শাহ, টেকনাফ (কক্সবাজার) থেকে : কক্সবাজারের টেকনাফে আবারো সাগরপথে মালয়েশিয়া পাচারকালে ৬ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করেছে বিজিবি। এ সময় পাচারকারী সন্দেহে ৫ দালালকেও আটক করা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার ভোরে টেকনাফের মহেশখালীপাড়া ও মঠপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটক দালালরা হলেন- টেকনাফের মহেশখালীপাড়ার বশির আহম্মদের ছেলে মনির (২৭), তার ভাই দালাল ও নৌকার মালিক নুরুল আবছার (৩৫), শাহপরীর দ্বীপ মিস্ত্রিপাড়ার ওলি আহমেদের ছেলে ইউনুস (৩২), শাহপরীর দ্বীপ দক্ষিণপাড়ার মৃত নজির আহমদের ছেলে আমিন (৪৯), দালাল, আশ্রয়দাতা ও নৌকার মালিক মাঠপাড়ার এখলাসের ছেলে মুহাম্মদ মুন্না (৩৫)।

বিজিবি টেকনাফ-২ ব্যাটালিয়ন ইনচার্জ লে. কর্নেল আসাদুদ জামান চৌধুরী এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দুটি মানবপাচার চক্র মঙ্গলবার ভোরে কিছু রোহিঙ্গাকে সাগরপথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া পাচার করতে টেকনাফের খুরেরমুখ অস্থায়ী চেকপোস্ট এলাকার মহেশখালীপাড়া এবং মাঠপাড়া এলাকায় জমায়েত করে। এমন খবর পেয়ে হাবিলদার তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে টহল দল মহেশখালীপাড়ায় এবং ব্যাটালিয়ন সদরের আরেকটি টহল দল মাঠপাড়া এলাকায় অভিযান চালায়। অভিযানকালে মহেশখালীপাড়া এলাকায় ১ দালাল ও ৪ রোহিঙ্গাকে সাগরপাড়ে নৌকার জন্য অপেক্ষারত পাওয়া যায়। তাদের ঘেরাও করার কিছুক্ষণ পর নৌকাটি সাগরপাড়ে এলে টহল দল সেটি জব্দ এবং নৌকার মাঝিকেও আটক করে।

অপর টহল দল মাঠপাড়া মুন্নার বাড়িতে একসঙ্গে ৩ দালালসহ ২ রোহিঙ্গা নারীকে নৌকার জন্য অপেক্ষমাণ অবস্থায় আটক করা হয়। দুই অভিযানে ৫ দালাল আটক ও অবৈধভাবে মালয়েশিয়াগামী ৬ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত রোহিঙ্গারা টেকনাফ ও উখিয়ার বিভিন্ন রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে বসবাস করছে। তারা দালালদের মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া গমন করছিল।

আটক দালালদের জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে মানবপাচার চক্রের সঙ্গে জড়িত অন্য সক্রিয় দালালদের আটক করতে অভিযান চলমান রয়েছে। আটককৃতদের বিষয়ে টেকনাফ থানায় মানবপাচার আইনে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj