তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম : তিন ঘণ্টার মধ্যে গুজবের জবাব দেয়া হবে

বৃহস্পতিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

কাগজ প্রতিবেদক : জাতীয় নির্বাচনের আগে দেশে নানা ধরনের গুজব ছড়ানোর আশঙ্কা করছে সরকার। এ অপচেষ্টা রুখতে ‘গুজব শনাক্তকরণ ও নিরসন কেন্দ্র’ স্থাপন করে তিন ঘণ্টার মধ্যে সঠিক তথ্য তুলে ধরা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। গতকাল বুধবার সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ তথ্য জানান। এর আগে গত মঙ্গলবার গুজব ছড়ানো বন্ধে এই কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার উদ্যোগের কথা জানান তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনের আগে ইদানীং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুজবের কারখানা হয়ে যায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের আসক্তি থেকে একটি প্রজন্ম ওইসব গুজবকে সত্য বলে ধরে নেয়, যা আসলে সচেতনতার অভাব। আমরা তথ্য মন্ত্রণালয় ও জাতীয় গণমাধ্যম ইনিস্টিটিউট (নিমকো) থেকে লোকবল নিয়ে পিআইডিতে এই টিম করব। যেখানে একটি ফোন নম্বর দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ৭ জনের একটি টিম এই কেন্দ্রে কাজ করবে। তারা ২৪ ঘণ্টা সোশ্যাল মিডিয়া দেখতে থাকবে।

কোনো গুজব সোশ্যাল মিডিয়ায় আসার ৩ ঘণ্টার মধ্যে তা চিহ্নিত করে সব সরকারি-বেসরকারি টিভি চ্যানেল এবং এফএম রেডিও ও সংবাদমাধ্যমে তা জানিয়ে দিতে পিআইডি থেকে প্রেসনোট যাবে যে, এ সংবাদ ভিত্তিহীন, গুজব ও অসত্য। এর মাধ্যমে তথ্যভিত্তিক সত্য প্রতিষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের পরেও এই কেন্দ্র বা সেলের কাজ অব্যাহত থাকবে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে প্রতিমন্ত্রী আশস্ত করেন, এ উদ্যোগ সোশ্যাল মিডিয়ার কণ্ঠরোধ করার জন্য নয়, বরং গুজব চিহ্নিত করাই হবে এ কেন্দ্রের কাজ।

তারানা হালিম আরো বলেন, বিএনপি-জামায়াতের লন্ডনভিত্তিক প্রচারণা সেল আছে। এ ছাড়া তিনশর বেশি ফেসবুক পেজ রয়েছে জামায়াতের এবং তারা অ্যাকটিভ। নির্বাচনের আগে এই প্রবণতাটা বেড়ে যাবে। এ পেজগুলো থেকে যাতে গুজব ছড়াতে না পারে সেদিকে কড়া নজর রাখা হবে।

বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট সম্পর্কে তিনি বলেন, দক্ষিণ এশীয় ফুটবল ফেডারেশন (সাফ) চ্যাম্পিয়নশিপ বিটিভিতে সরাসরি সম্প্রচারের মধ্য দিয়ে ‘কোনো ধরনের সমস্যা ছাড়াই’ স্যাটেলাইটটির পরীক্ষামূলক বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এর ফলে স্যাটলাইট ভাড়া বাবদ বিটিভির ব্যয় কমে যাবে আশা করি। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট সেবা নিতে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা থেকে তরঙ্গ বরাদ্দ সাপেক্ষে বেসরকারি টিভিগুলোতে চিঠি দিয়েছে তথ্য মন্ত্রণালয়। আমরা চাই বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট ব্যবহার হোক এবং দেশের টাকা দেশেই থাকুক।

প্রসঙ্গত, নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় গুজব ছড়ানোর প্রেক্ষাপটে জাতীয় নির্বাচনের আগে ইন্টারনেটে ‘অপপ্রচার’ বন্ধে ‘গুজব শনাক্তকরণ ও নিরসন কেন্দ্র’ স্থাপনের উদ্যাগ নেয়া হচ্ছে।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj