সমর্থকরা হতাশ : হ্যারি কেনদের সমালোচনায় মুখর

শুক্রবার, ১৩ জুলাই ২০১৮

খেলা ডেস্ক : দৃঢ় আত্মবিশ্বাস আর উদীয়মান তারকায় ভরপুর ইংল্যান্ড ফুটবল দল শেষ পর্যন্ত শিরোপা জয়ের দৌড়ে টিকে থাকতে পারল না। রাশিয়ার লুজনিয়াকি ফুটবল স্টেডিয়ামে ফিফা বিশ্বকাপের ২১তম আসরের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচে দারুণ ছন্দে থাকা ক্রোয়েশিয়া ফুটবল দলের বিপক্ষে ২-১ গোলে হেরে বিদায় নিয়েছে ইংলিশরা। আর এরপরই হ্যারি কেনদের সমালোচনা শুরু করে দিয়েছে ইংল্যান্ডের গণমাধ্যমসমূহ। গ্রুপ পর্বের পর হ্যারি কেনের ফর্মহীনতা, অভিজ্ঞ মিডফিল্ডারের অভাবসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ইংলিশ তারকাদের সমালোচনা করছে দেশটির জনগণ এবং গণমাধ্যমগুলো।

বাংলায় সুসময়ের বন্ধু বলে একটি প্রবাদ আছে। ইংলিশ মিডিয়াগুলোকে ঠিক তাই বলা যেতে পারে। গ্রুপ পর্ব থেকে শুরু করে কোয়ার্টার ফাইনালের জয় পর্যন্ত হ্যারি কেনদের কি সুনামই না করল ইংল্যান্ডের গণমাধ্যমগুলো! কিন্তু যেই না সেমিফাইনালে লুকা মড্রিচের ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিল তারপর থেকে সমালোচনা শুরু। গ্রুপ পর্বে দুুটি ম্যাচ জিতে গ্রুপ রানারআপ হয়েছিল ইংল্যান্ড ফুটবল দল। এরপর দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলায় দক্ষিণ আমেরিকান দল কলম্বিয়ার বিপেক্ষে টাইব্রেকারে ফিফা বিশ্বকাপের ইতিহাসে নিজেদের প্রথম জয় পায় থ্রি লায়ন্সরা। এই ম্যাচটি ইংল্যান্ডের পরবর্তী প্রজন্মের ফুটবলারদের জন্য অনুপ্রেরণা বলে প্রশংসা করেন দেশটির জনগণ। কোয়ার্টার ফাইনালে সুইডেনকে ২-০ গোলে হারালে প্রশংসায় ভাসতে থাকেন হ্যারি কেন-লিনগার্দরা। ইংল্যান্ডের এই দলটিকে সময়ের অন্যতম সেরা দল হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। কিন্তু দুদিন পরই দেখা গেল ভিন্ন প্রতিক্রিয়া। রাশিয়া বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচে ফুটবল বিশ্বের নতুন শক্তি ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামে ১৯৬৬ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ক্রোয়েশিয়ানরা এর আগে ১৯৯০ সালে মাত্র একবারই সেমিফাইনালে উঠতে সক্ষম হয়েছিল। তাই ইংল্যান্ডকে তো ফাইনালেই দেখছিল সমর্থকরা। কিন্তু ম্যাচে ঘটল ভিন্ন ঘটনা। ম্যাচের প্রথমদিকে দারুণ ছন্দেই খেলছিল গ্যারেথ সাউদগেটের শিষ্যরা। প্রথমার্ধের পঞ্চম মিনিটে কাইরন ট্রিপারের ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেয়া দুর্দান্ত এক শটে গোল হলে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় শিরোপা প্রত্যাশিরা। কিন্তু ম্যাচের ৬৮ মিনিটে প্যারিসিকের করা গোলে সমতায় ফেরে ক্রোয়েশিয়া। নির্ধারিত সময়ে ফলাফল সমতায় থাকলে ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। ম্যাচের ১১০ মিনিটে ক্রোয়েশিয়ান ফরোয়ার্ড মানজুকিচ গোল করলে ২-১ ব্যবধানে জয় নিশ্চিত হয় জøাতকো দালিচের শিষ্যদের। হারের ফলে শিরোপা মিশন শেষ হয় হ্যারি কেন বাহিনীর। আর তারপরই শুরু সমালোচনা। সবচেয়ে বেশি সমালোচিত হন দলীয় অধিনায়ক হ্যারি কেন। বিশ্বকাপের প্রথম দিকে যেভাবে খেলছিলেন পরের ম্যাচগুলোতে নিজেকে সেভাবে তুলে ধরতে পারেননি এ টটেনহ্যাম ফরোয়ার্ড। ইংল্যান্ডের মিডফিল্ডের ফুটবলাররাও সমালোচিত হয়েছেন। পুরো ম্যাচে তারা ছিলেন নিষ্প্রভ। ম্যাচে প্রথমে এগিয়ে থাকার পর রক্ষণাত্মক ফুটবল খেলা দরকার ছিল বলেও অনেকে অভিযোগ করেছেন।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj