খাসোগিকে টুকরো টুকরো করার কথা স্বীকার করল সৌদি

শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮

কাগজ ডেস্ক : সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যার পর থেকেই তুরস্ক দাবি করে আসছিল, খাসোগিকে হত্যার পর তার মরদেহ টুকরো টুকরো করে ফেলা হয়েছে। এরপর স্যুটকেসে ভরে ইস্তাবুলের সৌদি কনস্যুলেট থেকে মরদেহ সরিয়ে ফেলা হয়। শুরু থেকেই এ অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিল সৌদি। তবে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে অবশেষে তারা স্বীকার করেছে খাসোগিকে এভাবেই নির্মমভাবে খুন করা হয়েছে।

দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল সৌদ আল মোজেব বৃহস্পতিবার দেশটির রাজধানী রিয়াদে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান। সেই সঙ্গে তিনি এই হত্যাকাণ্ডে দায়ে সৌদির পাঁচ সরকারি কর্মকর্তার মৃত্যুদণ্ডের দাবি জানিয়েছেন। এ হত্যাকাণ্ডে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান জড়িত নয় বলেও দাবি করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল।

সংবাদ সম্মেলনে অ্যাটর্নি জেনারেল মোজেব বলেন, খাসোগির শরীরে ড্রাগ ইনজেকশন দেয়া হয়। এরপর তাকে টুকরো টুকরো করা হয়। এরপর টুকরো করা দেহ কনস্যুলেটের বাইরে এক এজেন্টকে হস্তান্তর করা হয়। তবে খাসোগির মরদেহ এখনো উদ্ধার করা যায়নি। সৌদি অ্যাটর্নি জেনারেলের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, জামাল খাসোগিকে হত্যায় জড়িত সন্দেহে ২১ জনকে আটক রাখা হয়েছে। আটক ২১ জনের মধ্যে ১১ জনকে আদালতের মুখোমুখি করা হয়েছে। এ ছাড়া অন্য সন্দেহভাজনদের খাসোগি হত্যায় সংশ্লিষ্টতা নিয়ে তদন্ত চলছে।

এদিকে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসওগøু খাসোগি হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে আন্তর্জাতিক তদন্ত দাবি করেছেন।

২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে ব্যক্তিগত কাগজপত্র আনার প্রয়োজনে গেলে নিখোঁজ হন সাংবাদিক খাসোগি। এ ঘটনার পর থেকে তুরস্ক দাবি করে আসছিল- সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরেই জামাল খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে।

প্রথমদিকে অস্বীকার করে নানা রকম কথা বললেও ঘটনার ১৭ দিন পর কনস্যুলেট ভবনের ভেতরে খাসোগি নিহত হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে সৌদি। তবে তারা দাবি করেন, কনস্যুলেটের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মারামারি করে নিহত হন এ সাংবাদিক। সবশেষ দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল সৌদ আল মোজেব খাসোগির মরদেহ টুকরো টুকরো করার কথা স্বীকার করলেন।

যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছায় নির্বাসিত খাসোগি ছিলেন বাদশাহ-যুবরাজসহ সৌদি রাজপরিবারের কট্টর সমালোচক।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj