পৃথক বন্দুকযুদ্ধ : নারায়ণগঞ্জে দুই ডাকাত নিহত, আহত ৩ পুলিশ

বৃহস্পতিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের বন্দর ও রূপগঞ্জ উপজেলায় পৃথক দুটি বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় সর্দার ইব্রাহিম (৪০) ও রাজা মিয়া নামে দুই ডাকাত নিহত হয়েছেন। এ সময় পুলিশের ২ কর্মকর্তা ও ১ কনস্টেবল আহত হয়েছেন। গত মঙ্গলবার ভোরে এ দুই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- বন্দর থানা পুলিশের এসআই সাইদুল ইসলাম, এএসআই ইলিয়াস খান ও কনস্টেবল হারুন। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। পুলিশ দুই ঘটনাস্থল থেকে ১টি ওয়ান শুটার গান, ৩টি তাজা ককটেল ও বেশ কয়েকটি ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে।

বন্দর থানার ওসি এ কে এম শাহিন মণ্ডল জানান, রূপগঞ্জের ডাকাত সর্দার ইব্রাহিমসহ ১৫-১৬ জনের একটি ডাকাত দল সোমবার রাত ৩টার দিকে মদনপুর-মদনগঞ্জ সড়কের ধামগড় ইস্পাহানী এলাকার মাইনুদ্দন মিয়ার পরিত্যক্ত ঝুটের গোডাউনে অবস্থান করে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। খবর পেয়ে বন্দর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযান চালায়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে থাকলে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে ডাকাত সর্দার ইব্রাহিম গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এ সময় ৩ পুলিশ সদস্য আহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৩টি তাজা ককটেল ও বেশ কয়েকটি ছোরা উদ্ধার করে। আহতদের স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়।

অপরদিকে রূপগঞ্জ থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, একই রাতে রূপগঞ্জ উপজেলার পূর্বাচল ৮ নম্বর সেক্টর এলাকায় মালামাল ভাগাভাগি নিয়ে দুদল ডাকাতের মধ্যে গোলাগুলিতে রাজা মিয়া নামে একজন গুলিবিদ্ধ হন। গুরুতর অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন। পুলিশের ধারণা, তিনি ডাকাত দলের সদস্য। তার বিস্তারিত কোনো পরিচয় পাওয়া যায়নি। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি ওয়ান শুটার গান উদ্ধার করেছে।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম জানান, দুটি ঘটনার বিষয়ে তদন্ত চলছে। ঘটনায় জড়িত ডাকাতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টাও চলছে। তিনি জানান, নিহত দুই ডাকাতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj