জামালগঞ্জে এখনো শুরু হয়নি কাবিটার ৫২ প্রকল্পের কাজ

রবিবার, ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

অঞ্জন পুরকায়স্থ, জামালগঞ্জ (সুনামগঞ্জ) থেকে : হাওর এলাকায় ডুবন্ত বাঁধের মেরামত কাজ বাস্তবায়নে জামালগঞ্জ উপজেলার ৫২টি প্রকল্পের বিপরীতে ৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ওই প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ ২০১৮ সালের ১৫ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়ে ২০১৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত ১টি মাত্র বাঁধের কাজ ৪০ নং পিআইসির সভাপতি আলী আহমদ শুরু করেছেন। গত বছর একদল দৃর্বৃত্ত এই বাঁধটি ভেঙে দিলে প্রকল্প বাস্তবায়ন সভাপতি আলী আহমদ বাদী হয়ে ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। গত অর্থ বছরে এই নির্মাণ কাজে বরাদ্দ ছিল ২০ লাখ টাকা। চলতি বছরে উপজেলার ৬টি হাওরে ৫২টি প্রকল্পের বিপরীতে ৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। গত বছর ছিল ১০০টি প্রকল্পের বিপরীতে ১৭ কোটি টাকা। চলতি বছরে পাকনার হাওরে ১২টি, মিনি পাকনার ২টি, হালির হাওরে ২৫টি, শনির হাওরে ৭টি ও জোয়ার ভাঙার হাওরে ১টি ও মহালিয়া হাওরে ৫টিসহ মোট ৫২টি প্রকল্পের বিপরীতে ৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। গত বছরে বাঁধ নির্মাণ কাজ মজবুত হলেও আকস্মিক বন্যা, পাহাড়ি ঢল না আসায় বাঁধ যেমন অধিকাংশই সুরক্ষিত রয়েছে তেমনি বাম্পার ফসল ঘরে তুলেছেন চাষিরা। এবার হাওরের পানি দ্রুত চলে যাওয়ায় আগাম বন্যার আভাস পাচ্ছেন কৃষকরা। তারা অবিলম্বে ফসল রক্ষা বাঁধ ও বেড়িবাঁধের কাজ শেষ করে সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন। পাউবো সহকারী উপজেলা-কাবিটা বাস্তবায়ন মনিটরিং সদস্য সচিব নিহার রঞ্জন দাস বলেন, প্রকল্প এলাকা যাচাই-বাছাই করতে ও প্রণয়ন করে উপরে পাঠাতে বিলম্ব হয়েছে। ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত ১২টি প্রকল্প সভাপতিকে ২০ ভাগ করে অর্থ ছাড় দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে, আশাকরি ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সবগুলো সম্পন্ন হবে। হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের জামালগঞ্জ শাখার সভাপতি ইউসুফ আল আজাদ বলেন, নভেম্বর মাসেই পিআইসি যাচাই-বাছাই করে তৈরি রাখতে হয়, যাতে ১৫ ডিসেম্বর থেকে কাজ শুরু করতে পারে। কিন্তু পিআইসির তালিকা নিয়ে এখনো রদবদল হচ্ছে, কাজ এখনো শুরু হচ্ছে না। গত বছর পানি আসেনি তাই ফসল রক্ষা পেয়েছে। এ বছর পানি আগে যাচ্ছে, তাই আগে আসার সম্ভাবনাও বেশি। উপজেলা কাবিটা বাস্তবায়ন ও মনিটরিং কমিটির সভাপতি ইউএনও মো. শামীম আল ইমরান বলেন, আমরা সব পিআইসিকে ওয়ার্ক অর্ডার দিয়েছি, অর্থও ছাড় দিয়েছি। দু’একটি কাজ শুরু করেছে, পিআইসিদের মেশিন আনতে বিলম্ব হচ্ছে। আশাকরি আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সব পিআইসি কাজ শুরু করবে।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj