কম খরচে ভিনদেশে উচ্চশিক্ষা

বৃহস্পতিবার, ৩০ আগস্ট ২০১৮

বাংলাদেশের অধিকাংশ শিক্ষার্থীর যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও সঠিক দিকনির্দেশনার অভাবে বিদেশে উচ্চশিক্ষার এই স্বপ্ন অধরা থেকে যায়। কমবেশি সবারই স্বপ্ন থাকে উন্নত কোনো দেশ থেকে নিজের গ্র্যাজুয়েশন বা পোস্টগ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করা। বিদেশে উচ্চশিক্ষার কথা শুনলে প্রথমেই যে প্রশ্ন মাথায় ঘুরপাক খায়, সেটি হলো কোন দেশে সাধ্যের ভেতর উচ্চশিক্ষা লাভ করা সম্ভব? তাই যে দেশগুলোতে কম খরচেই উচ্চশিক্ষা লাভ করা যায়, তা নিয়েই আজকের ফিচার-

নরওয়ে : যদিও নর্ডিক দেশগুলোতে স্বল্প খরচে উচ্চশিক্ষা লাভ করা যায়, কিন্তু এর মধ্যে নরওয়ে সবচেয়ে এগিয়ে। কারণ ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা এর বাইরের সব দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য প্রায় সব প্রোগ্রামেই এই দেশটির পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বিনামূল্যে উচ্চশিক্ষা লাভের সুযোগ দিয়ে থাকে। বিদেশের কোনো দেশে পড়াশোনা করার সময় ভাষা অনেক বড় একটি বিষয়। নরওয়ের অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ই ইংরেজিতে তাদের পাঠদান করে থাকে এবং এ দেশের মানুষও ইংরেজিতে পারদর্শী। এ ছাড়া নরওয়ের উন্নত জীবনযাত্রার মান এবং অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কারণে অনেকের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। কিন্তু নরওয়েতে থাকা খাওয়ার খরচটা একটু বেশি। জার্মানি : নরওয়ের পরেই আসে ‘ল্যান্ড অফ আইডিয়া’ নামে খ্যাত জার্মানি। এই দেশটিতে ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টের সংখ্যা ক্রমে বেড়েই চলেছে। কারণ হিসেবে ধরা হয়, বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ইউনিভার্সিটিগুলোতে স্বল্প ব্যয়ে অধ্যায়নের সুযোগ। আরো একটি কারণ হলো পর্যাপ্ত পরিমাণ স্কলারশিপের সুবিধা। জার্মান সরকার তাদের বাজেটের একটি বিরাট অংশ ব্যয় করে থাকে শিক্ষার পেছনে। তাই এখানে তুলনামূলক কম খরচে অনেক ভালো মানের শিক্ষা লাভ করা যায়।

ফ্রান্স : ফ্রান্সের একটা মজার দিক হচ্ছে এখানে স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা একই খরচে লেখাপড়া করতে পারে। এখানে পড়াশোনার খরচটা অবিশ্বাস্যভাবে কম। জরিপ অনুযায়ী ফ্রান্সে ব্যাচেলর ডিগ্রি সম্পন্ন করতে প্রতি বছর প্রায় ২০০ ইউএস ডলার, মাস্টার্সের জন্য ২৫৬ ইউএস ডলার এবং ডক্টরাল প্রোগ্রামের জন্য ৪২৫ ইউএস ডলার ব্যয় হয়। তবে প্যারিসে পড়াশোনা ও থাকা-খাওয়ার খরচ অন্যান্য শহরের তুলনায় অপেক্ষাকৃত বেশি।

পোল্যান্ড : এর পরেই যে দেশটির নাম আসে সেটি হলো পোল্যান্ড। যদি পোলিশ ভাষায় পারদর্শী হন এবং পোলিশ ভাষায় আপনার কোর্সগুলোতে এনরোল করেন, তাহলে অন্য সব পোলিশ শিক্ষার্থীর মতো আপনিও সম্পূর্ণ বিনামূল্যে অধ্যায়ন করতে পারবেন। ইংরেজিতেও আপনার ডিগ্রি অর্জনের সুযোগ আছে এই দেশটিতে। সে ক্ষেত্রে প্রতি বছরে প্রায় ২ হাজার ১৮৫ থেকে ৩ হাজার ২৮০ ইউএস ডলার ব্যয় হবে। তা ছাড়া এ দেশের সমৃদ্ধ সাহিত্য ও সংস্কৃতি আপনাকে সব সময় আকর্ষণ করবে।

মালয়েশিয়া : মালয়েশিয়া সন্দেহাতীতভাবে স্বল্প খরচে থাকা ও পড়াশোনার জন্য অন্যতম একটি জায়গা। মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুর কিউএস বেস্ট স্টুডেন্ট সিটিজ অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের জন্য সবচেয়ে সাশ্রয়ী শহরের মর্যাদা লাভ করেছে। স্বাচ্ছন্দ্যে থাকার জন্য প্রতি বছর প্রায় ২ হাজার ৮৬০ থেকে ৪ হাজার ২৯০ ইউএস ডলার খরচ হয়। আর প্রতি বছর প্রায় ৪ হাজার ৫০ মার্কিন ডলার খরচ করতে হবে টিউশন ফির জন্য।

তাইওয়ান : তাইওয়ান বিদেশে কম খরচে পড়াশোনা করার জন্য অন্যতম দেশ। দেশটিতে লিবারেল আর্টসের যে কোনো বিষয়ে পোস্টগ্র্যাজুয়েট করতে গড়ে ৩ হাজার ১৮০ থেকে ৩ হাজার ৯০০ ইউএস ডলার লাগে। তা ছাড়া জীবনযাত্রার খরচও তুলনামূলকভাবে অনেক কম। প্রতি বছর আবাসনের পেছনে গড়ে ২ হাজার ৩৩০ ইউএস ডলার ব্যয় হয় এই দেশটিতে।

:: ক্যাম্পাস ডেস্ক

ক্যাম্পাস'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj