দাঁত ব্রাশ

শুক্রবার, ২৭ জুলাই ২০১৮

সকালে নাস্তার পর এবং রাতে খাবার পর বিশেষ করে ঘুমাতে যাওয়ার আগে দাঁত ব্রাশ করতে হবে যাতে করে দন্তক্ষয় রোধ করা যায় এবং মুখের স্বাভাবিক স্বাস্থ্য ভালো রাখা যায়। তবে দাঁত ব্রাশ করার সময় অনেকেই পর্যাপ্ত সময় ব্যয় করে না। দেরিতে ঘুম থেকে ওঠার কারণে অথবা কাজের চাপে অনেকে তাড়াহুড়া করে এক মিনিটের মধ্যে দাঁত ব্রাশ করে থাকেন। প্রকৃতপক্ষে সুন্দরভাবে সঠিক নিয়মে দাঁত ব্রাশ করার জন্য দুই থেকে তিন মিনিট সময় প্রয়োজন।

সঠিক পদ্ধতিতে দাঁত ব্রাশ না করলে মাড়ি ও দাঁতের ক্ষতি হতে পারে। অধিকাংশ সময় মাড়ি ও জিহ্বা পরিষ্কার না করার কারণে বিভিন্ন ধরনের ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে মুখের অভ্যন্তরে নানাবিধ রোগের সৃষ্টি হয়ে থাকে। তাই দাঁত ব্রাশ করার সময় মাড়ি ও জিহ্বা পরিষ্কার করা প্রয়োজন।

দাঁত ব্রাশ করার সময় অনেকেই এলোপাতাড়ি এবং জোরে জোরে দাঁত ব্রাশ করে থাকেন যা মোটেই কাম্য নয়। দাঁত ব্রাশ করার সময় টুথব্রাশের ব্রিসলকে ৪৫ ডিগ্রি করে ঘুরিয়ে ব্রাশ করা প্রয়োজন। উপরের দাঁত ব্রাশ করার সময় টুথব্রাশকে উপর থেকে নিচের দিকে টানতে হবে আর নিচের দাঁত ব্রাশ করার সময় টুথব্রাশকে নিচ থেকে উপরের দিকে টানতে হবে। এ ছাড়া দাঁতের পিছনের উপরে এবং ভিতরের দিকেও নিয়ম অনুযায়ী ব্রাশ করতে হবে। জোরে জোরে ব্রাশ করার কারণে ডেন্টিন বের হয়ে আসে এবং মাড়ির অবস্থা নাজুক করে ফেলে। অনেকেই দীর্ঘদিন একই ব্রাশ ব্যবহার করে থাকেন যা মোটেই উচিত নয়।

টুথব্রাশের ব্রিসলের মধ্যে ব্যাকটেরিয়া বংশবৃদ্ধি করে থাকে। দাঁত ব্রাশ করার পর টুথব্রাশ ভালোভাবে পরিষ্কার করে শুকিয়ে রাখা খুবই ভালো। প্রতি দুই মাস পর পর টুথব্রাশ পরিবর্তন করা উচিত। তবে যাদের মুখে মারাত্মক ধরনের আলসার বা সংক্রামক ব্যাধি রয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে এক মাস পর পর টুথব্রাশ পরিবর্তন করা প্রয়োজন।

বেকিং সোডাযুক্ত টুথপেস্ট ব্যবহারে দাঁতের দাগ দূর হয়। তবে বেকিং সোডা মাড়ি ও মিউকাস মেমব্রেনের ক্ষতি করে থাকে। তাই এ জাতীয় টুথপেস্ট ব্যবহার না করাই ভালো। টুথব্রাশ করার পরে অনেকেই ভালোভাবে কুলি করেন না। ফলে দাঁত ব্রাশ করার পর মুখের ব্যাকটেরিয়া মুখেই থেকে যায়। তাই দাঁত ব্রাশ করার পর তাড়াহুড়া না করে ভালোভাবে কুলি করতে হবে।

আনমনাভাবে দাঁত ব্রাশ করার সময় টুথব্রাশের খোঁচায় মুখের অভ্যন্তরে মাড়িতে অথবা অন্য কোনো নরম স্থানে আলসার বা ঘা দেখা যেতে পারে। তাই টুথব্রাশ করার সময় মনোযোগী হতে হবে। এসএলএস যুক্ত টুথপেস্ট ব্যবহার করলে এসএলএসের পরিমাণ বেশি থাকলে মুখে বারবার আলসার হতে থাকবে। তাই এসএলএস মুক্ত টুথপেস্ট ব্যবহার করতে হবে। দাঁত শির শির করার ক্ষেত্রে সব ধরনের বিজ্ঞাপনসমৃদ্ধ টুথপেস্ট ব্যবহার না করাই ভালো। এতে সাময়িক আরাম পেলেও ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে যদি দীর্ঘমেয়াদে ব্যবহার করা হয়।

ডা. মো. ফারুক হোসেন

মুখ ও দন্তরোগ বিশেষজ্ঞ

ইমপ্রেস ওরাল কেয়ার

ইব্রাহিমপুর, ঢাকা

পরামর্শ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj