তারকারা যখন রাজনীতিতে

শনিবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৮

তারকা শিল্পীদের মধ্যে সক্রিয়ভাবে রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নাম হাতেগোনা। যাদের মধ্যে কবরী, সোহেল রানা, ফারুক, মনির খান, বেবী নাজনীন রাজনীতিতে সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। কিন্তু আসন্ন নির্বাচনে রাজনীতির মাঠে নাম কুড়ানো তারকারা ছাড়াও একঝাঁক নতুন মুখ দেখা যাচ্ছে। যাদের ইতোপূর্বে রাজনীতিতে তেমন আলোচিত হতে দেখা যায়নি। হঠাৎ করেই নির্বাচনের মাঠে তৎপর হয়েছেন এই তারকারা। সম্প্রতি নির্বাচনে মনোনয়ন চেয়ে অনেকেই আলোচনায় এসেছেন।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান (নায়ক ফারুক) গাজীপুর-৫, অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী ঢাকা-১৭, অভিনেত্রী শমী কায়সার ফেনী-৩, রোকেয়া প্রাচী ফেনী-৩, নায়ক শাকিল খান বাগেরহাট-৩, অভিনেত্রী জ্যোতিকা জ্যোতি ময়মনসিংহ-৩, অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল ঢাকা-১৪। কণ্ঠশিল্পী ও সংসদ সদস্য মমতাজ বেগম মানিকগঞ্জ-২, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম টাঙ্গাইল-৬ আসন থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করতে চান। এই তারকাদের মধ্যে বছরখানেক ধরে বারবার খবরের শিরোনাম হয়েছেন রোকেয়া প্রাচী। তাকে দলীয় রাজনীতিতে প্রচণ্ড ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে। জ্যোতিকা জ্যোতি তরুণদের প্রতিনিধি হয়ে মাঠ গরম করছেন কিছুদিন ধরে। আর শমী কায়সার প্রথমে এফবিসিসিআই-এর নির্বাচনে জয়লাভ করেছেন। এরপর ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয় নির্বাচন করার। শাকিল খানও আচমকা নির্বাচনের মাঠে চলে এসেছেন। তাকেও খবরের শিরোনাম হতে হয় রাজনীতিতে অংশগ্রহণের জন্য। আর ডিপজল কিছুদিন আগে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন।

তিনি একসময় মিরপুরের ওয়ার্ড কমিশনার ছিলেন। সংখ্যায় আওয়ামী লীগের চেয়ে কম হলেও বিএনপির মনোনয়ন পেতেও প্রতিযোগিতায় নেমেছেন একঝাঁক তারকা। সঙ্গীতশিল্পী মনির খান, বেবী নাজনীন, কনকচাঁপা, চিত্রনায়ক হেলাল খান বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী। দলীয় ফরম নিয়েছেন তারা। গায়ক আসিফ আকবর এক সময় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। পরে পদত্যাগ করেন অভিমানে। তিনি দলীয় মনোনয়ন ফরম নেননি। সঙ্গীতশিল্পী মনির খান বিএনপির সংস্কৃতিবিষয়ক সহসম্পাদক। ঝিনাইদহ-৩ আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী তিনি। মনির খান দীর্ঘদিন ধরে সক্রিয় আছেন বিএনপির রাজনীতিতে। আরেক সঙ্গীতশিল্পী বেবী নাজনীন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহসম্পাদক। তিনি দলীয় মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন নীলফামারী-৪ আসনের (সৈয়দপুর এবং কিশোরগঞ্জ)। সিলেট-৬ আসনে বিএনপির প্রার্থী হতে চান চিত্রনায়ক হেলাল খান। তিনি বিএনপির অঙ্গ সংগঠন জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক সংস্থার (জাসাস) সাধারণ সম্পাদক। সিরাজগঞ্জ-১ আসনে বিএনপির মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন কণ্ঠশিল্পী কনকচাঁপা। সঙ্গীতশিল্পী ন্যান্সি জাতীয়তাবাদী ধারার রাজনীতি করলেও তিনি মনোনয়ন নেননি। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। বছর কয়েক আগে তিনি ঘটা করে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। বর্তমানে তিনি প্রেসিডিয়াম সদস্য। বড় পদে থাকলেও তিনি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না। দলের হয়ে তিনি নির্বাচনে কাজ করছেন। মনোনয়ন দৌড়ে অংশ নেয়া তারকাদের বাইরে এমন অনেকেই আছেন যারা রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

:: মেলা প্রতিবেদক

মেলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj