প্রচ্ছদ : টিন থেকে ত্রিশ…

রবিবার, ৫ আগস্ট ২০১৮

** মাহাবুবা মিতু **

ফ্যাশন বৃত্তাকার হলেও বেশি স্থায়ী না। ফ্যাশন ট্রেন্ডসেটাররা একই কাট ছাট বেশিদিন অনুসরণ করে না। ফ্যাশন নিস্তাদের দখলে জায়গা করে নিয়েছে এখন সিঙ্গেল পিস! সমসময়ের ফ্যাশনে দারুণ মানানসই। পরা যায় অফিসে, ক্লাসে এমনকি ইনফরমাল পার্টিতেও। দৌঁড়ঝাঁপের জন্য আদর্শ। কেবল সাদামাটা নয়, গর্জাস আউটলুকের কুর্তি বা সিঙ্গেল কামিজ রয়েছে। এগুলো নির্দ্বিধায় যেকোনো অনুষ্ঠানে পরে যাওয়া যায়। এই কুর্তিকে আসলে মিনিমাল ফ্যাশনের সমকালীন দৃষ্টান্ত বলা যেতে পারে। একদিকে যেমন সময়োপযোগী, তেমনি টিন থেকে ত্রিশ সবাই সব পরিবেশে পরতে পারে এই জনপ্রিয় পোশাকটি।

কুর্তার ব্যবহারিক বৈচিত্র্যের কারণে তরুণীদের কাছে সিঙ্গেল কামিজ বা কুর্তার ব্যবহার বাড়ছেই। কুর্তা যে কোনো সালোয়ারের সঙ্গে মিলিয়ে পড়া সম্ভব। এতে একেক রকম সালোয়ারের ক্ষেত্রে একেক লুক আসে।

খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতকে যে ওয়েস্টকোট বা কটি পরা হতো, সেটারই আধুনিক রূপ কুর্তা আর কুর্তি। ছেলেরা পরে কুর্তা, মেয়েরা কুর্তি। ঊর্ধ্বাঙ্গের এই পোশাক পাঞ্জাব অঞ্চলে বিশেষ জনপ্রিয়তা পায়। পরে ছড়ায় বিভিন্ন অঞ্চলে। কুর্তা আর কুর্তির অনেক পরিবর্তন ঘটেছে। পাঞ্জাবি, শার্ট ও কামিজও কুর্তা-কুর্তির বৃহত্তর ব্র্যাকেটভুক্ত হয়েছে।

বডিতে ফিটিং প্যাটার্নেই বছরজুড়ে চলছে অধিকাংশ কামিজের ডিজাইন। কাটিংয়ে অনেকটা ক্ল্যাসিক জায়গাই ধরে রেখেছে। তবে ফ্যাশনে সময়টা যেহেতু বর্ষা আর গরমের মৌসুম, সেহেতু বডি কাটিংয়ে দু-চারটা নতুনত্ব তো চোখে পড়েই। তাও পূর্ব ফ্যাশনের বাইরে নয়। তেমনি কিছু ডিজাইনের মধ্যে ঢোলা, কার্ভ ¯িøভ, বেল ¯িøভ উল্লেখ্য। সেমি বোট নেক, পোর্ট্রেট, জুয়েল, স্কোয়ার, গেদার্ড নেক, সেট ইন ¯িøভ নেকের মতো প্যাটার্নেও উন্নত ডিজাইন দেশীয় কামিজে চোখে পড়ে বেশ আগে থেকেই। কুর্তায় এমব্রয়ডারি, প্রিন্টের কাজ খুব বেশি জমকালো হলে তা বেমানান। তবে বডিতে হালকা কাজ ট্রেন্ডের মধ্যেই। কুর্তায় সবচেয়ে বেশি নতুনত্ব এসেছে ড্রেসের বটমে। অনেকটা সময় দেশীয় কামিজে প্রায় একই রকম কাটিং দেখা গেছে।

কুর্তি বা লম্বা কামিজ হচ্ছে ফতুয়ার আধুনিক রূপ।

দেখতে অনেকটা পাঞ্জাবির মতো। কিন্তু লম্বায় কোমরের একটু নিচে এবং এতে কোনো পকেটের ব্যবহার থাকবে না।

এসব পোশাক বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সুতি কাপড় দিয়ে তৈরি হয় বলে গরমে বেশ আরামদায়ক। তবে ইদানিং কালের স্ট্রিট ফ্যাশনে গরমের সময়টায় সালোয়ার কামিজের পাশাপাশি শুধু একটি কামিজ বা সিঙ্গেল কুর্তা খুব চলছে। সিঙ্গেল কামিজের ডিজাইন, কাটিং, রঙসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে দেয়া হচ্ছে আধুনিকতার ছোঁয়া। ইদানিং শার্ট কলারে লেয়ারিং কটি দিয়ে তৈরি কুর্তিও বেশ ফ্যাশনে ইন।

ফ্যাশন ব্র্যান্ড অঞ্জন’স এর শীর্ষ নির্বাহী শাহীন আহম্মেদ বলেন, ‘সাধারণ শার্টের সঙ্গে শার্ট ড্রেসের তফাতটা মূলত দৈর্ঘ্য।ে শার্ট ড্রেসের দৈর্ঘ্য কখনো নামছে হাঁটুর নিচ পর্যন্ত, কখনো আবার হাঁটু ছুঁয়েছে শার্ট ড্রেস। কামিজ আর বৃত্তাকার, সামনের চেয়ে পেছনের দৈর্ঘ্য বেশি-এমন পোশাকও থাকছে। সামনে কুঁচির ব্যবহারটা নজর কাড়ে।’

এলোমেলো অথবা কুঁচকানো কুঁচি, লম্বা পোশাকগুলোতে আনছে স্মার্ট লুক। পকেটসহ ও পকেটবিহীন-দুটিই আছে। হাতায়ও বৈচিত্র্য থাকছে।

¯িøভলেস পোশাকে হাতার বর্ডারটা রঙিন কাপড়ের।

আবার বর্তমান ফ্যাশন ট্রেন্ড অনুযায়ী কামিজগুলোকে লম্বা করা হচ্ছে। এগুলো লম্বা হাতারও হয় আবার ¯িøভলেসও পাওয়া যায়। কাপড়ের ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে ভয়েল, লিলেন, ডুপিয়ান, ডবি ফেব্রিক্স। হালকা রঙের সুতি, লিলেন, খাদি আর তাঁত কাপড়ে তৈরি হচ্ছে নকশাদার ¯িøভলেস বা কম দৈর্ঘ্যরে হাতার কামিজ আর কুর্তা স্টাইলের লম্বা কামিজ।

মূলতঃ ¯িøভলেস পোশাক টিনএজার ও তরুণীদের ভালো মানায়। কুর্তা স্টাইলের লম্বা কামিজ বা সিঙ্গেল কামিজ আটপৌরে বা বাইরের ফ্যাশনের নতুন ধারা। রঙ নির্বাচনে সবকিছুর সঙ্গে ম্যাচিং করে পরা যাবে। তবে, এমব্রয়ডারির কাজ করা প্যাটার্ন বেইজডের সঙ্গে কন্ট্রাস্ট সহজ। সিঙ্গেল কামিজের ক্ষেত্রে থ্রি কোয়ার্টার বেশি মানানসই।

বেসিক এ-লাইন থেকে বেরিয়ে ডিজাইনাররা এখন এ-লাইনে আনতে সক্ষম ভিন্ন ধাঁচ। দেশীয় ডিজাইনেই চোখে পড়ে এ-লাইন ফ্লেয়ার, প্লিট, গোডেট। বটমে হ্যান্ডকারচিফ কাটিং কামিজে ভিন্নমাত্রা যোগ করেছে।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj