মার্কেটিং নিয়ে পড়াশোনা

বৃহস্পতিবার, ৩০ আগস্ট ২০১৮

বর্তমানে চাকরির বাজারে মার্কেটিংয়ের চাহিদা অনেক। মার্কেটিং নিঃসন্দেহে সৃজনশীল এবং দক্ষ পরিকল্পনাকারী। নির্দেশক হিসেবে গড়ে উঠতে সহায়তা করে। বর্তমান চাহিদার সঙ্গে উপলব্ধি হিসেবে একটি সফল পরিকল্পনাকারী, বাজেট প্রণয়নকারী হিসেবে সবার মাঝে আলাদা পরিচিতি দেয়। একই সঙ্গে অনেক কাজও করা যায়। সে সঙ্গে সুন্দর পরিকল্পনা এবং মার্কেটের বর্তমান চাহিদা সম্পর্কে অবগত থাকার বিষয়গুলো যাদের আকর্ষিত করে তাদের জন্য নিঃসন্দেহে মার্কেটিং হতে পারে পড়াশোনা এবং পেশা হিসেবে সর্বোত্তম বিষয়।

ব্যাচেলর ডিগ্রি মার্কেটিংয়ে ভর্তি হওয়ার ক্ষেত্রে মার্কেটিংয়ের পৃথিবীতে পা রাখার একটি প্রাথমিক মাধ্যম হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এ ছাড়াও মার্কেটিংয়ের রয়েছে নানান কোর্স এবং অনলাইন বিভিন্ন কোর্স। এ ছাড়া আপনি যদি ম্যানেজারিয়াল খাতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান সে সে ক্ষেত্রে গধংঃবৎ’ং ওহ ইঁংরহবংং অফসরহরংঃৎধঃরড়হ (গইঅ) হতে পারে আপনার জন্য কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছানোর হাতিয়ার।

মার্কেটিংয়ে চাকরি করার ক্ষেত্রে সার্টিফিকেট মূল বিষয় নয়, তবে মার্কেটিংয়ের সার্টিফিকেট প্রমাণ করবে আপনি আপনার পেশার ক্ষেত্রে কতটুকু প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। অর্থাৎ যখন মার্কেটিংয়ে মেজর করছেন এমনকি মার্কেটিংয়ে এমবিএ করছেন তখন এই সার্টিফিকেট বোঝাচ্ছে, মার্কেটিং চাকরির জন্য নিজেকে প্রস্তুত করে তবেই এসেছেন। জেনে নিতে পারেন কেন মার্কেটিংয়ে আন্ডারগ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি নেয়ার সিদ্ধান্ত নিঃসন্দেহে ভালো; সে সঙ্গে মার্কেটিংয়ে গ্র্যাজুয়েট করার সিদ্ধান্ত সর্বোত্তম।

মার্কেটিংয়ে আন্ডারগ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি

বিজিনেস এডমিনিস্ট্রেশন বিভাগ থেকে মার্কেটিংয়ে মেজর করলে বিজিনেস ওয়ার্ল্ড সম্পর্কে ব্যবস্থাপনাগত বিষয়গুলো শেখা যায়। কীভাবে কর্মীদের সামলাতে হয়, উচ্চপদস্থদের সঙ্গে নিয়ম মেনে চলতে হয়, অধীনস্থদের কীভাবে অনুপ্রাণিত করতে হয়, কীভাবে বাজেট তৈরি করতে হয় এবং এরকম অনেক বিষয় যখন মার্কেটিংয়ে মেজর করবেন তখন শিখতে পারবেন। এ ছাড়াও মার্কেটিংয়ে মেজর করলে মার্কেটিংয়ে ছোট ছোট যে বিষয়গুলো আপনার দক্ষতা এবং উপলব্ধিকে সঠিকভাবে সংমিশ্রণ করতে পারবে সে বিষয়ে একটি সম্যক ধারণা তৈরি করবে। এ ছাড়াও নেতৃত্বদানের প্রয়োজনীয়তা এবং নিয়মকানুন সম্পর্কে করবে অবগত। মার্কেটিংয়ের প্রধান ক্ষেত্রগুলোতে যে মূল জ্ঞানগুলো প্রয়োজন সেগুলোর সঠিক দিকনির্দেশনা দিবে। তা ছাড়াও সৃজনশীল মনোভাবগুলোকে জাগ্রত করবে। এ ছাড়াও মার্কেটিংয়ের মেজর আপনাকে ভবিষ্যতে উচ্চ পারিশ্রমিকের যুগোপযোগী মাধ্যম হিসেবে গড়ে তুলবে। আরেকটি উল্লেখযোগ্য বিষয়, যখন মার্কেটিংয়ে মেজর করবেন তখন দলগতভাবে কাজ করার একটি অভ্যাস আপনার মাঝে ছাত্রজীবনে গড়ে উঠবে। মার্কেটিংয়ের অনেক কোর্সেই অনুকরণমূলক হিসেবে করপোরেট পৃথিবীর সঙ্গে পরিচিত করাবে। যেখানে নানান গ্রুপ প্রজেক্টে সবার সঙ্গে দলবদ্ধ কাজ করতে হবে। নিঃসন্দেহে এটি হবে ভবিষ্যৎ পেশার জন্য একটি ভালো প্রস্তুতি।

ভিড় ঠেলে সামনে এসে দাঁড়ান

মার্কেটিংয়ে মেজর আপনাকে মার্কেটিং বিষয়ে এমনকি মার্কেটিং জগতের নানান অজানা তথ্যগুলোর সঙ্গে পরিচিতি করাবে। একজন মার্কেটিং মেজর হিসেবে আপনার কাজ হচ্ছে নিজেকে প্রমাণ করার জন্য ভিড় ঠেলে সামনে এসে দাঁড়ানো। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া চলাকালীন ইন্টার্নশিপ এবং নানান কাজের অভিজ্ঞতা আপনার ব্যবহারিক জ্ঞানের সঙ্গে সঙ্গে সার্টিফিকেট হবে বেশি সমৃদ্ধশালী।

তাই ইন্টার্নশিপ করার জন্য খোঁজখবর নিয়ে কাজের জন্য লেগে পড়–ন। এতে বিজনেস বিষয়টিকে হাতে-কলমে শেখার অভিজ্ঞতা একই সঙ্গে মার্কেটিংয়ে নানান রকম ব্যবহারিক অভিজ্ঞতা আপনাকে ভিড় ঠেলে ঠেলে সামনে এসে দাঁড়াতে সহায়তা করবে।

ক্যাম্পাস'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj