ব্যর্থতার চৌহদ্দি থেকে বেরুতে পারছে না বিএনপি

শনিবার, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জেলজীবনের এক বছর পূর্ণ হয়েছে। এই এক বছরে খালেদা জিয়াবিহীন বিএনপি কেমন আছে? দেশের রাজনীতিতে তার অনুপস্থিতি কোনো শূন্যতা তৈরি করেছে কি? এটা নিয়ে বিতর্কের সুযোগ নেই যে, বেগম জিয়ার অনুপস্থিতিতে বিএনপিতে সংকট বেড়েছে। বিএনপি একক নেত্রীনির্ভর দল। খালেদা জিয়ার কথাই বিএনপিতে শেষ কথা। তিনি কারাগারে থাকায় দৈনন্দিন নির্দেশনা দিতে পারছেন না। তার অবর্তমানে দলের ভার দেয়া হয়েছে তারেক রহমানকে, যিনি নিজে দণ্ডিত এবং দেশে অনুপস্থিত। দলের নেতৃত্বের চিন্তাভাবনা একমুখী নয়। সিনিয়র নেতারা একজন আরেকজনকে বিশ্বাস করেন না। অগোছালো, বিশৃঙ্খল এবং নেতৃত্বহীন বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে চরম পরাজয় বরণ করেছে। বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপি জোরালো কোনো আন্দোলন গড়ে তুলতে যেমন ব্যর্থ হয়েছে, তেমনি নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ তুলেও তা নিয়ে রাজপথ উত্তপ্ত করতে পারেনি। বিএনপি এখন কি করবে, কোন জায়গা থেকে শুরু করবে তা বুঝে উঠতে পারছে না।

এক বছর আগে বিএনপি নিয়ে যা লিখেছিলাম তা খুব একটা ভুল ছিল না বলেই সেটা আবার পাঠকদের সামনে আনছি। বেগম জিয়া গত বছর জেলে যাওয়ার পরপরই একটি দৈনিকে লিখেছিলাম : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা হয়েছে। আদালত তাকে জেল-জরিমানা দুটিই করেছেন। তিনি এখন কারাগারে আছেন। তিনি কবে নাগাদ জামিন পাবেন, তার জেলজীবন দীর্ঘ হবে কি না, তিনি আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কি না ইত্যাদি নিয়ে নানামুখী আলাপ-আলোচনা, জল্পনা-কল্পনা চলছে। আদালত কর্তৃক খালেদা জিয়া দণ্ডিত হওয়ায় তার রাজনৈতিক জীবন এবং বিএনপির ভবিষ্যৎ রাজনীতি কোনো পরিণতির দিকে যাবে- সে আলোচনাও রাজনৈতিক মহলে আছে। রাজনৈতিক পণ্ডিতরা নানা রকম ভবিষ্যদ্বাণী করছেন। কেউ বলছেন, বিএনপি এক গভীর সংকটে পড়েছে, আবার কেউ বলছেন, খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ায় বিএনপির লাভ হয়েছে।

বিএনপির একজন শীর্ষনেতা তো বলেছেন, তাদের নেত্রীকে জেলে নেয়ায় প্রতিদিন নাকি আওয়ামী লীগের ৩০ লাখ করে ভোট কমছে। এ হিসাব কীভাবে করা হয়েছে, তা আমরা জানি না। যদি এ বক্তব্য সত্য বলে ধরে নেয়া হয়, তাহলে এক মাসের মধ্যে দেশে আওয়ামী লীগের আর কোনো ভোট থাকবে না, সব ভোট বিএনপির হয়ে যাবে। সে ক্ষেত্রে বিএনপির তো উচিত খালেদা জিয়াকে এক মাস জেলে রেখে দেয়া!

না, আমাদের মনে হয় না এটা কোনো সুপরিকল্পিত রাজনৈতিক বক্তব্য। এটা একটি মেঠো বক্তব্য এবং এ ধরনের বক্তব্য দেয়া হয় মূলত কর্মী-সমর্থকদের মনোবল চাা করার জন্য এবং রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ঘাবড়ে দেয়ার জন্য। কিন্তু এ ধরনের অন্তঃসারশূন্য বক্তব্য বাস্তবে উল্টো ফল দেয়। কর্মী-সমর্থকরা নেতাদের ফালতু কথা শুনে শুনে এক পর্যায়ে তাদের ওপর আস্থা হারিয়ে ফেলেন। আর রাজনৈতিক প্রতিপক্ষেরও বুঝতে বাকি থাকে না যে, ‘শূন্য কলসি বাজে বেশি’। খালেদা জিয়ার শাস্তি হলে এবং তাকে কারাগারে নেয়া হলে দেশে বড় ধরনের অস্থিরতা তৈরি হবে বলে যারা আশঙ্কা করেছিলেন, তারা এখন পরিস্থিতি দেখে হতাশ হয়েছেন। তারা এখন ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে বলছেন, রাজনৈতিক সংকট আরো গভীর হলো। সমঝোতার দুয়ার বন্ধ হয়ে গেল। যারা এসব বলছেন, তারা আসলে রাজনৈতিক বাস্তবতা না বুঝেই শুধু সস্তা বাহবা পাওয়ার জন্য গালভরা কথা বলছেন। খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ায় রাজনৈতিক সংকটে নতুন মাত্রা যোগ হয়নি। এতে সংকট গভীর হওয়ার কোনো কারণ আমি অন্তত দেখি না। সংকট আগে থেকেই আছে, বছরের পর বছর ধরেই তা চলে আসছে। রাজনৈতিক সমঝোতা নিয়ে যে কল্পনা কারো মধ্যে দেখা যায়, তারও কোনো বাস্তব সম্ভাবনা দেশে বিরাজ করছে না। আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির মধ্যে সংলাপ হওয়ার জন্য পরিবেশ তৈরিতে ভূমিকা রাখতে হবে বিএনপিরই। যারা আওয়ামী লীগ বা সরকারের ভূমিকাকে বড় করে দেখেন, তারা বিএনপির রাজনৈতিক ‘অপরাধ’গুলো বিবেচনায় নেন না। বঙ্গবন্ধুকে অবমূল্যায়ন, ১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা ইত্যাদি বিষয়ে বিএনপি আগের অবস্থানে থাকলে রাজনীতিতে সমঝোতার পরিবেশ তৈরি হবে না।

সরকার তথা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এটা একাধিকবার স্পষ্ট করে বলা হয়েছে যে, বিএনপির সঙ্গে কোনো আলোচনা বা সংলাপ হবে না। সরকার চাপে থাকলে বা বেকায়দায় থাকলে সাধারণত বিরোধী দলের সঙ্গে আলোচনায় বসে। কিন্তু আমাদের দেশের সরকার কোনো চাপে নেই, ক্ষমতায় থাকতে তাদের সামনে বড় রকমের কোনো চ্যালেঞ্জ নেই। কাজেই খালেদা জিয়ার যদি শাস্তি নাও হতো, তাহলেও আলোচনার সুযোগ তৈরি হতো বলে মনে হয় না।

খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার পরও পরিস্থিতি যেমন শান্ত-স্বাভাবিক থাকল, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যেভাবে প্রস্তুতি নিয়েছিল, সেভাবে তাদের শক্তি প্রয়োগ করতে না হওয়ায় সরকার নিশ্চয়ই স্বস্তি অনুভব করছে। বিএনপি এখন ধীরে ধীরে জনমত গঠন করে খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনকে জোরদার করে তুলবে বলে যারা মনে করছেন, তাদের হিসাবেও ভুল আছে। দেশে আর কোনো ইস্যুতে বড় গণআন্দোলন হওয়ার কোনো সম্ভাবনা দেখা যায় না। আন্দোলনের বারোটা বাজিয়েছে বিএনপি। সন্ত্রাসী রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে আন্দোলনের নামে বিএনপি যে সহিংসতা, জ্বালাও-পোড়াও করেছে, মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েছে, পঙ্গু বানিয়েছে, সম্পদ ধ্বংস করেছে, তাতে দেশের মানুষের মধ্যে যে আন্দোলনভীতি তৈরি হয়েছে, সেটা সহজে কাটার মতো নয়। সরকারের প্রতি কিছু কিছু কারণে মানুষের ক্ষোভ-অভিমান আছে; কিন্তু সেজন্য বিএনপির প্রতি মানুষ ঝুঁকে পড়েছে- তেমনটা মনে করারও কোনো কারণ নেই। মানুষ সরকারের সমালোচনা করছে বলেই যারা মনে করছেন বিএনপির জনসমর্থন বাড়ছে, তারা সঠিক জনমনস্তত্ত্ব বুঝতে পারছেন বলেও মনে হয় না। আওয়ামী লীগের বিকল্প বিএনপি- এ সরল হিসাব বোধহয় রাজনীতিতে আর চলবে না।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তিনি জেলে গিয়েছেন। কোনো রাজনৈতিক কারণে তাকে কারাগারে যেতে হয়নি। কাজেই তিনি জেলে গিয়েছেন বলেই তার প্রতি সহানুভূতি বাড়বে না। রাজনৈতিক কারণে জেলে গেলে সাধারণ মানুষের মনে যে সহানুভূতি তৈরি হয়, দুর্নীতির কারণে জেলে গেলে তা হওয়ার কথা নয়। বিএনপি যতই বলুক যে, সাজানো মামলায় খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়া হয়েছে, সেটা মানুষের কাছে পুরোপুরি বিশ্বাসযোগ্য হবে বলে মনে হয় না। এখন উচ্চ আদালতে আপিল করে তিনি যদি নির্দোষ বলে খালাসও পান তাহলেও অনেকের মনেই তার নেতিবাচক ভাবমূর্তিটাই প্রবল হয়ে থাকবে। (বাস্তবে উচ্চ আদালত তার শাস্তির মেয়াদ আরো বাড়িয়ে দিয়েছেন)।

খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার পর লন্ডনে বসবাসকারী তারেক রহমানকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা দিয়ে বিএনপি খুব রাজনৈতিক বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়েছে বলেও মনে হয় না। তারেক রহমান বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান হলেও তার সম্পর্কে পাবলিক পারসেপশন ভালো নয়। তা ছাড়া জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় তারও ১০ বছরের সাজা হয়েছে। এর আগেও একটি মামলায় তাকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। আইনের চোখে তিনি পলাতক। খুব তাড়াতাড়ি দেশে ফিরতে পারবেন বলে মনে হয় না। এমন একজন পতিত নক্ষত্রের ওপর দলের দায়িত্ব অর্পণ করে যারা মনে করছেন বিএনপি এখন আরো বেশি ঐক্যবদ্ধ হবে, তাদের ভুল ভাঙতে বেশি সময় লাগবে না।

খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার পর কোনো ধরনের হঠকারী কর্মসূচি না দিয়ে বিএনপি একদিকে যেমন রাজনৈতিক পরিপক্বতার পরিচয় দিয়েছে, অন্যদিকে আবার তারেক রহমানকে দলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান করে নির্বুদ্ধিতারও প্রমাণ রেখেছে। বিএনপির মতো একটি দল মোবাইল ফোনের মাধ্যমে চলবে- এটা কি হতে পারে? বিএনপির নেতৃত্ব জিয়া পরিবারের হাতছাড়া হলে দলটির দুর্বল হয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকেই সম্ভবত খালেদা জিয়ার পর তারেক রহমানকে ‘ভারপ্রাপ্ত’ করা হয়েছে। দলের ঐক্য রক্ষার জন্য এটা করা হলেও বাস্তবে এতে অনৈক্যই বাড়বে বলে কারও কারও মনে হচ্ছে। দলের সিনিয়র নেতারা এখন মেনে নিলেও তারেকের খবরদারি কতদিন তারা স্বস্তির সঙ্গে মেনে নেবেন, সে প্রশ্নও আছে।

বিএনপি আশঙ্কা করছে, সরকার বিএনপি ভাঙার নীলনকশা করেছে। বিএনপি দুর্বল হোক- সরকার সেটা চাইতেই পারে। সরকার বিএনপি ভাঙার জন্য নেপথ্যে কলকাঠি নাড়লে নাড়তেও পারে। প্রশ্ন হলো, বিএনপি সরকারের ফাঁদে পা দেবে কি না? বিএনপি যদি খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্তে অটল থাকে, তাহলে বিএনপিতে ভাঙন দেখা দেয়া অনিবার্য হতে পারে। বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ না নিলে দলটি ভয়াবহ সংকটে পড়বে। দলের নিবন্ধন বাতিল হতে পারে। কিছু নেতাকর্মী ধৈর্যচ্যুত হয়ে দলত্যাগ করতে পারেন। কিন্তু যে কোনো পরিস্থিতিতে বিএনপি যদি নির্বাচনের অনুক‚লে সিদ্ধান্ত নেয়, তাহলে রাজনীতিতে এককদম এগিয়ে থাকবে বিএনপি।

আগে বিএনপির দাবি ছিল ‘সহায়ক’ সরকারের অধীনে ছাড়া নির্বাচনে যাবে না। এখন তার সঙ্গে যুক্ত হবে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি। কিন্তু তাদের এ দুই দাবির একটিও পূরণ হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যায় না। আদালতের নির্দেশে খালেদা জামিন পেলেও সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই নেই। বিএনপির সামনে পথ খোলা দুটি- হয় গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকারকে দাবি মানতে বাধ্য করা অথবা খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারুক আর না পারুক বিএনপির নির্বাচনে অংশ নেয়া। সরকার যদি বিএনপির সম্ভাব্য বিজয় ছিনিয়েও নেয় (যে আশঙ্কা বিএনপি নেতারা অনবরত ব্যক্ত করে চলেছেন) তাহলেও সংসদে থাকার সুযোগ পাবে বিএনপি। শক্তিশালী বিরোধী দলের প্রয়োজন পূরণ করতে পারলেও বিএনপি রাজনীতিতে টিকে থাকতে পারবে। আর বিএনপি যদি সিদ্ধান্ত গ্রহণে ভুল করে, তাহলে তাদের পস্তাতে হবে।

তত্ত্বাবধারক সরকারের অধীনে ছাড়া নির্বাচনে না যাওয়ার জেদ আগেরবার বিএনপির জন্য শুভ হয়নি, এবার যদি খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচনে না যাওয়ার জেদ বিএনপি করে তাহলেও দলের জন্য ফল ভালো হবে বলে মনে হয় না। সরকার অবশ্যই চাইবে নিজেদের জন্য অনুক‚ল পরিবেশে নির্বাচনে যেতে। বিএনপি যেমন ঝুঁকিমুক্ত পরিবেশ চায়, সরকার বা আওয়ামী লীগও তো তাই চাইবে। বিএনপি যদি ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকারকে সুযোগ করে দেয়, তাহলে সে দায় তো বিএনপিরই। বিএনপি অংশ না নিলে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না বলে একটি কোরাস ধ্বনি আমরা শুনতে পাই; কিন্তু নির্বাচন ‘বিতর্কিত’ হলেও ক্ষমতার মেয়াদ পূরণে যে সমস্যা হয় না, সে অভিজ্ঞতাও আমাদের হয়েছে। বিএনপির কৌশল এবং সিদ্ধান্তের ওপর আগামী দিনের রাজনীতির অনেক কিছু নির্ভর করছে।

এক বছর আগে যে সব কথা বলেছিলাম তা থেকে পরিস্থিতি বদলায়নি। বিএনপি কৌশল এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণে দূরদর্শিতার পরিচয় দিতে পেরেছে সেটা বলা যাচ্ছে না। তবে বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে দূরে থাকেনি। নির্বাচনে অংশ নিয়ে ভালো করেছে। নির্বাচনের ফলাফল তাদের অনুক‚লে যায়নি। বিএনপি এবং তার মিত্ররা সংসদে মাত্র ৮টি আসন পেয়ে এখন সংসদে না যাওয়ার কথা বলছে। সংসদে না গেলে বিএনপি রাজনৈতিকভাবে লাভবান হবে মনে করলেও বাস্তবে তা হবে না। বিএনপিকে ঘুরে দাঁড়াতে হলে অনেক কিছুই বদলাতে হবে। মানুষের আস্থা অর্জন করতে হবে। জামায়াত এবং তারেক রহমান থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। রাজনীতিতে একটি ফ্রেশ ইমেজ নিয়ে দাঁড়াতে না পারলে বিএনপি তাদের পক্ষে মানুষের সমর্থন পাবে না। বিএনপি পুরনো ধারায় জাবর কেটে কালক্ষেপণ করবে, নাকি সাহসের সঙ্গে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়ে সামনে আগানোর চেষ্টা করবে সেটা বিএনপির ব্যাপার। অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিতে না পারাটাও বড় ধরনের রাজনৈতিক ব্যর্থতা। বাস্তবে দেখা যাচ্ছে যে, ব্যর্থতার চৌহদ্দি থেকে বেরুতে পারছে না বিএনপি।

বিভুরঞ্জন সরকার : সাংবাদিক ও কলাম লেখক।

মুক্তচিন্তা'র আরও সংবাদ
এম আর মাহবুব ও সালেক নাছির উদ্দিন

ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত

Bhorerkagoj