সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে

বৃহস্পতিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পছন্দের বিষয় পেতে খুব একটা বেগ পোহাতে হয় না বলেও অনেকেরই পছন্দ এসব উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্ত অনেক পরিবার ছেলে-মেয়েদের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করছেন। এতে খরচটা বেশি হলেও সময় লাগছে কম। চাহিদাসম্পন্ন বিষয়গুলোকেই প্রাধান্য দেয় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। ব্যবসায় প্রশাসন, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ও ফার্মেসির চাহিদাই সবচেয়ে বেশি। এ ছাড়া স্থাপত্য, কম্পিউটার বিজ্ঞান, ইংরেজি সাহিত্য ইত্যাদি বিষয়েরও চাহিদা আছে। মিডিয়া অ্যান্ড জার্নালিজমের কথাই ধরা যাক। যুগের চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে এ বিষয়টি চালু করেছে ইউল্যাব, ইউডা, ইনডিপেনডেন্ট ও স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। এ ছাড়া কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হচ্ছে ফ্যাশন ডিজাইনিং ও মাল্টিমিডিয়া। মাইক্রোবায়োলজি, বায়োকেমিস্ট অ্যান্ড টেকনোলজি, ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের চাহিদা আছে সব সময়ই। সম্প্রতি ফ্যাশন ডিজাইন, গ্রাফিকস ডিজাইন, আর্কিটেকচারেও ঝুঁকছে অনেক শিক্ষার্থী।

বছরে তিনবার ভর্তির সুযোগ আছে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে। স্প্রিং, সামার ও ফল-সাধারণত এ তিন সেমিস্টারে দেশের প্রায় সব বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ভর্তি করে। বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘স্প্রিং’-এর ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হয় ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে। এপ্রিল-মে মাসে ‘সামার’ ও আগষ্ট-সেপ্টেম্বরে শুরু হয় ‘ফল’ সেশনে ভর্তি প্রক্রিয়া। এ ছাড়া ‘উইন্টার’ ও ‘অটাম’ সেশনেও ভর্তির সুযোগ দেয় কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয়। ভর্তি ফরম বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট ও অ্যাডমিশন অফিস থেকে সংগ্রহ করা যাবে। ফরম সঠিকভাবে পূরণ করে পাসপোর্ট আকারের ছবি যুক্ত করতে হবে। সঙ্গে জমা দিতে হবে এসএসসি ও এইচএসসির সব সনদ, নম্বরপত্রের সত্যায়িত কপি, প্রশংসাপত্র ও আবেদন ফি জমার রশিদ। অনেক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় অংশ নিতে হয় না। তবে নর্থ সাউথ, ব্র্যাক, ইস্ট ওয়েস্ট, এআইইউবি, আইইউবিসহ প্রথম সারির কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। ভর্তি পরীক্ষা এবং এসএসসি ও এইচএসসির ফল এ দুটোর সমন্বয়ে মেধাতালিকা করা হয়। নামকরা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চাইলে প্রস্তুতিটা ভালো থাকতে হবে। অ্যাডভান্স লেভেল গণিত থেকে অনেক প্রশ্ন আসে। পরীক্ষায় বিশ্লেষণী সামর্থ্যও দেখা হয়। ইংরেজির জন্য ইংরেজি পত্রিকা ও বই পড়তে হবে, ভোকাবুলারি বাড়াতে হবে। স্যাটের জন্য ব্যারোনসের বইটি সহায়ক হতে পারে।

ক্যাম্পাস'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj