মানব সম্পদ উন্নয়ন : ভারত-পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে

শুক্রবার, ১২ অক্টোবর ২০১৮

কাগজ প্রতিবেদক : বাংলাদেশ মানবসম্পদ উন্নয়নে ভারত ও পাকিস্তানের তুলনায় এগিয়ে আছে। তবে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে আছে শ্রীলঙ্কা, এরপর নেপাল। ইন্দোনেশিয়ার বালিতে চলমান বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ বার্ষিক সম্মেলনে প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের মানবসম্পদ সূচক বা হিউম্যান ক্যাপিটাল ইনডেক্সের রিপোর্টে এ তথ্য উঠে এসেছে। মানবসম্পদ উন্নয়নে কোন দেশ কতটা সাফল্য পাওয়ার সম্ভাবনা রাখে, তার বিচার করে বিশ্বব্যাংকের ১৫৭টি সদস্য রাষ্ট্রের ওপর জরিপ করে তালিকাটি প্রকাশ করা হয়। জরিপকালে দেশগুলোর মানুষের, স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও বেঁচে থাকার অন্য অনুষঙ্গগুলো বিবেচনা করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মানবসম্পদ সূচক সবচেয়ে পিছনে পড়ে রয়েছে আফ্রিকার দেশগুলো। কর্মক্ষেত্রে তরুণদের সম্ভাবনা তৈরিতে এশিয়ার দেশগুলো ভালো করছে। তালিকার শীর্ষে থাকা ৩টি দেশ হলো- সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান। অন্যদিকে সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় রয়েছে- আফ্রিকার দেশ শাদ, দক্ষিণ সুদান ও নাইজার। শিশুদের আরো সম্ভাবনাময় করে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে এশিয়ার দেশগুলো। সূচকের শীর্ষে রয়েছে সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও হংকং।

একটি শিশুর শিক্ষার সুযোগ, স্বাস্থ্যসেবা এবং টিকে থাকার সক্ষমতা বিচার করে ভবিষ্যতে তার উৎপাদনশীলতা এবং আয়ের সম্ভাবনা বোঝার চেষ্টা করেছে বিশ্বব্যাংক। এর ভিত্তিতেই তৈরি ‘মানবসম্পদ সূচকে’ একটি দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা দেখানো হয়েছে।

পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুমৃত্যু হার, শিশুদের স্কুলে যাওয়ার গড় সময়, শিক্ষার মান, প্রাপ্তবয়স্কদের অন্তত ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত টিকে থাকার হার এবং শিশুদের সঠিক আকারে বেড়ে ওঠার হার- এই পাঁচটি মানদণ্ড ব্যবহার করা হয়েছে সূচক তৈরির ক্ষেত্রে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একটি শিশু আদর্শ অবস্থায় শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার পূর্ণ সুযোগ পেয়ে বেড়ে উঠতে পারলে পূর্ণবয়স্ক হওয়ার পর তার উৎপাদনশীলতা যে অবস্থায় পৌঁছানোর কথা, বাংলাদেশে জন্ম হলে তার উৎপাদনশীলতা হবে তার ৪৮ শতাংশ। ভারতের ক্ষেত্রে এই হার ৪৪ শতাংশ ও পাকিস্তানে ৩৯ শতাংশ। তবে শ্রীলঙ্কা ও নেপালে এই হার যথাক্রমে ৫৮ শতাংশ ও ৪৯ শতাংশ।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, বাংলাদেশে ১০০ জনের মধ্যে ৯৭ জন শিশু ৫ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে। ভারত ও পাকিস্তান এই সংখ্যা ৯৬ জন ও ৯৩ জন। অন্যদিকে শ্রীলঙ্কার ক্ষেত্রে এই সংখ্যা ৯৯ জন। মানবসম্পদ সূচকে বাংলাদেশে নারীরা পুরুষের চেয়ে এগিয়ে আছে বলেও প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj