মজুদ কমেছে মালয়েশিয়ার পাম অয়েলের

শুক্রবার, ১২ অক্টোবর ২০১৮

অর্থ শিল্প ডেস্ক : মালয়েশিয়ার পাম অয়েল রপ্তানি খাতে দীর্ঘদিন ধরে মন্দাভাব বজায় ছিল। এর জের ধরে চলতি বছরের আগস্টে দেশটিতে পণ্যটির সমাপনী মজুদ সাত মাসের মধ্যে সর্বোচ্চে পৌঁছে যায়। বর্তমানে দেশটি থেকে পাম অয়েল রপ্তানি আগের তুলনায় বাড়তে শুরু করেছে। এ পরিস্থিতিতে গত সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়ায় পাম অয়েলের মজুদ আগের মাসের রেকর্ড সর্বোচ্চ অবস্থান থেকে নেমে এসেছে।

পাম অয়েল উৎপাদনকারী ও রপ্তানিকারক দেশগুলোর তালিকায় মালয়েশিয়ার অবস্থান বিশে^ দ্বিতীয়। মালয়েশিয়ান পাম অয়েল বোর্ডের (এমপিওবি) প্রতিবেদনে জানানো হয়, ২০১৮ সালের আগস্টে দেশটিতে পাম অয়েলের সমাপনী মজুদ দাঁড়িয়েছে ২৪ লাখ ৯০ হাজার টনে, যা আগের মাসের তুলনায় ১২ দশমিক ৩৭ শতাংশ বেশি। ২০১৮ সালের জানুয়ারির পর এটাই দেশটিতে পাম অয়েলের সর্বোচ্চ মজুদ। এদিকে রয়টার্সের সাম্প্রতিক জরিপভিত্তিক প্রতিবেদন বলছে, গত সেপ্টেম্বর শেষে মালয়েশিয়ায় পাম অয়েলের সমাপনী মজুদ দাঁড়িয়েছে ২৪ লাখ ৭০ হাজার টনে। সে হিসেবে, এক মাসের ব্যবধানে দেশটিতে পণ্যটির মজুদ কমেছে দশমিক ৭ শতাংশ।

মূলত রপ্তানি আগের তুলনায় বাড়তে শুরু করায় মালয়েশিয়ায় পাম অয়েলের সমাপনী মজুদ রেকর্ড সর্বোচ্চ অবস্থান থেকে নেমে এসেছে বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে রয়টার্স। গত সেপ্টেম্বরে দেশটি পাম অয়েলের রপ্তানি শুল্ক আগের মাসের তুলনায় ৪ দশমিক ৫ শতাংশ কমিয়ে দিয়েছিল। এর প্রভাবে দেশটি থেকে পণ্যটির রপ্তানি কিছুটা বাড়ে। সামনে ভারতে উৎসবের মৌসুম কেন্দ্র করে পণ্যটির চাহিদা ও আমদানি বাড়বে। এ সময় পণ্যটির রপ্তানি আরো বাড়ানোর জন্য অক্টোবরে পাম অয়েলের রপ্তানি শুল্ক শূন্যে নামিয়ে এনেছে মালয়েশিয়া সরকার। ফলে আগামী দিনগুলোয় রপ্তানি আরো বেড়ে মালয়েশিয়ায় পাম অয়েলের সমাপনী মজুদ কমে আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj