ভোটগ্রহণ ২৭ জানুয়ারি : গাইবান্ধা-৩ আসনে পাঁচ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ

রবিবার, ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : আগামী ২৭ জানুয়ারি গাইবান্ধা-৩ (পলাশবাড়ী-সাদুল্লাপুর) আসনে সংসদ নির্বাচনের জন্য গাইবান্ধা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ৫ প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। গত শুক্রবার বিকেলে জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার মো. আবদুল মতিন প্রার্থীদের মধ্যে বরাদ্দকৃত প্রতীকের নাম ঘোষণা করেন। যেসব প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয় তারা হলেন- মহাজোট সমর্থিত আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা. মো. ইউনুস আলী সরকার নৌকা, জাতীয় পার্টির (জাপা) দিলারা খন্দকার লাঙ্গল, জাসদের এস এম খাদেমুল ইসলাম খুদি মশাল, এনপিপির মিজানুর রহমান তিতু আম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু জাফর মো. জাহিদকে সিংহ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. কায়ছারুল ইসলাম, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমানসহ জেলা প্রশাসন, জেলা নির্বাচন অফিস ও প্রার্থীর সমর্থকরা।

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল অনুুযায়ী গত ১০ ডিসেম্বর এ আসনে ৮ জন প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়। গত ১৯ ডিসেম্বর ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ড. টি আই এম ফজলে রাব্বী চৌধুরীর মৃত্যু হলে ২০ ডিসেম্বর এই আসনের নির্বাচনের সব কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়। পরে ২৩ ডিসেম্বর পুনঃতফসিল অনুযায়ী গত ২ জানুয়ারি শেষদিন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীসহ চারজন মনোনয়নপত্র জমা দেন। পরদিন ৩ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে বিভিন্ন ত্রুটি থাকায় তিনজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। এরপর ১০ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়ে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মইনুল হাসান সাদিক মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। এ ছাড়া বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সাদেকুল ইসলাম ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হানিফ দেওয়ান মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।

জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার মো. আবদুল মতিন বলেন, আগামী ২৭ জানুয়ারির নির্বাচনে এ আসনে পাঁচজন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন। আগেই তাদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া ছিল। প্রার্থীদের আপত্তি না থাকায় শুক্রবার পূর্ব নির্ধারিত প্রতীকই বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা শুরু করতে পারবেন।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj