সুর পাল্টালেন আহমদ শফী!

রবিবার, ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

চট্টগ্রাম অফিস : নারীদের শিক্ষা নিয়ে মন্তব্যের পর সমালোচনার মুখে সুর পাল্টালেন হেফাজতে ইসলামের আমির আহমদ শফী। তার দাবি- তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন তা খণ্ডিত ও ভুলভাবে মিডিয়ায় উপস্থাপন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার রাতে আত্মপক্ষ সমর্থন করে তার পক্ষে মাসিক মুঈনুল ইসলামের নির্বাহী সম্পাদক সরোয়ার কামাল পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তিনি এ দাবি করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আহমদ শফী বলেছেন, গত ১১ জানুয়ারি দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারীর বার্ষিক মাহফিলে দেয়া আমার বক্তব্যের একটি খণ্ডাংশ বিভিন্ন মিডিয়ায় ভুলভাবে উপস্থাপন করায় জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে আমাকে নারী বিদ্বেষী ও নারী শিক্ষা বিদ্বেষী বলে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। তারা আমার বক্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা দাঁড় করাচ্ছে। আমি হাইয়াতুল উলইয়ালিল জামিয়াতিল কওমিয়ার চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আপনারা জানেন যে, হাইয়ার অধীনে হাজার হাজার নারী শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার সনদ গ্রহণ করে থাকেন। ইতোমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান দিয়েছেন। এতে করে আমাদের দেশের লাখো মাদ্রাসা ছাত্র ও ছাত্রী দাওয়ারে হাদিস পাস করে মাস্টার্সের সমমান অর্জন করছেন।

যে সম্মিলিত বোর্ডের অধীনে পরীক্ষা দিয়ে হাজার হাজার নারী রাষ্ট্র স্বীকৃত উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত বলে পরিগণিত হচ্ছে, সেই বোর্ডের প্রধান হয়ে আমি কীভাবে নারী শিক্ষার বিরোধী হলাম তা বোধগম্য নয়। আমি আবারো বলছি যে, আমি বা আমরা নারী শিক্ষার বিরুদ্ধে নই, তবে নারীর জন্য নিরাপদ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিষয়ে আমরা আগেও সতর্ক করেছি, এখনো করছি। আমরা চাই, নারীরা উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হোক, তবে সেটা অবশ্যই নিরাপদ পরিবেশে থেকে এবং ইসলামের মৌলিক বিধানকে লঙ্ঘন না করে। শিক্ষা গ্রহণ অবশ্যই জরুরি, তবে সেটা গ্রহণের জন্য আমরা আমাদের কন্যাদের অনিরাপদ পরিবেশে পাঠাতে পারি না।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj