রোনালদোর পর এবার রানাতুঙ্গা

শুক্রবার, ১২ অক্টোবর ২০১৮

খেলা ডেস্ক : গত কয়েক সপ্তাহজুড়ে গণমাধ্যমের আলোচনার অন্যতম মুখ্য প্রসঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে পর্তুগিজ সুপারস্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর এক আমেরিকান নারীকে ধর্ষণের বিষয়টি। রোনালদোর পর এবার যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে সাবেক শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার অর্জুনা রানাতুঙ্গার বিরুদ্ধে। তার বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনেছেন এক বিমানবালা। নিজের নাম গোপন রেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া এক স্ট্যাটাসে এই বিমানবালা অভিযোগ করেন, নব্বইয়ের দশকের শুরুতে মুম্বাইয়ের একটি অভিজাত হোটেলে রানাতুঙ্গার হাতে যৌন হয়রানির শিকার হন তিনি।

এ মাসের শুরুতে ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাস তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনেন ক্যাথরিন মায়োরগা নামের এক আমেরিকান সুন্দরী। বর্তমানে শিক্ষকতার সঙ্গে জড়িত এই নারীর দাবি, ২০০৯ সালে লাস ভেগাসের একটি নৈশক্লাবে রোনালদো তাকে ধর্ষণ করেছিলেন। জার্মান সংবাদমাধ্যম ডার স্পেইগেল বেশ গুরুত্বের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে প্রতিবেদন ছাপে। লাস ভেগাসের পুলিশও মায়োরগার অভিযোগ যাচাইয়ে ইতোমধ্যে নতুন করে তদন্ত শুরু করেছে।

এরমধ্যে উঠে আসে রোনালদোর বিরুদ্ধে আরো তিন নারীর যৌন হয়রানির অভিযোগের খবর। এমন পরিস্থিতিতে শেষ পর্যন্ত চুপ থাকতে না পেরে রোনালদোর আইনজীবী পিটার ক্রিস্টিয়ানসেন বলেন, বানোয়াট ও ভুয়া তথ্যের ওপর নির্ভর করে পর্তুগিজ তারকার বিরুদ্ধে ধর্ষণের মতো ঘৃণ্য অপরাধের অভিযোগ তোলা হয়েছে। এমনকি রোনালদো নিজেই এসব অভিযোগ তীব্রভাবে অস্বীকার করেছেন বলে জানান তিনি।

রোনালদোর আইনজীবীর এমন বিবৃতির পরেও জার্মান সংবাদ মাধ্যম ডার স্পেইগেল তাদের অবস্থান থেকে পিছু হটেনি। ধর্ষণের অভিযোগ ধামাচাপা দিতে মায়োরগার মুখ বন্ধ রাখতে তার সঙ্গে রোনালদোর গোপন চুক্তিরপত্রও প্রকাশ করে তারা।

ফুটবল ছেড়ে খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে নারীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ আনার বিষয়টি ছড়িয়ে পড়েছে ক্রিকেটেও। গতকাল শ্রীলঙ্কার বিশ^কাপজয়ী অধিনায়ক অর্জুনা রানাতুঙ্গার বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনেছেন ভারতীয় এক বিমানবালা।

রানাতুঙ্গার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া এক স্ট্যাটাসে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই নারী লেখেন, নব্বই দশকের শুরুতে মুম্বাইয়ের একটি হোটেলে ভারত ও শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটাররা অবস্থান করছিলেন। অটোগ্রাফ নেয়ার জন্য আমি সেই হোটেলে গিয়েছিলাম। সঙ্গে ছিল আমার এক ছেলেবন্ধু। সেখানে রানাতুঙ্গা প্রথমে আমাকে পানীয় দেন। পরে আমাকে নিয়ে একা হাঁটতে বের হন তিনি। আমরা হোটেলের সুইমিংপুলের কাছাকাছি ছিলাম। তখন সেখানে কোনো ভারতীয় ক্রিকেটার ছিলেন না। রানাতুঙ্গা হাঁটতে হাঁটতেই আমার কোমর জড়িয়ে ধরেন। তার হাত আমার বক্ষদেশ স্পর্শ করছিল। এরপর রানাতুঙ্গার পায়ে আঘাত করে আমি সেখান থেকে দৌড়ে পালিয়ে গিয়েছিলাম। বিষয়টি হোটেল কর্মীদের জানালেও তারা এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেননি। উল্লেখ্য, এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত অর্জুনা রানাতুঙ্গার কোনো মতামত জানা যায়নি।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj