বাণিজ্যমেলা প্রতিদিন : সনি-র‌্যাংগসের চমক পণ্য কিনলে ডায়মন্ড ফ্রি

রবিবার, ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় সনি-র‌্যাংগসের স্টল থেকে পণ্য কিনলে উপহার হিসেবে মিলছে হীরার পণ্য। এই অফারকে কেন্দ্র করে ক্রেতা-দর্শনার্থীদের ভিড় বাড়তে শুরু করেছে সনি-র‌্যাংগসের প্যাভিলিয়নে। মানুষের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে বাড়তি চমকের। সনি-র‌্যাংগসের টেলিভিশন, ফ্রিজ-ডিপফ্রিজ, এসি, ওভেন কিনলেই মিলবে হীরার পণ্য। এসব পণ্যের মধ্যে রয়েছে হীরার নোসপিন, আংটি, কানের দুল, লকেট, নেকলেস সেট। পাশাপাশি এসব হীরার পণ্যের রয়েছে আজীবন ওয়ারেন্টি। গতকাল সনি-র‌্যাংগসের প্যাভিলিয়ন ঘুরে দেখা গেছে মানুষের ভিড়। সবার ঘুরে ঘুরে দেখছেন পছন্দের পণ্য। যদিও দর্শনার্থীদের সংখ্যাই বেশি ছিল। কারণ মেলা মাত্র শুরু হয়েছে। মূল কেনাকাটা শুরু হবে আরো কিছু দিন পরে। তবে মেলার শুরুতেই সনি-র‌্যাংগসের ডায়মন্ড ফ্রি অফার ক্রেতা-দর্শনার্থীদের মধ্যে নিঃসন্দেহে বাড়তি আগ্রহ সৃষ্টি করেছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সনি-র‌্যাংগসের অ্যাসিস্ট্যান্ট অফিসার করপোরেট, সেলস মো. মাযহারুল হাসান শান্ত ভোরের কাগজকে বলেন, ক্রেতা-দর্শনার্থীদের কথা মাথায় রেখে প্রতি বছর বাণিজ্যমেলা আমাদের ভিন্ন ধরনের পরিকল্পনা থাকে, চমক থাকে। এবারো টেলিভিশন, ফ্রিজ-ডিপফ্রিজ, এসি, ওভেন কিনলে উপহার হিসেবে পাওয়া যাচ্ছে হীরার পণ্য। যদিও ইলেকট্রনিক্স পণ্যের মধ্যে আমাদের যথেষ্ট ব্রান্ড ভ্যালু আছে। তিনি আরো বলেন, আমাদের মূল উদ্দেশ্য মানুষের মধ্যে আরো বেশি সনি-র‌্যাংগসের পণ্য ছড়িয়ে দেয়া। এবারের বাণিজ্যমেলায় আমাদের প্যাভিলিয়নে ঢুকলে একই ছাদের নিচে দেখা মিলবে সনি-র‌্যাংগসের অনেকগুলো পণ্য। আমরা মানুষকে বোঝাচ্ছি কেন আমাদের পণ্য সেরা। এদিকে গতকাল সাপ্তাহিক ছুটির দ্বিতীয় দিনেও মানুষের ভিড় ছিল লক্ষণীয়। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এই ভিড় আরো বাড়তে থাকে। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের বাণিজ্যমেলা মাঠে গতকালও ছিল উৎসব উৎসব ভাব। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে মেলায় এসেছেন ক্রেতা-দর্শনার্থীরা। স্টলে স্টলে ঘুরে অনেকে কিনতে শুরু করেছেন পছন্দের পণ্য। রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে পরিবারসহ বাণিজ্যমেলায় এসেছেন ব্যবসায়ী আসিফ শাহারিয়ার। মেলায় এসে কেমন লাগছে জানতে চাইলে তিনি জানান, অনেক ভালো লাগছে। মেলার সার্বিক পরিবেশ চমৎকার। মেলা ঘুরে দেখা গেছে, স্টলগুলোতে বিক্রি শুরু হয়েছে। তবে ঘরের আসবাবপত্র, প্লাস্টিক সামগ্রী, ফাস্টফুড ও আইসক্রিমের দোকানগুলোতে ভিড় বেশি। এবারের বাণিজ্যমেলার মূল ফটক তৈরি হয়েছে মেট্রোরেলের আদলে। মূল ফটক দিয়ে ঢুকতেই চোখে পড়বে ডিজিটাল এক্সিপেরিয়েন্স সেন্টার। এতে আছে ৪টি টাচ স্ক্রিন কম্পিউটার। এই সেন্টারে ঢুকে যে স্টল বা প্যাভিলিয়নে যেতে চান তার অবস্থান জেনে নেয়া যাবে। এ ছাড়া সরকারের ডিজিটাল উন্নয়ন মানুষের সামনে তুলে ধরতে আধুনিক এই পদ্ধতির সংযোজন।

এ ছাড়া মেলায় ফুটে উঠেছে দেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য। গতবারের মতো এবারো আছে বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন। এর সামনে সারি সারি সাজানো নৌকা। ভেতরেও এবার স্থান বেশি। বরাবরের মতোই এবারের মেলাতে ইপিবির তথ্যকেন্দ্র, বিশ্রামস্থল, রক্তদান ও প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্রও রয়েছে।

মেলা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বিশে^র ২২টি দেশের ৫২টি প্রতিষ্ঠান এবার মেলায় অংশ নিয়েছে। দেশগুলো হচ্ছে- থাইল্যান্ড, ইরান, তুরস্ক, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, নেপাল, চীন, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, পাকিস্তান, হংকং, সিঙ্গাপুর, মরিশাস, দক্ষিণ কোরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, জার্মানি, সুইজারল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও জাপান।

বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) জানিয়েছে, গত ৯ জানুয়ারি শুরু হওয়া মেলা শেষ হবে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি। মেলা চলবে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত। এবারের মেলায় স্টল ও প্যাভিলিয়নের সংখ্যা ৬০৫।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj