রোনালদোর উত্তরসূরি ভিনিসিয়াস!

মঙ্গলবার, ৭ আগস্ট ২০১৮

কয়েক সপ্তাহ আগে ব্রাজিলিয়ান বিস্ময় বালক ভিনিসিয়াসকে দলে ভিড়িয়েছে বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ। ১৮ বছর বয়সী এ তারকাকে দুয়েক বছর মাদ্রিদের যুবদলে খেলার জন্যই কেনা হয়েছিল। তবে শুরু থেকেই তিনি মাদ্রিদের ট্রেনিং সেশনে দুর্দান্ত পারফরমেন্স করে যাচ্ছেন। এদিকে রোনালদোও মাদ্রিদের সঙ্গে দীর্ঘ দিনের সম্পর্ক ছিন্ন করে জুভেন্টাসে নাম লিখিয়েছেন। স্প্যানিশ ক্লাবটি রোনালদোর প্রস্থানের পর থেকেই তার বিকল্প খুঁজছে। এদিকে সিআর সেভেন যে পজিশনে খেলে থাকেন ভিনিসিয়াসও একই পজিশনে খেলেন। তাই ভাবা হচ্ছে সবকিছু বিবেচনায় ভিনিসিয়াস হতে পারেন পর্তুগিজ তারকার উত্তরসূরি। তিনিই বার্নাব্যুতে রোনালদোর জায়গাটা কভার করতে পারেন।

রিয়াল মাদ্রিদ দীর্ঘদিন ভিনিসিয়াসকে পর্যবেক্ষণ করেছে। পর্যবেক্ষণের পরে গত বছরের মে মাসে তাকে কেনার জন্য ভিনিসিয়াসের আগের ক্লাব ফ্লামেঙ্গোকে ৪৬ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাব করা হয়। তাদের প্রস্তাবে ব্রাজিলিয়ান ক্লাবটি সম্মতি জ্ঞাপন করে। তবে সে সময় তার বয়স ১৮ বছরের নিচে থাকায় বার্নাব্যুতে তার আগমনের জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে। দীর্ঘ এক বছর অপেক্ষার পর ১২ জুলাই সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে তাকে প্রদর্শন করা হয়। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মাদ্রিদ এবং ব্রাজিয়িান ফুটবল তারকা রোনাল্ডো। পেরেজের ইচ্ছা ছিল ভিনিসিয়াসকে মাদ্রিদ ভিত্তিক যুবদলে খেলাবে বা অন্য ক্লাবে ধারে খেলতে পাঠাবে। ভিনিসিয়াসও অন্য ক্লাবে ধারে খেলতে অনিচ্ছা পোষণ করেছেন। এদিকে রিয়ালের নতুন কোচ হুলেন লোপেতেগুই তার ওপর আস্থা রাখতে শুরু করেন। ফলে প্রথম থেকে ভিনিসিয়াসকে মূল দলে অনুশীলনের জন্য রাখা হয়। যেখানে ভিনিসিয়াস নিজেকে পুরোপরি একজন স্টার হিসেবে মেলে ধরতে চাইছেন। ফলও এ তারকার অনুক‚লেই! সবারই নজর কাড়তে সক্ষম হয়েছেন তিনি। তাই গুঞ্জন শুনা যাচ্ছে তিনিই হতে পারেন মাদ্রিদে রোনালদোর উত্তরসূরি। তবে এটা নিয়েও আবার অনেক মত রয়েছে। মাদ্রিদে ভিনিসিয়াসের চেয়ে বয়সে বড় তারকা মার্কো অ্যাসেন্সিও রয়েছেন। রোনালদোর জায়গাটা তিনিও পেতে পারেন। কারণ ভিনিসিয়াস নাকি এত অল্প বয়সে স্পেনের খেলোয়াড়দের সঙ্গে পেরে উঠবেন না। অনেক সময় আবার শোনা যাচ্ছে হ্যাজার্ড বা অন্য কোনো ফুটবলারকে দলে ভিড়ানো হবে। কখনো বলা হচ্ছে ট্রান্সফার মার্কেট বন্ধ করে দিয়ে এ মৌসুমে ওয়ালস স্টার বেলকেই রিয়ালের টামকার্ড হিসেবে ব্যবহার করা হবে।

ভিনিসিয়াসের উত্থানটা একটু অন্য রকম। ২০০০ সালের ১২ জুলাই তিনি ব্রাজিলের সাও গনকালো নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন। ছোটবেলা থেকে তার দরিদ্র বাবা-মা ভিনিসিয়াসকে ফ্লামেঙ্গোতে ভর্তি করাতে উঠেপড়ে লাগে। সে সময় তার মধ্যে যথেষ্ট ফুটবল প্রতিভাও ছিল। ব্রাজিলিয়ান স্বানমধন্য ক্লাবটি তাকে কিনতেও আগ্রহ দেখায়। কিন্তু বয়স মাত্র ৯ বছর হওয়াতে তাদের এক বছর পর আবার আসার জন্য বলে দেয়। এরপর ১০ বছর বয়সে তিনি ওই ক্লাবটিতে যোগ দেন। ১৩ বছর বয়সে দুর্দান্ত পারফমেন্সের কারণে তিনি ব্রাজিলের অনূর্ধ্ব-১৫ দলে ডাক পান। ২০১৫ সালে তিনি ব্রাজিলের হয়ে যুব কোপা আমেরিকা শিরোপা জিতেন। সেই টুর্নামেন্টে তিনি ৯ ম্যাচে ৬টি গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা হন। তখন থেকেই ফ্লামেঙ্গো তার ওপর আরো জোর দিতে থাকে। তারা বুঝতে পারে যে, কোনো ভবিষ্যৎ স্টারই হয়তো খুঁজে পেয়েছে। এরপর ২০১৭ সালে তিনি আরো বেশি খ্যাতি পান। সেবার ক্লাবটির হয়ে তিনি সাও পাওলো যুব কাপ জিতেন।

এ পর্যন্ত ফ্লামেঙ্গোর সিনিয়র দলের হয়ে তিনি ৭টি গোল করেছেন। তা ছাড়া ব্রাজিল অনূর্ধ্ব-১৭ দলের হয়ে ১৯ ম্যাচে ১৭টি গোল করার কৃতিত্ব দেখান।

:: নূরুজ্জামান শুভ

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj