নন হজকিনস লিম্ফোমা

শুক্রবার, ১৩ জুলাই ২০১৮

নন হজকিনস লিম্ফোমা হলো লিম্ফয়েড টিস্যুর ম্যালিগন্যান্ট টিউমার যার কারণে মুখের আলসার দেখা দিতে পারে। নন হজকিনস লিম্পোমাকে নন হজকিন লিম্পোমাও বলা হয়ে থাকে। সহজ কথায় নন হজকিন লিম্পোমা একটি ক্যান্সার যা শুরু হয় লিম্ফোসাইট নামক সেল বা কোষ থেকে। লিম্ফোসাইট শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার অংশ। লিম্ফোসাইট থাকে লিম্ফনোড এবং অন্যান্য লিম্ফয়েড টিস্যুতে যেমন প্লীহা এবং অস্থিমজ্জা। এইচআইভি পজিটিভ ব্যক্তিদের নন হজকিন লিম্পোমা হতে পারে। লিম্ফোসাইট প্রধানত দুই ধরনের হয়ে থাকে। ই লিম্ফোসাইট এবং ঞ লিম্ফোসাইট। উভয় ধরনের লিম্ফোসাইট থেকে লিম্ফোমা সেল হতে পারে। কিন্তু ই লিম্ফোমা অনেক বেশি হয়ে থাকে।

উপসর্গ : নন হজকিন লিম্পোমার ক্ষেত্রে ব্যথাযুক্ত অবস্থায় সারভাইকাল লিম্ফনোডগুলো বড় হয়ে যায়। প্রাথমিক অবস্থায় রোগীরা এ বর্ণনা বা অভিযোগ করে থাকেন। ক) মুখের অভ্যন্তরে আলসার বা ঘা এবং মুখ ফুলে যেতে পারে। খ) চোয়াল খোলার ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা দেখা দিতে পারে। গ) মুখের সংক্রমণ- বিশেষ করে ভাইরাস এবং ফাংগাসের কারণে ঘ) সাইটোটক্সিক বা কোষ বিনাশকারী ওষুধের কারণে মিউকোসাইটিস বা মুখের আলসার। ঙ) এনিমিয়া বা রক্তস্বল্পতা। চ) কর্টিকোস্টেরয়েড থেরাপির কারণে মুখের সমস্যা। ছ) মুখের অভ্যন্তরে সামান্য আঘাতে রক্তপাতের সম্ভাবনা। ঞ) একিউট লিউকেমিয়া : চিকিৎসা প্রাপ্তদের শতকরা ৭ ভাগের ক্ষেত্রে এমনটি হতে পারে।

সিস্টেমিক উপসর্গ : ক) জ্বর। খ) রাতে ঘাম দেয়া। গ) ওজন কমে যাওয়া।

অন্যান্য উপসর্গ : ক) খাওয়ায় অরুচি। খ) দুর্বলতা। গ) শ্বাসকষ্ট। ঘ) চুলকানি।

এইচআইভি পজিটিভ ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে নন হজকিন লিম্ফোমা ছাড়া এনজিওসারকোমা, মেলানোমা এবং কমক্ষেত্রে স্কোয়ামাস সেল কারসিনোমা বা ক্যান্সার হতে পারে।

অতএব, নন হজকিন লিম্ফোমা রোগীদের যথাযথ চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে এবং মুখের অভ্যন্তরে আলসার বা অন্য কোনো সমস্যা থাকলে দ্রুত সমাধান করতে হবে যাতে রোগী খাদ্যদ্রব্য গ্রহণের সময় কোনো সমস্যা না হয়। এইচআইভি পজিটিভ ব্যক্তিদের প্রতি কোনো অবহেলা না করে সামাজিকভাবে তাদের সহযোগিতা প্রদান করতে হবে যাতে তারা স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারে। একটু ভালোবাসাই পারে পুরো জীবনটাকে সুন্দর করে গড়ে তুলতে।

ডা. মো. ফারুক হোসেন

মুখ ও দন্তরোগ বিশেষজ্ঞ

ইমপ্রেস ওরাল কেয়ার,

ইব্রাহিমপুর, ঢাকা

পরামর্শ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj