জামায়াত থাকলে বিএনপির সঙ্গে ঐক্যে নেই ড. কামাল

বুধবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণাকাগজ প্রতিবেদক : জামায়াতে ইসলামীকে সঙ্গে নিয়ে কোনো বৃহত্তর ঐক্যে যাবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। গতকাল মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, এ ধরনের ঐক্যে আমি যাব না। আমাদের দলও যাবে না। অন্য কোনো দল যাবে কিনা আমি জানি না। সারা জীবন যেটা আমি করিনি, শেষ জীবনে সেটা করতে যাব কেন? নিবন্ধন বাতিল হওয়ার কারণে জামায়াতে ইসলামী এখন কোনো রাজনৈতিক দলও নয় বলেই মনে করেন এই প্রবীণ রাজনীতিক।

নির্বাচনের আগে দেশের রাজনীতিতে তৃতীয় একটি ধারা তৈরির প্রক্রিয়ায় যুক্ত থাকা ড. কামাল হোসেনের দল গণফোরাম গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। জামায়াতকে রেখে বিএনপির সঙ্গে কোনো বৃহত্তর ঐক্যে তিনি যাবেন কিনা- এ প্রশ্নের জবাবে ড. কামাল এসব কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নেতা জগলুল হায়দার আফ্রিক, আওম শফিক উল্লাহ, সাইদুর রহমান, মোশতাক আহমদ, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সদস্য সচিব আবম মোস্তফা আমিন উপস্থিত ছিলেন। আওয়ামী লীগ ছেড়ে আসা ড. কামালের গণফোরাম, মাহমুদুর রহমান মান্নার নাগরিক ঐক্য, আ স ম আবদুর রবের জেএসডি, বিএনপি ছেড়ে আসা ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বিকল্পধারা রয়েছে এই জাতীয় ঐক্য গঠনের প্রক্রিয়ায়। তাদের একসঙ্গে কাজ করার ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়ে বিএনপি আশা করছে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে তাদের জাতীয় ঐক্যের প্রক্রিয়া জাতীয় রাজনৈতিক ঐক্যে রূপান্তরিত হবে। অন্যদিকে তাদের উদ্যোগকে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্ণনা করেছেন আওয়ামী লীগবিরোধীদের এক জায়গায় আসার চেষ্টা হিসেবে।

কেননা এর আগে গত ২৮ আগস্ট বিএনপির সঙ্গে এক বৈঠকে বিকল্পধারার সভাপতি ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরীও জামায়াত প্রশ্নে নিজের নেতিবাচক অবস্থানের কথা বিএনপিকে জানিয়েছেন। তিনি তখন সাফ জানিয়ে দেন, জামায়াত যেখানে থাকবে বিকল্পধারা সেখানে থাকবে না।

নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্নার অবস্থানও একই। গত ২০ জুলাই নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, জামায়াত তো নির্বাচনী প্রক্রিয়ায়ই আসতে পারবে না। যেহেতু তাদের নিবন্ধনই নেই। বাস্তব অবস্থা হচ্ছে রাজনৈতিক বা সাংগঠনিকভাবে জামায়াত এখন নেই।

বৃহত্তর ঐক্য প্রক্রিয়ায় আশাবাদী বিএনপি অবশ্য জামায়াত প্রশ্নে নিজেদের অবস্থান বারবার পরিষ্কার করেছে। দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ একাধিকবার বলেছেন, জামায়াত তাদের সঙ্গে আছে, থাকবে। একধাপ এগিয়ে তারা আওয়ামী লীগের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেছেন, ‘আমরা জামায়াতকে ছেড়ে দিলেই তারা কোলে তুলে নেবে, সেই সুযোগ আমরা দেব না।’

জামায়াত প্রশ্নে বিএনপি ও ঐক্য প্রক্রিয়ায় অংশ নেয়া দলগুলোর পরস্পরবিরোধী অবস্থান সম্ভাব্য বৃহত্তর ঐক্যে হোঁচট খেল বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj