অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের মধ্যেই চলছে প্রচারণা

শুক্রবার, ১৩ জুলাই ২০১৮

এম. মিরাজ হোসাইন, বরিশাল : অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের মধ্যে চলছে বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচারণা। প্রচারণার তৃতীয় দিনে গতকাল বৃহস্পতিবার সরকারি দলের মেয়র প্রার্থী সাদিক আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছেন বিএনপির মেয়রপ্রার্থী এডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার। অন্যদিকে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন চেয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাদিক আবদুল্লাহ। শান্তিপূর্ণ ভোট নিশ্চিত করতে ভিজিল্যান্স টিম গঠন করেছে প্রশাসন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে নগরীর নাজিরের পোল থেকে গণসংযোগ শুরু করেন বিএনপির মেয়রপ্রার্থী এডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার। এরপর তিনি স্ব-রোড, বাকলা, বাজার রোড, চকেরপোল, লাইন রোড, কাঠপট্টি হয়ে সদর রোডে গণসংযোগ এবং লিফলেট বিতরণ করেন। পরে তিনি দলীয় কার্যালয়ে মহানগর বিএনপির প্রতিটি ওয়ার্ড নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এ সময় বিএনপির বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী ধানের শীষের পক্ষে ¯েøাগান দেন। গণসংযোগকালে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরী এবং জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চান, উত্তর জেলা বিএনপির সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, মহানগর যুবদলের সভাপতি আক্তারুজ্জামান শামীম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। নৌকার পক্ষে গণজোয়ার দেখে অন্য প্রার্থীরা দিশেহারা- আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাদিক আবদুল্লাহর এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপির প্রার্থী সরোয়ার বলেন, বরিশাল বিএনপির ঘাঁটি। এখানকার জনতার ঢেউ বিএনপির পক্ষে। সেটা রাস্তায় বের হলেই দেখা যায়। তিনি আওয়ামী লীগ সরকারকে উদ্দেশ করে বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন দিন।

প্রচারণায় সমান সুযোগ দেয়া হচ্ছে না অভিযোগ করে সরোয়ার বলেন, কেউ মিছিল করবে, লিফলেট বিতরণ করবে, পাড়া-মহল্লায় অফিস করবে, আর বিএনপিকে মিছিলে বাধা দেবে, নেতাকর্মীদের হুমকি-ধমকি দেবে- এটা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নয়। তিনি বৈষম্যমূলক আচরণ বন্ধ করে প্রশাসনকে নিরপেক্ষ হওয়ার আহ্বান জানান।

এদিকে বেলা ১১টায় নগরীর সদর রোডে গণসংযোগ করেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাদিক আবদুল্লাহ। পরে তিনি নগরীর কাউনিয়া বিসিক এলাকায় গণসংযোগ এবং লিফলেট বিতরণ করেন। গণসংযোগকালে বিএনপির মেয়রপ্রার্থীর অভিযোগের জবাবে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত বরিশালে কোথাও কোনো অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটেনি। সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে সব দলের প্রচার-প্রচারণা চলছে। আওয়ামী লীগ সুষ্ঠু নির্বাচন চায় দাবি করে তিনি বলেন, নৌকা প্রতীককে ঘিরে জনগণের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা যাচ্ছে।

সাদিক আবদুল্লাহ গতকাল দিনের বেশি সময় প্রচারণায় ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন নগরীর বর্ধিত এলাকাগুলোতে। তিনি এই এলাকার সর্বাধিক নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে বিদ্যুৎ, জলাবদ্ধতা নিরসন, রাস্তাঘাট নির্মাণসহ অবহেলিত জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন করার প্রতিশ্রæতি দেন।

এদিকে সকাল ১০টা থেকে নগরীর কালুখান সড়ক, বাংলাবাজার ও পুলিশ লাইন রোড এলাকায় গণসংযোগ করেন বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়রপ্রার্থী প্রিন্সিপাল হাফেজ মাওলানা ওবায়দুর রহমান মাহবুব। এ ছাড়াও বিকেল ৫টায় গড়িয়ার পাড় ও সন্ধ্রা ৬টায় নথুল্লাবাদ বাসস্ট্যান্ডে তিনি পথসভা করেন। জোহরের নামাজের পর প্রার্থী তার নির্বাচন পরিচালনা কমিটি নিয়ে বিশেষ এক বৈঠকে বসেন।

অপরদিকে কমিউনিস্ট পার্টির প্রার্থী এডভোকেট এ কে আজাদ ভাটিখানা, আদালতপাড়া, গণপূর্ত বিভাগ, শিক্ষা অফিস এবং এলজিইডি অফিসে কাস্তে মার্কার পক্ষে এবং বাসদের ডা. মনীষা চক্রবর্তী চকবাজার, লাইন রোড এবং পদ্মাবতী এলাকায় মই মার্কার পক্ষে গণসংযোগ করেন।

আওয়ামী লীগ প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন : সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার মেয়রপ্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়েছে। ১৪ সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে রয়েছেন- বঙ্গবন্ধু পরিষদের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মাহবুব উদ্দিন আহম্মেদ বীরবিক্রম, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু, এডভোকেট আফজালুল করীম, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এ কে এম জাহাঙ্গীর হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট মুনসুর আহম্মেদ, আইনজীবী সমিতির সভাপতি ওবায়েদুল্লাহ সাজু, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তারিক বিন ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও পৌর মেয়র মো. হারিছুর রহমান। এ ছাড়া ছয় সদস্যের দপ্তর উপকমিটির প্রধান হলেন- জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এডভোকেট মুনসুর আহম্মেদ, প্রচার উপকমিটির প্রধান সদর উপজেলার চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু, গণমাধ্যম উপকমিটির প্রধান আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য গোলাম রাব্বানী চিনু। এ ছাড়া দলের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার দায়িত্ব পেয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল। আওয়ামী লীগের সদর রোডস্থ সোহেল চত্বরের দলীয় কার্যালয়কে প্রধান নির্বাচনী কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার ছাড়াও প্রধান কার্যালয়ের আরো তিনটি শাখা প্রচার ক্যাম্প স্থাপন করা হবে জানিয়েছেন গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল।

বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন : সিটি নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ারের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়েছে। মহানগর বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন এবং ৩০ ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির প্রধান হয়েছেন- মজিবর রহমান সরোয়ার এবং সদস্য সচিব করা হয়েছে দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চানকে। এ ছাড়া নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস আক্তার জাহান শিরিন, জেলা উত্তর বিএনপির সভাপতি মেজবাহউদ্দিন ফরহাদ, সাবেক সাংসদ আবুল হোসেন খান, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি মনিরুজ্জামান ফারুক ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিকদার। সদর রোডের অশি^নী কুমার টাউন হল সংলগ্ন বিএনপির কার্যালয়কে প্রধান নির্বাচনী কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করা হবে। এ ছাড়া নির্বাচনী আচরণবিধি অনুযায়ী মেট্রোপলিটন পুলিশের তিন থানার অধীনে তিনটি নির্বাচনী কার্যালয় থাকবে।

বিএনপির সঙ্গে নেই জামায়াত : বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী এডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ারকে সমর্থন দিলেও গণসংযোগে অংশ নেয়নি জামায়াত। তবে দুয়েকদিনের মধ্যে বৈঠকের পর প্রার্থীর সঙ্গে গণসংযোগে অংশ নেয়াসহ প্রচার-প্রচারণায় নামবেন, এমনটাই জানিয়েছেন মহানগর জামায়াতের নায়েবে আমির অধ্যক্ষ আমিনুল ইসলাম খসরু।

তিনি জানান, বিএনপির মেয়রপ্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ারকে সমর্থন দিয়েছে জামায়াত। ইতোমধ্যে জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। ২/১ দিনের মধ্যে বিএনপির মেয়রপ্রার্থীর সঙ্গে গণসংযোগে নামবে জামায়াত ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে বিএনপির অভিযোগ : আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা সংক্রান্ত আইনবিষয়ক উপকমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক এডভোকেট মহসিন মন্টু। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর নৌকা প্রতীকের সমর্থনে নগরীর বিভিন্ন স্থানে মিছিল ও শোভাযাত্রা হয়েছে, যা নির্বাচনী আচরণবিধির ৭ (ক) ধারার লঙ্ঘন। এতে আইনশৃঙ্খলার অবনতি হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ইভিএমে ভোট ১০ কেন্দ্রে : বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৪টি ওয়ার্ডের ১০টি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ করা হবে। এ ১০টি কেন্দ্রে মোট ২২ হাজার ৮৪৮ জন ভোটার ইভিএমে ভোট দেয়ার সুযোগ পাবেন। বরিশাল সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. মজিবুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

ইভিএমে যে কেন্দ্রগুলোয় ভোট গ্রহণ করা হবে সেগুলো হচ্ছে- ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কিশোর মজলিস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও নুরিয়া আইডিয়াল স্কুল, ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের অক্সফোর্ড মিশন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও গোবিন্দ মোহন চৈতন্য মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২০ নম্বর ওয়ার্ডের আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বি এম কলেজের কলা বিভাগ কেন্দ্র ও বি এম কলেজের বাণিজ্য বিভাগ কেন্দ্র এবং ২১ নম্বর ওয়ার্ডের সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ, সৈয়দ আব্দুল মান্নান ডিডিএফ মাদ্রাসার নিচতলা এবং সৈয়দ আব্দুল মান্নান ডিডিএফ মাদ্রাসার দ্বিতীয় তলা।

প্রশাসনের ১০ ভিজিল্যান্স টিম : বিসিসি নির্বাচনে প্রার্থীদের আচরণবিধি তদারকি করতে পৃথক ভিজিল্যান্স টিম ও মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। গোটা নির্বাচনে আইনি প্রক্রিয়া নিশ্চিত করতে রিটার্নিং কর্মকর্তার অধীনে থাকবেন জেলা প্রশাসনের ১০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এ ছাড়া নির্বাচনী আচরণবিধি তদারকি করতে ১০ সদস্যের ভিজিল্যান্স টিম গঠন করা হয়েছে। এতে আহ্বায়ক করা হয়েছে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. মজিবুর রহমান এবং সদস্য সদস্য সচিব সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. হেলাল উদ্দিন খানকে। অপর আট সদস্যের মধ্যে রয়েছেন- প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj